ঢাকা, সোমবার, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৪, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮
Risingbd
অমর একুশে
সর্বশেষ:

বড়পুকুরিয়া খনি শ্রমিকদের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট

নজরুল মৃধা : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০১-০৮ ৭:৩৩:১১ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০১-১০ ১২:৩৪:৩৬ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর : স্থায়ী নিয়োগের দাবিতে দিনাজপুরের পার্বতীপুরে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি শ্রমিকরা অনির্দিষ্টকালের অবস্থান ধর্মঘট শুরু করেছে। রোববার দুপুর থেকে শ্রমিকরা এ কর্মসূচি শুরু করে। ফলে খনি থেকে কয়লা উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে।

 

দীর্ঘ ২০ বছর ধরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ১ হাজার ৪১ জন খনি শ্রমিক কয়লা খনিতে কাজ করে আসছে। তাদের দৈনিক মজুরি দেওয়া হয় সারফেজে ২৯৭ টাকা এবং ভূ-গর্ভে ৩৫০ টাকা। মাসে একজন শ্রমিক ১৮-২০ দিনের বেশি কাজ করতে পারে না। ফলে মাস শেষে তাদের বেতন দেওয়া হয় ৬ থেকে ৭ হাজার টাকা।

 

খনির রক্ষণাবেক্ষণ ও উৎপাদনে (এমএন্ডপি) চায়না ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিএমসি-এক্সএমসি’র সঙ্গে চুক্তি চলতি বছরের আগস্ট মাসে শেষ হবে। ইতিমধ্যে খনি কর্তৃপক্ষ এমএন্ডপির ঠিকাদার নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করেছে। এ অবস্থায় রোববার দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত খনি এলাকায় প্রশাসনিক ভবনের পাশে কয়েকশত শ্রমিক সমাবেশ করে এবং তাৎক্ষণিকভাবে অনির্দিষ্টকালের অবস্থান ধর্মঘট শুরু করে।

 

খনি কর্তৃপক্ষ কোনো সাংবাদিককে খনি এলাকায় প্রবেশ করতে দেয়নি। পরে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি শ্রমিক-কর্মচারি ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবু সুফিয়ান খনির আবাসিক গেটে এসে অপেক্ষমান সাংবাদিকদের বলেন, গত তিনমাস থেকে কয়েকদফা পত্র দিয়ে খনি কর্তৃপক্ষকে প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী শ্রমিকদের দারি বাস্তবায়নের আহ্বান জানানো হয়। কিন্তু খনি কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের দাবির বিষয়ে কর্ণপাত না করায় গত ১৪ ডিসেম্বর থেকে স্ব-স্ব স্থানে অবস্থান করে অনির্দিষ্টকালের অবস্থান ধর্মঘট শুরু করার ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল। সে সময় স্থানীয় সংসদ সদস্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমানের হস্তক্ষেপে এবং খনি কর্তৃপক্ষের অনুরোধে ৭ জানুয়ারি পর্যন্ত কর্মসূচি স্থগিত করা হয়।

 

তিনি জানান, সেই অনুযায়ী গত শনিবার শ্রমিকদের সঙ্গে আলোচনা বৈঠকের কথা থাকলেও খনি কর্তৃপক্ষের কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। বাধ্য হয়ে দুপুর থেকে অনির্দিষ্টকালের অবস্থান ধর্মঘট শুরু করা হয়েছে।

 

 

রাইজিংবিডি/রংপুর/৮ জানুয়ারি ২০১৭/নজরুল মৃধা/বকুল

Walton
 
   
Marcel