ঢাকা, বুধবার, ১২ আষাঢ় ১৪২৬, ২৬ জুন ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

বিশ্ব রেকর্ড সৃষ্টিকারী হালিমকে নিয়ে প্রথম প্রতিবেদন

আমিনুল ইসলাম : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৫-১০-১০ ২:৫৭:৫৫ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৫-২২ ৯:১২:২৩ পিএম
Walton AC 10% Discount

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বাংলাদেশে লিওনেল মেসির মতো ফুটবল জাদুকর নেই। যিনি পায়ের কারুকাজ দেখিয়ে দর্শকদের মুগ্ধ করতে পারেন। তবে একজন আছেন, যিনি ফুটবল নিয়ে অর্ধশতাধিক আকর্ষণীয় খেলা দেখাতে পারেন। মন্ত্রমুগ্ধ করতে পারেন। ফুটবল মাথায় রেখে ১৫.২ কিলোমিটার হেঁটে যিনি গড়েছেন গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস। বর্তমানে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন নতুন আরো একটি বিশ্ব রেকর্ড গড়ার। ইতিমধ্যে দেশের সীমানা ছাড়িয়ে পৃথিবীর নানা প্রান্তের মানুষের কাছে পৌঁছে গেছে আব্দুল হালিমের নাম।

 

হালিমের গ্রামের বাড়ি মাগুরার শালিখা উপজেলার শতখালি ইউনিয়নের ছয়ঘরিয়া গ্রামে। স্ত্রী নাছিমা বেগম, দুই সন্তান সুমন ও শাহিন এবং বৃদ্ধ বাবা ছানাউল্লাহকে নিয়ে হালিমের সংসার। ফুটবল নিয়ে নানা ধরনের নৈপুণ্য দেখিয়ে পরিবারে এসেছে সামান্য সচ্ছলতা। অভাব-অনটনের মধ্যেই ফুটবলের নানা কৌশল রপ্ত করেছেন হালিম। মাত্র ১০ বছর বয়সে মাকে হারান। দারিদ্র্য সঙ্গে নিয়েই তার বেড়ে ওঠা। দুমুঠো খাবার জোগাড় করতে বাবার সঙ্গে অন্যের জমিতে শ্রমিকের কাজ করেছেন। কখনো কাজ করেছেন রাজমিস্ত্রির সহকারী হিসেবে।

 

কঠিন সময়েও ফুটবলের প্রতি তার প্রবল আকর্ষণে ভাটা পড়েনি। স্বপ্ন ছিল বড় ফুটবলার হওয়ার। সুযোগ পেলেই স্থানীয় মাঠে ফুটবল খেলা দেখতে যেতেন। ১৯৯২ সাল থেকে মাথায় ফুটবল রাখার চেষ্টা শুরু করেন তিনি। দুই বছরের চেষ্টায় অনেকটা সফলও হন। একসময় ফুটবলকে নিজের বশে নিয়ে আসেন।

 

এরপর কাজের ফাঁকে ফাঁকে চলতে থাকে ফুটবল নিয়ে নানা অনুশীলন। একসময় ফুটবল মাথায় নিয়ে হাঁটা, সাঁতার কাটা, সাইকেল-মোটরসাইকেল চালানো, খাবার খাওয়া ও গাছে ওঠাসহ সব কাজ করতে পারেন। এরপর একসঙ্গে ১১টি বল নিয়ে নানা কসরতসহ অর্ধশতাধিক খেলা আয়ত্ত করেন হালিম।

 

২০১২ সালে মাথায় বল নিয়ে হাঁটার ক্ষেত্রে মালয়েশিয়ার ই মিং লুর গড়া রেকর্ড ভাঙেন। ই মিং বল নিয়ে ১১.১২ কিলোমিটার হেঁটে গিনেজ বইয়ে নাম তুলেছিলেন। হালিম ঢাকার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ওয়ালটন গ্রুপের জনপ্রিয় ব্র্যান্ড মার্সেলের ব্যানারে ২০১২ সালে বল মাথায় নিয়ে টানা ১৫.২ কিলোমিটার হেঁটে সেই রেকর্ড ভেঙে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে নিজের নাম অন্তর্ভুক্ত করেন। ২০১২ সালের জানুয়ারি মাসে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি পান তিনি। একটি দুটি নয়, আরো বেশ কয়েকটি বিশ্ব রেকর্ড গড়ার জন্য কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছেন তিনি। স্বপ্ন দেখছেন এমন কিছু রেকর্ড গড়ার, যা কেউ ছুঁতে পারবে না।

 

হালিমের বিশ্বাস, একদিন তার নতুন এই স্বপ্নগুলোও পূরণ হবে। নিজের বুদ্ধি আর সামর্থ্য দিয়ে বাংলাদেশকে তিনি বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে তুলে ধরতে পারবেন।

 

শনিবার বিশ্ব রেকর্ড সৃষ্টিকারী আব্দুল হালিম রাইজিংবিডি ডটকম কার্যালয়ে আসেন। তার সঙ্গে কথা হয় এই প্রতিবেদকের। তিনি তার বেড়ে ওঠার গল্প বলেন। ভবিষ্যৎ স্বপ্ন নিয়ে বলেন, ‘আমি দেশের নাম বিশ্বে তুলে ধরতে চাই। আমার সবটুকু সামর্থ্য দিয়ে এ চেষ্টা করে যাব।’






রাইজিংবিডি/ঢাকা/১০ অক্টোবর ২০১৫/আমিনুল/তাপস রায়/এএন

Walton AC
     
Walton AC
Marcel Fridge