ঢাকা, সোমবার, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২০ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

বাজেট পাস হচ্ছে আজ

: রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৩-০৬-৩০ ১২:৩০:৪০ এএম     ||     আপডেট: ২০১৬-০৯-০৫ ৩:০৮:৫১ এএম

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক
ঢাকা, ৩০ জুন: মহাজোট সরকারের শেষ অর্থবছরের (২০১৩-১৪) বাজেট পাস হচ্ছে আজ। এটি কার্যকর হবে কাল থেকেই।

গতকাল শনিবার অনুমোদন পায় অর্থ বিল ২০১৩।

বাজেটে করপ্রস্তাবের ক্ষেত্রে কিছু পরিবর্তন আসছে।

গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুরোধে বাজেটে একগুচ্ছ করপ্রস্তাব প্রত্যাহার করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বিল পাসের আগে সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্লাস্টিক পণ্য, ওষুধ শিল্প, নিউজপ্রিন্ট, অগ্নিনির্বাপক সামগ্রী, গার্মেন্টস ও চা শিল্পের কর কমানোর অনুরোধ জানান।

ব্যবসায়ীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে শিল্পখাতে কালো টাকা বিনিয়োগের সুযোগ দেয়া হয়েছে।

গত ৬ জুন ২০১৩-১৪ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণার পর ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিষ্ট মহলের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এ পরিবর্তন আনা হয়।

একই সঙ্গে তীব্র সমালোচনার মুখে প্লট, ফ্ল্যাট ও জমি কেনায় কালো টাকা সাদা করার প্রস্তাব বাদ দেয়া হয়েছে।

ব্যক্তি শ্রেণীর করমুক্ত আয়সীমা দুই লাখ থেকে বাড়িয়ে দুই লাখ ২০ হাজার টাকা করার প্রস্তাব বহাল রাখা হয়েছে।

এছাড়া সংবাদপত্র শিল্পে ব্যবহৃত আমদানি করা নিউজপ্রিন্টের ওপর প্রস্তাবিত শুল্কহার কমানো হয়েছে। সংবাদপত্র মালিকদের বিরোধিতা এবং নিউজ পেপারস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (নোয়াব) নেতাদের বিশেষ অনুরোধে শুল্কহার কমানো হলো।

বিড়ির ওপর উচ্চ করারোপের প্রস্তাবেও সামান্য পরিবর্তন আনা হয়েছে।

জাতীয় সংসদে এসব প্রস্তাব সংশোধনী এনে অর্থবিল ২০১৩ কণ্ঠভোটে পাস হয়। এ সময় বিরোধী দলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়া উপস্থিত ছিলেন।

৬ জুন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত নতুন অর্থবছরের বাজেট সংসদে উপস্থাপন করেন। বাজেটের আকার ২ লাখ ২২ হাজার ৪৯১ কোটি টাকা। ২০১২-১৩ অর্থবছরের চেয়ে এ বাজেট ১৬ শতাংশ বেশি। শেষ হতে যাওয়া অর্থবছরের বাজেটের আকার ১ লাখ ৯১ হাজার ৭৩৮ কোটি টাকা।

নতুন অর্থবছরের বাজেটে মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ৭ দশমিক ২ শতাংশ বহাল থাকছে। উচ্চমূল্যস্ফীতির সময়ে একে ৭ শতাংশে বেঁধে রাখার ঘোষণা থেকে সরে আসছে না সরকার। একই সঙ্গে চলতি ব্যয় জিডিপির ১৩ দশমিক ২ শতাংশ, উন্নয়ন ব্যয় সাড়ে ৫ ও ঘাটতি ৪ দশমিক ৬ শতাংশই রাখা হচ্ছে। এছাড়া রফতানি ১৫ শতাংশ, আমদানি ১০ ও রেমিট্যান্স ১৫ শতাংশ হারে বাড়ানোর লক্ষ্যমাত্রা ঠিকই থাকছে।


রাজিংবিডি / এনএমএস  

সম্পাদনা: কেএস

Walton
 
   
Marcel