ঢাকা, সোমবার, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২০ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

১০৪ রানে হারল বাংলাদেশ, সিরিজ দক্ষিণ আফ্রিকার

ইয়াসিন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-১০-১৮ ১:৪৪:৪৭ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-১০-১৯ ৮:৪৬:১৪ এএম

ইয়াসিন হাসান : বোল্যান্ড পার্কে দক্ষিণ আফ্রিকার দেওয়া ৩৫৪ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ৪৭.৫ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৪৯ রানের বেশি করতে পারেনি বাংলাদেশ। ফলে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে প্রোটিয়াদের কাছে ১০৪ রানে হার মেনেছে সফরকারীরা। পাশাপাশি তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজ এক ম্যাচ হাতে রেখেই জিতে নিয়েছে ডি ভিলিয়ার্স-ডু প্লেসিসরা।

স্কোর : বাংলাদেশ ২৪৯/১০ (৪৭.৫ ওভার)।  

দক্ষিণ আফ্রিকা : ৩৫৩/৬ (৫০ ওভার)।

ইমরুল-মুশফিকের জুটি ভাঙলেন তাহির : ৬৯ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারানোর পর জুটি বাঁধেন মুশফিক ও ইমরুল। তারা দুজন তৃতীয় উইকেটে ৯৩ রানের জুটি গড়েন। এরপর ইমরান তাহিরের বলে এবি ডি ভিলিয়ার্সের হাতে ধরা পড়ে সাজঘরে ফেরেন। যাওয়ার আগে ৭৭ বলে ৬ চার ও ১ ছক্কায় ৬৮ রান করে যান। 

ইমরুল কায়েসের চতুর্দশ হাফ সেঞ্চুরি : ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ১৪তম হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন ইমরুল কায়েস। ৫৬ বলে ৫৩ রান করেন তিনি। তার হাফ সেঞ্চুরির পাশাপাশি মুশফিক-ইমরুল জুটিও হাফ সেঞ্চুরি পূর্ণ হয়েছে। 


শতরান পেরিয়ে বাংলাদেশ : ৬৯ রানে ২ উইকেট হারানোর পর ইনিংস মেরামত করছেন মুশফিকুর রহিম ও ইমরুল কায়েস। এ জুটি ইতিমধ্যে ৩২ রান সংগ্রহ করেছে। তাতে ১৭.১ ওভারে শতরান পেরিয়েছে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের ভালো শুরু: পাহাড় সমান লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুটা ভালো করেছে বাংলাদেশ। যদিও ১০ ওভারের মাঝে তামিমকে হারিয়েছে বাংলাদেশ। তবুও ধারাবাহিকভাবে স্কোরবোর্ডে রান যোগ হচ্ছে। ১০ ওভার শেষে ১ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৬২ রান। ওভারপ্রতি ৬.২০ গড়ে রান তুলেছে সফরকারীরা।

তামিমকে হারাল বাংলাদেশ: ইনজুরি থেকে ফিরে এসে শুরুটা ভালো ছিল তামিম ইকবালের। দারুণ ড্রাইভে, পুল শটে বল বাউন্ডারিতে পাঠিয়েছিলেন একাধিকবার। কিন্তু ইনিংস বড় করতে ব্যর্থ দেশসেরা ওপেনার। ২৫ বলে ২৩ রানে তামিম বিদায় নেন প্রিটোরিয়াসের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে। তামিমের আউটের সময় বাংলাদেশের রান ১ উইকেটে ৪৪।   

বিবর্ণ বোলিং, ভিলিয়ার্সের তাণ্ডব: আবারও বিবর্ণ বোলিং বাংলাদেশের। সুযোগটিকে দারুণ কাজে লাগিয়েছেন এবি ডি ভিলিয়ার্স। প্রায় চার মাস পর আন্তর্জাতিক ম্যাচে ফিরে তাণ্ডব চালিয়েছেন বোলারদের ওপর। ক্যারিয়ার সেরা ১৭৬ রানের ইনিংস খেলেছেন মাত্র ১০৪ বলে। ৩৮ বলে হাফ-সেঞ্চুরি, ৬৮ বলে সেঞ্চুরি এবং ৯৩ বলে দেড়শ রান পূর্ণ করেন ডি ভিলিয়ার্স। তার তাণ্ডবে দক্ষিণ আফ্রিকা বাংলাদেশের বিপক্ষে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৫৩ রান করেছে। হাশিম আমলা ১৫ রানের জন্য সেঞ্চুরি মিস করেছেন। কুইন্টন ডি কক করেছেন ৪৬ রান। বাংলাদেশের কোনো বোলারই প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানদের সামনে বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে পারেননি। শেষ দিকে দ্রুত রান তুলতে গিয়ে উইকেট বিলিয়েছেন ব্যাটসম্যানরা! রুবেল হোসেন সর্বোচ্চ ৪টি উইকেট পেয়েছেন। সাকিব পেয়েছেন ২ উইকেট।

রুবেলের চতুর্থ শিকার প্রিটোরিয়াস: ইনিংসের শেষ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকার রানের চাকা আটকে রাখেন রুবেল হোসেন। শেষ বলের আগের বলে প্রোটিরিয়াসকে আউট করে চতুর্থ  উইকেটের স্বাদ নেন রুবেল। ডানহাতি এ পেসারের বল মিড অন দিয়ে উড়িয়ে মারতে চেয়েছিলেন প্রিটোরিয়াস। কিন্তু মিড অনে তার বল তালুবন্দি করেন ইমরুল। 

রিভিউ নিয়ে ডুমিনিকে ফেরালেন রুবেল: রুবেলের দ্রুতগতির ইয়র্কারে বল মিস করেন জেপি ডুমিনি। বাংলাদেশ শিবিরের জোড়ালো আবেদন নাকচ করে দেন আম্পায়ার। রুবেলের চাওয়ায় মাশরাফি রিভিউয়ের আবেদন করেন। ফল বাংলাদেশের পক্ষে আসে। ৩০ বলে ৩০ করে এলবিডব্লিউ ডুমিনি। 

 



ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস ভিলিয়ার্সের: ২০১৫ বিশ্বকাপে সিডনিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৬৬ বলে ১৬২ রান করেছিলেন এবি ডি  ভিলিয়ার্স। ওয়ানডেতে সেটি ছিল তার ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস। আজ বাংলাদেশের বিপক্ষে ওই রান ছাড়িয়ে গেছেন ভিলিয়ার্স। রুবেলের বলে আউট হওয়ার আগে ভিলিয়ার্স করেছেন ১৭৬ রান। ১০৪ বলে ১৫ চার ও ৭ ছক্কায় ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসটি সাজিয়েছেন ডানহাতি এ ব্যাটসম্যান। 

উইকেট বঞ্চিত মাশরাফি: মাশরাফির বল মিড উইকেট দিয়ে হাওয়ায় ভাসিয়ে মাঠের বাইরে পাঠাতে চেয়েছিলেন জেপি ডুমিনি। কিন্তু ব্যাটের কানায় লেগে বল উঠে যায় পয়েন্টে। ১৮ রানে থাকা ডুমিনির ক্যাচ ছেড়ে মাশরাফিকে উইকেট বঞ্চিত করেন ইমরুল কায়েস। লোপ্পা ক্যাচ ছাড়ায় হতবাক মাশরাফি।

ইতিহাসের পাতায় ডি ভিলিয়ার্স: দক্ষিণ আফ্রিকার দ্বিতীয় ও ২৫তম ক্রিকেটার হিসেবে ওয়ানডেতে ২৫তম সেঞ্চুরির কীর্তি গড়েছেন এবি ডি ভিলিয়ার্স। হাশিম আমলা ওয়ানডেতে ২৬টি সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন।  ওয়ানডেতে সবথেকে বেশি সেঞ্চুরি শচীন টেন্ডুলকারের (৪৯)। এরপর আছেন বিরাট কোহলি (৩০), রিকি পন্টিং (৩০), সনাৎ জয়াসুরিয়া (২৮), হাশিম আমলা (২৬), কুমার সাঙ্গাকারা (২৫)। 
 
ভিলিয়ার্সের ‘প্রথম’ সেঞ্চুরি: প্রায় চার মাস পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ব্যাটিং করছেন এবি ডি ভিলিয়ার্স। কিন্তু তার ব্যাটিং দেখে মনে হচ্ছে না, চার মাস পর ২২ গজের ক্রিজে নেমেছেন। ঝড় তুলে ৩৪ বলে হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করার পর ৬৮ বলে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেছেন। ওয়ানডে ক্রিকেটে এটি তার ২৫তম সেঞ্চুরি। তবে বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম। ১০ চার ও ১ ছক্কায় সেঞ্চুরির ইনিংসটি সাজিয়েছেন। 

 



১৫ রানের জন্য সেঞ্চুরি মিস আমলার: ব্যাক টু ব্যাক সেঞ্চুরির দারুণ সুযোগ ছিল হাশিম আমলার। সে পথেই হাঁটছিলেন ডানহাতি এ ব্যাটসম্যান। কিন্তু তাকে আটকালেন পেসার রুবেল হোসেন। অফস্ট্যাম্পের বাইরের বল খোঁচা মারতে গিয়ে উইকেটের পিছনে মুশফিকের হাতে ক্যাচ দেন ৮৫ রান করা আমলা। ৯২ বলে ৪ বাউন্ডারিতে ইনিংসটি সাজিয়েছেন তিনি। 

ভিলিয়ার্সের হাফ-সেঞ্চুরি: সাব্বিরের বল বাউন্ডারিতে পাঠিয়ে ৩৪ বলে হাফ-সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান এবি ডি ভিলিয়ার্স। ওয়ানডেতে এটি তার ৫৪তম হাফ-সেঞ্চুরি। বাংলাদেশের বিপক্ষে এটি তার তৃতীয় হাফ-সেঞ্চুরি। 

আমলার ৩৪তম হাফ-সেঞ্চুরি: ব্যাট হাতে দ্যুতি ছড়িয়ে যাচ্ছেন হাশিম আমলা। প্রথম ওয়ানডেতে সেঞ্চুরির স্বাদ পাওয়া আমলা দ্বিতীয় ওয়ানডেতে তুলে নিয়েছেন হাফ-সেঞ্চুরি। ৫৫ বলে ৩ বাউন্ডারিতে ক্যারিয়ারের ৩৪তম হাফ-সেঞ্চুরির স্বাদ পেয়েছেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান। 

 



সাকিবের হাত ধরে আসল সাফল্য:
বাংলাদেশের বিবর্ণ বোলিংয়ে আবারও রান উৎসবে দক্ষিণ আফ্রিকার দুই ওপেনার কুইন্টন ডি কক ও হাশিম আমলা। ১৭ ওভারে নেই কোনো সাফল্য। ১৮তম ওভারে সাকিব দ্যুতি ছড়ালেন। জোড়া আঘাতে বাংলাদেশকে ফেরালেন ম্যাচে। ১৮তম ওভারের তৃতীয় বলে কুইন্টন ডি কক ফরোয়ার্ড ডিফেন্স করতে গিয়ে বল মিস করে এলবিডব্লিউ হন। শেষ বলে সাকিবের ঘূর্ণিতে পরাস্ত অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসি। বল বুঝতে না পেরে বোল্ড হন ডু প্লেসি। ৪ রানের জন্য কক হাফ সেঞ্চুরি মিস করেন। ডু প্লেসি রানের খাতা খুলতে পারেননি। 

দারুণ শুরু দ.আফ্রিকার: কুইন্টন ডি কক ও হাশিম আমলা দলকে দারুণ শুরু এনে দিয়েছেন। বাংলাদেশের বোলাররা প্রথম দশ ওভারে কোনো প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেননি। দশ ওভারে চার বোলার ব্যবহার করেছেন মাশরাফি। মাশরাফি, তাসকিন, সাকিব ও নাসির দশ ওভারে হাত ঘুরিয়েছেন। কিন্তু বলার মতো কোনো পারফরম্যান্স নেই তাদের। ১০ ওভার শেষে বিনা উইকেটে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ৫০ রান। ওভারপ্রতি ৫ করে রান তুলছে তারা।  

উইকেটের পিছনে মুশফিক:
প্রথম ওয়ানডে সেঞ্চুরি হাঁকানোর পর চোটের কারণে ফিল্ডিং করতে পারেননি মুশফিকুর রহিম। তার পরিবর্তে উইকেটের পিছনে দায়িত্ব পালন করেছিলেন লিটন কুমার দাস। আজ মুশফিক ফিরেছেন উইকেট কিপিংয়ে। ম্যাচের শুরু থেকেই কিপিং করছেন টেস্ট দলপতি। 

টস: প্রথম ওয়ানডের মতো দ্বিতীয় ওযানডেতেও টস জিতেছেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। তবে এবার বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মাশরাফি।

তামিম ফিরলেন: চোটমুক্ত তামিম ফিরেছেন সেরা একাদশে। টসের সময় মাশরাফি জানালেন, ম্যাচ ফিটনেস পাওয়ায় তামিমকে একাদশে রাখা হয়েছে। ঊরুর পেশির চোটের কারণে দ্বিতীয় টেস্ট খেলতে পারেননি। প্রথম ওয়ানডেও একই কারণে মিস করেছিলেন।

 



দুই দলে একটি করে পরিবর্তন: তামিম ইকবাল দলে ফেরায় একাদশের বাইরে পেস অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। প্রথম ওয়ানডেতে তার অভিষেক হয়েছিল। স্বাগতিক দলে আনা হয়ে একটি পরিবর্তন। প্রথম ওয়ানডেতে শততম ওয়ানডের মাইলফলক ছোঁয়া ডেভিড মিলার ইনজুরির কারণে খেলতে পারছেন না। তার পরিবর্তে এসেছেন ফারহান বেহারদিয়েন।

বাংলাদেশ দল: তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, লিটন দাস, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, মাশরাফি বিন মুর্তজা, তাসকিন আহমেদ ও রুবেল হোসেন। 

দক্ষিণ আফ্রিকা দল: কুইন্টন ডি কক, হাশিম আমলা, ফাফ ডু প্লেসি, এবি ডি ভিলিয়ার্স, ফারহান বেহারদিয়েন, জেপি ডুমিনি, আন্দ্রিলে ফিকোযাও, কাগিসো রাবাদা, ডেন পিটারসন, ইমরান তাহির ও ডোয়াইন প্রিটোরিয়াস।

 


চার বছরে প্রথম ওয়ানডে: বোলান্ড পার্কে গত চার বছরে একটি আন্তর্জাতিক ওয়ানডে ম্যাচও হয়নি। ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে এ মাঠে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সবশেষ খেলেছিল নিউজিল্যান্ড। বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো এ মাঠে খেলতে যাচ্ছে।

দক্ষিণ আফ্রিকার শীর্ষে উঠার সুযোগ: ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে ১২০ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে ভারত। দক্ষিণ আফ্রিকাও সমান রেটিং পয়েন্ট নিয়ে রয়েছে দুইয়ে। আজ মাশরাফির দলকে হারালে ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে উঠে যাবে প্রোটিয়ারা। 

 


রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৮ অক্টোবর ২০১৭/ইয়াসিন

Walton
 
   
Marcel