ঢাকা, রবিবার, ১২ আষাঢ় ১৪২৪, ২৫ জুন ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

প্রয়োজন মুস্তাফিজের মত আরো ক্রিকেটার

এনএ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৬-১২-২৮ ১:০৬:০৭ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৬-১২-২৮ ১:০৬:০৭ পিএম

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের তরুণ সেনসেশন মুস্তাফিজুর রহমান, যিনি আবির্ভাবেই তাক লাগিয়ে দিয়েছেন পুরো ক্রিকেট বিশ্বকে। সেই মোস্তাফিজ আবারও আন্তর্জাতিক সংবাদ হয়েছেন। ২০১৫-১৬ মৌসুমে আইসিসির বর্ষসেরা উদীয়মান ক্রিকেটারের পুরস্কার পেয়েছেন তিনি।

 

বাংলাদেশের কোন ক্রিকেটারের আইসিসির বর্ষসেরা পুরস্কার জয় এটিই প্রথম। এর মধ্য দিয়ে নিজের ও দেশের জন্য অনন্য গৌরব বয়ে এনেছেন মুস্তাফিজ।

 

আইসিসি বর্ষসেরার পুরস্কার চালু করে ২০০৪ সালে। তার মধ্যে এর আগে এশিয়ায় বর্ষসেরা উদীয়মান খেলোয়াড় হয়েছেন ভারতের দুজন (২০০৪, ২০১৩) ও শ্রীলংকার একজন (২০০৮) খেলোয়াড়। আর ২০১৬ সালে এ সম্মানে ভুষিত হলেন মুস্তাফিজ। পাকিস্তানের কোন খেলোয়াড় এখন পর্যন্ত এ পুরস্কার পাননি। 

 

মুস্তাফিজ ক্রিকেট বিশ্বের নজর কাড়েন গত বছর জুনে। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক ম্যাচেই ভারতের বিরুদ্ধে পাঁচ উইকেট লাভ করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দেন। এরপর দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও  বিশ্বের অন্যতম ক্রিকেট পরাশক্তি ভারতরে বিরুদ্ধে ছয় উইকেট নেন তিনি। তার অসাধারণ নৈপুন্যে দুর্দান্তভাবে ভারতকে হারিয়ে দেয় স্বাগতিক বাংলাদেশ। এর মধ্য দিয়ে বিশ্বের একমাত্র খেলোয়াড় হিসেবে প্রথম দুই ম্যাচে ১১ উইকেট লাভ করে বিশ্ব রেকর্ড গড়েন মাত্র ১৯ বছর বয়সের মুস্তাফিজ।

 

এরপর একই বছর পাকিস্তানকেও ধরাশায়ী করে বাংলাদেশ। সীমিত ওভারের ম্যাচে ক্রিকেট বিশ্বের দুই পরাশক্তি পাকিস্তান ও ভারতের বিরুদ্ধে সিরিজ জয় করে ক্রিকেটে নতুন পরাশক্তি হিসেবে আগমনের জানান দেয় বাংলাদেশ। আর এর নায়ক যে টাইগার সেনসেশন মুস্তাফিজ তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

 

অসাধারণ বোলিং করে  মুস্তাফিজ ক্রিকেট বিশ্বে বাংলাদেশের শক্তিমত্তার প্রমাণ দেন। বোলিংয়ে তার নতুন কৌশল ও বৈচিত্র্যে খেই হারিয়ে ফেলেন বিশ্বের বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানরা। তার বল বুঝতে না পেরে  ঠিকমতো খেলতে পারেন না ব্যাটসম্যানরা। যা জয়-পরাজয় নির্ধারণের ক্ষেত্রে প্রধান ভূমিকা পালন করে।

 

এরপর মুস্তাফিজ ভারতের মাটিতে আইপিএলে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে অসাধারণ পারফরম্যান্সে মুগ্ধ করেন সবাইকে। ভারতের অসংখ্য ক্রিকেটপ্রেমীর মনও জয় করে নেন তিনি। বাঘা বাঘা সব নামী-দামী ক্রিকেটভাষ্যকারদের মুখে ছিল মুস্তাফিজ বন্দনা। টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয় মুস্তাফিজের দল। এতে তার সুনাম বৃদ্ধি পায় আরো।

 

কাটার মাস্টারখ্যাত মুস্তাফিজ ক্রিকেটের কুলীন হিসেবে পরিচিত ইংল্যান্ডে খেলতে গিয়েও সবার নজর কেড়েছেন। কাউন্টি ক্রিকেটে সাসেক্স শার্কের হয়ে অভিষেক ম্যাচে দুর্দান্ত পারফর্মেন্স দেখিয়েছেন বাংলাদেশের এই তরুণ তুর্কী। চার ওভার বল করে মাত্র ২৩ রান দিয়ে চার উইকেট নিয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার লাভ করেন।

 

বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ইতিবাচক ভাবমূর্তি গড়ে ওঠার অন্যতম একটি দিক ক্রিকেট। অনন্য ক্রিকেট প্রতিভা মুস্তাফিজের কল্যাণে সুনাম আরো বাড়ছে। বর্তমানে নিউজিল্যান্ড সফরে রয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। প্রথম ওয়ানডেতে হারলেও হতাশ নন টাইগাররা । দ্বিতীয় ম্যাচে আরো উজ্জীবিত ক্রিকেট খেলবে বাংলাদেশ।

 

তবে বিশ্ব ক্রিকেটে শক্ত অবস্থান গড়তে করতে মুস্তাফিজের মত এরকম ক্রিকেটার আমাদের আরো প্রয়োজন। দেশে মুস্তাফিজের মতো আরো প্রতিভা  রয়েছে বলে আমাদের বিশ্বাস।  এখন প্রয়োজন সেসব প্রতিভা খুঁজে বের করে আনা ও সঠিক পরিচর্যা। তা হলে বিশ্ব ক্রিকেটে একদিন আধিপত্য বিস্তার করতে সক্ষম হবে বাংলাদেশ দল।

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৮ ডিসেম্বর ২০১৬/এনএ

Walton Laptop