ঢাকা, শুক্রবার, ৭ চৈত্র ১৪২৫, ২২ মার্চ ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

আখেরি মোনাজাতে দেশের কল্যাণ ও মুসলমানদের ঐক্য কামনা

হাসমত আলী : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৯-০২-১৬ ১০:৫৭:২৯ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০২-১৭ ১০:১১:৪২ এএম

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর : দুনিয়া ও আখেরাতের শান্তি, দেশের কল্যাণ, মুসলিম উম্মাহর ঐক্য কামনা করে আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শনিবার অনুষ্ঠিত হলো তাবলিগ জামাতের মাওলানা জুবায়ের অনুসারীদের বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাত।

আত্মশুদ্ধি ও নিজ নিজ গুনাহ মাফ ও মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের জন্য সমবেত মুসল্লিরা দুই হাত তুলে মোনাজাত করেন। মোনাজাতের সময় ইজতেমা ময়দান ও আশপাশ এলাকা থেকে ক্ষণে ক্ষণে ভেসে আসে ‘আমিন, আল্লাহুম্মা আমিন’ গগণ বিদারী ধ্বনি।

সকাল ১০টা ৪২ মিনিটের দিকে বিশ্ব তাবলিগ জামাতের শীর্ষ স্থানীয় মুরব্বি বাংলাদেশের কাকরাইল মসজিদের ইমাম মাওলানা মুহাম্মদ জোবায়ের মোনাজাত শুরু করেন। চলে বেলা ১১টা ৬ মিনিট পর্যন্ত। ২৪ মিনিট আরবি ও বাংলা ভাষায় মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে প্রথম ১৩ মিনিট আরবিতে এবং শেষ ১১ মিনিট বাংলায় দোয়া পরিচালনা করেন তিনি। মোনজাতের আগে অনুষ্ঠিত হয় হেদায়াতি বয়ান।

 



এর আগে সকালে বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নেওয়া এবং মোনাজাতে শরিক হতে আসা লাখ লাখ মুসল্লি প্রতীক্ষায় থাকেন মোনাজাতের জন্য। মোনাজাতের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হলে হঠাৎ বিশ্ব ইজতেমাস্থলের জনসমুদ্রে নেমে আসে পিনপতন নীরবতা। যে যেখানে ছিলেন সেখানে দাঁড়িয়ে কিংবা বসে হাত তোলেন আল্লাহর দরবারে। মোনাজাত চলাকালে অনেকে কান্নায় বুক ভাসান।

মোনাজাত শুরুর আগে ইজতেমা ময়দানের চারদিক থেকে লাখ লাখ মুসল্লি হেঁটেই টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমাস্থলে পৌঁছেন। সকাল ৯টার আগেই ইজতেমা মাঠ কানায় কানায় পূর্ণ হলে মুসল্লিরা মাঠের আশপাশের রাস্তা, অলি-গলি, বিভিন্ন ভবনের ছাদে অবস্থান নেন। অনেক মানুষ কামারপাড়া সড়ক ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে পুরানো খবরের কাগজ, পাটি, সিমেন্টের বস্তা ও পলিথিন সিট বিছিয়ে অবস্থান নেন। অনেকে ময়দানের পার্শ্ববর্তী বাসা-বাড়ি-কলকারখানা-অফিস, যানবাহনের ছাদে ও তুরাগ নদেতে নৌকায় অবস্থান নেন। ইজতেমাস্থলের চারপাশের কয়েক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যে দিকেই চোখ যায় সে দিকেই শুধু টুপি-পাঞ্জাবি পড়া মানুষ আর মানুষ।

এদিকে, ইজতেমা এলাকার বিভিন্ন বাসা-বাড়ি ও বিভিন্ন দালানের ছাদে বসে নারী মুসল্লিরা ও আখেরি মোনাজাতে অংশ নিয়েছেন।

 



আগা
মী বছরের ইজতেমা : আগামী বছর বিশ্ব ইজতেমা ১০, ১১ ও ১২ জানুয়ারি এবং ১৭, ১৮ ও ১৯ জানুয়ারি দুই পর্বে অনুষ্ঠিত হবে বলে মোনাজাত শেষে মুরব্বিরা মাইকে ঘোষণা দেন।

আরো দুই মুসল্লির মৃত্যু : টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দেওয়া আরো দুই মুসল্লি মারা গেছেন। শনিবার ভোরে ঢাকার কদমতরা এলাকার মো. আবুল হোসেন (৫৫) ইজতেমা ময়দানে তার নিজ খিত্তায় ভোর ৫টার দিকে অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাকে টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান। এ ছাড়া শুক্রবার দুপুরে সিরাজগঞ্জের বেলকুচি থানার মৃত হাতেম আলীর ছেলে আব্দুর রহমান (৫৫) মারা যান। এ নিয়ে ইজতেমায় অংশগ্রহণকারী ছয়জন মুসল্লি মারা গেলেন।

১৭-১৮ ফেব্রুয়ারি সা’দপন্থিদের ইজতেমা : আজ আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো মাওলানা জুবায়ের অনুসারীদের বিশ্ব ইজতেমা। মোনাজাত শেষে জোবায়ের অনুসারীগণ ময়দান ছেড়ে চলে গেলে রোববার থেকে পরের দুই দিন (১৭ ও ১৮ ফেব্রুয়ারি) মাওলানা সা’দ অনুসারীদের পরিচালনায় বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে। সোমবার তাদের আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হবে এ বছরের চার দিনের বিশ্ব ইজতেমা।



রাইজিংবিডি/গাজীপুর/১৬ জানুয়ারি ২০১৯/হাসমত আলী/সাইফুল

Walton Laptop
 
     
Walton AC