ঢাকা, শনিবার, ৮ মাঘ ১৪২৩, ২১ জানুয়ারি ২০১৭
Risingbd
 
সর্বশেষ:

সুস্বাস্থ্য নিয়ে যে ধারণাগুলো ভুল

আফরিনা ফেরদৌস : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৬-১২-১২ ৭:৪২:১৯ এএম     ||     আপডেট: ২০১৬-১২-১২ ৭:৪২:১৯ এএম
প্রতীকী ছবি

আফরিনা ফেরদৌস : অতীতে চিকিৎসা ব্যবস্থা উন্নত ছিল না। মানুষ অনেক সময় বিনা চিকিৎসাতেই মারা যেত। কিন্তু দিন বদলেছে। মানুষ এখন স্বাস্থ্য সচেতন। সুস্থ থাকার জন্য কোন খাবার খেতে হবে, কোনটা খাওয়া যাবে না-তা নিয়েও ভাবছে মানুষ। 

 

এমন অনেক অভ্যাস আমাদের রয়েছে যেগুলো আমরা স্বাস্থ্যকর মনে করি। কিন্তু সেসব স্বাস্থ্যকর অভ্যাস বদলে ফেলা দরকার। স্বাস্থ্যকর মনে করা ৩৭টি অভ্যাস পরিবর্তন নিয়ে পাঁচ পর্বের প্রতিবেদনে আজ দ্বিতীয় পর্বে থাকছে ৬টি অভ্যাস।  

 

প্রতিদিন চুল ধোয়া

চুল বিশেষজ্ঞ কিন বলেন, আপনার চুল যদি অস্বাভাবিক ধরনের তৈলাক্ত না হয় তাহলে আপনার উচিত সপ্তাহে কম হলে দুই বার এবং বেশি হলে পাঁচ বার চুল ধোয়া। তাই বলে প্রতিদিন নয়। এটি আপনার মাথা বেশি পরিষ্কার করবে না বা আপনার চুল দ্রুত বাড়তে সাহায্য করবে না। এছাড়া অতিরিক্ত শ্যাম্পু করলে মাথার ত্বক শুষ্ক হয়ে যেতে পারে। যা অনেক সময় চুল ঝরে যাওয়ার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। 

 

জোর করে সোজা হয়ে বসা

এটা বলা হয়ে থাকে যে, শরীর ভাজ করে বসা ঠিক নয়। তবে জোর করে নিজেকে সোজা করে বসিয়ে রাখা মানে এক প্রকার নিজেকে কষ্ট দেওয়া। ডাক্তার নিল আনন্দ বলেন, আপনার অফিসের সেট এমন হওয়া উচিত যাতে আপনি কনুই ৯০ ডিগ্রি কোণাকুণি ভাবে রেখে এবং টেবিলের নিচে পা রেখে আরাম করে বসতে পারেন। সোজা হয়ে ততক্ষণই বসা উচিত যতক্ষণ পর্যন্ত শরীর সেই ভার বহন করতে পারে। শরীর ব্যথা হতে পারে বা করে এমনভাবে বসা উচিত নয়।

 

শক্ত বিছানায় ঘুমানো

মানুষ মনে করে শক্ত বিছানায় ঘুমালে ব্যাক পেইন বা মেরুদন্ডে এবং ঘাড়ে ব্যথা দূর হয়ে যায়। কিন্তু বাস্তবিকভাবে আপনি শক্ত বিছানা বা ম্যাট্রেসে ঘুমালে, আপনার ব্যথা কমার পরিবর্তে বাড়তে পারে। কারণ এটি কোমর এবং ঘাড়ে বেশ চাপ তৈরি করে। অপর দিকে খুব নরম বিছানায় শোয়া ঠিক নয় এতে করে রাতে ঘুমের মাঝে ঠিক মতো নড়াচড়া করা যায় না। ডাক্তার নিল আনন্দ একটি গবেষণার ভিত্তিতে বলেন যে, বেশি শক্ত বা বেশি নরম কোনো ধরনের বিছানাতেই ঘুমানো ঠিক নয়।

 

অ্যাস্পিরিন ওষুধ খাওয়া

ডাক্তার ভারনন বলেন, একজন নিউরোলজিস্ট এবং ব্যথা উপশম বিশেষজ্ঞ হয়ে আমি মানুষের মধ্যে একটি উদ্বেগজনক ব্যাপার লক্ষ্য করছি, আর তা হল, একটুতেই ব্যথার ওষুধ খাওয়া। তারা নির্দ্বিধায় কয়েকটা ওষুধ খেয়ে নিতে পারে। এবং মনে করে এটি তার জন্য খুবই ভালো। একটি ব্যথা উপশমকারী ওষুধ ব্যথা সারিয়ে দেয় ঠিকই কিন্তু অতিরিক্ত ব্যথার ওষুধ সেবনে অনেক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থেকে যায়।

 

বাৎসরিক পেলভিক পরীক্ষা

ডাক্তার শেলি রোজ বলেন, এখন মেয়েদের মধ্যে একটি প্রবণতা হল বাৎসরিক একবার হলেও পেলভিক বা শ্রোণীর পরীক্ষা করা। কিন্তু এটি প্রতি বছর বিনা কারণে পরীক্ষা করার কোনো প্রয়োজন নেই যদি না আপনি কোনো সমস্যার সম্মুখীন হন। আপনার পেলভিক পরীক্ষা করানোর জন্য প্রতি বছর ডাক্তারের কাছে যাওয়ার দরকার নাই বরং আপনি পরিবার পরিকল্পনার ব্যাপারে কথা বলার জন্য বছরে একবার হলেও ডাক্তারের কাছে যেতে পারেন।

 

বাচ্চাদের সবজি খেতে জোর করা

ডাক্তার ক্রিস্টাইন উড বলেন, স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া অবশ্যই উচিত তাই বলে তা জোর করে খাওয়ানো ঠিক নয়। আর বাচ্চাদের ক্ষেত্রে তো নয়ই। বাচ্চাদের ক্যান্ডির খাওয়ার ব্যাপারে বেশি বাধা দিবেন না। অথবা ভালো খাবার বলে তা খেতে বেশি জোর করবেন না। তাহলে বাচ্চাদের ওই খাবার সম্পর্কে ভয় ধরে যায়। এবং পরে আর মোটেও খেতে চায় না। মাঝে মাঝে খাবার তালিকা পরিবর্তন করা ভালো। আর বাচ্চাদের জোর করে সবজি না খাইয়ে যেসব সবজি সে খেতে পছন্দ করে তাই দিন বেশি করে।

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/১২ ডিসেম্বর ২০১৬/ফিরোজ