ঢাকা, রবিবার, ১২ চৈত্র ১৪২৩, ২৬ মার্চ ২০১৭
Risingbd
মার্চ
সর্বশেষ:

মাগুরায় হাতুড়ি পেটার হোতারা অধরা! মুক্তিযোদ্ধারা উদ্বিগ্ন

মো. আনোয়ার হোসেন শাহীন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০১-১১ ৩:১২:১০ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০১-১১ ৩:৪৬:৪২ পিএম
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বীর মুক্তিযোদ্ধা মিয়া মশিউর রহমান

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার তখলপুর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মিয়া মশিউর রহমানের উপর বর্বরোচিত হাতুড়ি পেটার আসামীদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা। এ ঘটনায় থানায় মামলা হলেও ২০ দিন পেরিয়ে গেলেও মূল আসামিরা থেকে গেছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। অথচ আজও হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে কাতরাচ্ছেন মুক্তিযোদ্ধা মশিউর।

অপরদিকে মামলার প্রধান আসামিরা প্রকাশ্যে থেকে এ মামলার সাক্ষীদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে বলে  অভিযোগ করেছেন মুক্তিযোদ্ধা মশিউরের ছেলে মধুখালী সুগার মিলের কর্মকর্তা রিয়াদুল ইসলাম।

মুক্তিযোদ্ধা মশিউর রহমানের উপর হামলার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষীদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ও একাত্তরের শ্রীপুর বাহিনীর উপঅধিনায়ক মোল্যা নবুয়ত আলী।

তিনি বলেন, ‘মশিউর রহমান মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের পর বিডিআরে যোগদান করেন। দেশের জন্য তার অবদান অনস্বীকার্য। অথচ অবসর জীবনে গ্রামের দুর্বৃত্তরা প্রবীণ এ মুক্তিযোদ্ধার উপর বর্বরোচিত হামলা চালিয়েছে। আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ জানাই। আসামিদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচারের জন্য আমরা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। প্রয়োজনে আমরা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গেও এ বিষয়ে আলোচনা করব।’

মশিউর রহমানের সহযোগী মুক্তিযোদ্ধা ও অবসরপ্রাপ্ত বিডিআর সদস্য মো. আলেক মিয়া বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধা মশিউর রহমান অত্যন্ত সহজ সরল মানুষ। গ্রামের কোনো রাজনীতির সঙ্গে তিনি যুক্ত থাকেন না। নিজের ছেলে মেয়েদের লেখাপড়া শিখিয়ে মানুষ করেছেন এটাই তার সবচেয়ে বড় অপরাধ। ঈর্ষা কাতর ও সম্পত্তির লোভে পড়ে তার উপর এই বর্বরোচিত হামলা করা হয়েছে। আমরা এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগ মাগুরা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মীর মনিরুল ইসলাম লিটন বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধার উপর হামলার অর্থ দেশের উপর হামলা। আমরা চিহ্নিত ওই হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’ 

মামলার বিবরণ ও সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গে কথা বলে  জানা গেছে, পূর্বশত্রুতার জের ধরে গত ২৩ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধা ও অবসরপ্রাপ্ত বিডিআর সদস্য মশিউর রহমান গ্রামের বাড়ি থেকে মাগুরায় আসার পথে ওই গ্রামের বাঁশি বিশ্বাস, সুমন, আকেন, রফিকুল ও আজিজুল তার উপর অতর্কিতে হামলা চালায়। এ সময় তারা লোহার রড ও হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে তাকে মারাত্মক আহত করে। তার হাতের আঙ্গুল, হাঁটু, কোমরসহ একাধিক জায়গায় এখনও আঘাতের চিহ্ন স্পষ্ট। এ ঘটনার পর ওই মুক্তিযোদ্ধাকে মাগুরা সদর হাসপাতালের মুক্তিযোদ্ধা কেবিনে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় মশিউর রহমানের ছেলে রিয়াদুল ইসলাম বাদী হয়ে ২৫ ডিসেম্বর শ্রীপুর থানায় মামলা দায়ের করেন।

 


পায়ে হাতুড়ির আঘাতের চিহ্ন


মামলার বাদী রিয়াদ অভিযোগ করেন, ঘটনার ২০দিন পরও মামলার প্রধান আসামিরা প্রকাশ্যে ঘোরাফেরা করলেও অজ্ঞাত কারণে পুলিশ তাদের ধরছে না। এদিকে গ্রেপ্তার না হওয়ায় তারা এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার সাক্ষীদেরকে সাক্ষ্য না দেওয়ার জন্য হুমকি-ধমকি দিচ্ছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শ্রীপুর থানার এসআই আব্দুল হামিদ জানান, ইতিমধ্যে মামলার ৫নং আসামি আজিজুলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সে আদালত থেকে জামিনে মুক্ত আছে।  অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের জন্য চেষ্টা চলছে।




রাইজিংবিডি/মাগুরা/ ১১ জানুয়ারি ২০১৭/ মো. আনোয়ার হোসেন শাহীন/টিপু

Walton Laptop