ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৭ চৈত্র ১৪২৫, ২১ মার্চ ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

চুনিয়ার পূর্ণিমার রাত অন্তরে পশেছে

(৪র্থ কিস্তি)

মাহমুদ নোমান: রাত তখন ৮টা। ময়মনসিংহের বিখ্যাত পদমোড়লের বাড়ি আসকিপাড়ায়, গেইট দিয়ে ঢুকতেই ঘরের কর্তা রঞ্জিত রুগা হাসিমুখে চেয়ার এগিয়ে দিলেন।

চুনিয়ার পূর্ণিমার রাত অন্তরে পশেছে: ৩য় কিস্তি

মাহমুদ নোমান : মান্দি জাতি মাতৃসূত্রীয়। আসার সময় পূর্ণিমা তার ছোটভাই সৃজনের বর বিদায়ের (পানচিনি) দাওয়াত দিয়ে রেখেছে।

কেরাই নৌকায় কাঠালিয়া

গাজী মুনছুর আজিজ: কাঠালিয়া নদীর উৎপত্তি গোমতি ও মেঘনা। দাউদকান্দি উপজেলা দিয়ে প্রবাহিত হয়ে এই কাঠালিয়া আবার মিসেছে তিতাস উপজেলার গোমিতর সঙ্গে।

ভাসমান পেয়ারা বাগানে অভিযান

গাজী মুনছুর আজিজ : স্বাদের জন্য ঝালকাঠীর পেয়ারার সুনাম যেমন, তেমনি এ পেয়ার বিক্রির জন্য ভিমরুলি গ্রামের ভাসমান হাট দেশজুড়ে পরিচিত।

মণ্ডা খেতে মুক্তাগাছা

গাজী মুনছুর আজিজ: স্বাদের জন্য মুক্তাগাছার মণ্ডার সুনাম দেশব্যাপী। গোপাল পাল এই মণ্ডার আবিষ্কারক। তিনি ১৮২৪ সালে মণ্ডার দোকান প্রতিষ্ঠা করেন।

পাহাড়ি দ্বীপ মহেশখালীতে একদিন

ফয়সাল উদ্দিন নিরব : দ্বীপ উপজেলাগুলোর মধ্যে মহেশখালী একমাত্র পাহাড়ি দ্বীপ। এ দ্বীপটি ভ্রমণের ইচ্ছে ছিল অনেক আগে থেকেই।

প্রকৃতির লীলাখেলা দেখতে পানিহাটা-তারানি

সিয়াম সারোয়ার জামিল: নদী, পাহাড়, বন, ঝরনা- এই চারে অপরূপা পানিহাটা। কিন্তু সৌন্দর্য্যের ভাগটা শুধু পানিহাটা নিতে পারেনি।

মৃত্যু এতো কাছ থেকে আগে দেখিনি

নিদারুণ এক ভয়ংকর নির্ঘুম রাত গেলো আমাদের। সকালে হাইক্যাম্প থেকে কাঠমান্ডুতে মিংমার সঙ্গে মুহিত ভাইয়ের কথা হলো।

ভুল করলেই মৃত্যু

কখনো এক পাথর থেকে আরেক পাথরে লাফিয়ে, কখনো বড় বড় পাথরের বোল্ডারের ফাঁক দিয়ে এগিয়ে চলছি। মাল্লা ও নিমা শেরপা আগে চলে গেলেন।

গাঁজা মহলে একদিন

সিয়াম সারোয়ার জামিল : ‘গাঁজা মহলে যাবি?’ নাস্তার টেবিলে ধ্রুব’র কথা শুনে চমকে গেলাম! পাল্টা প্রশ্ন করলাম- ‘গাঁজা মহল?’

জানি না আদৌ ফিরে আসবো কিনা

দুপুরের মধ্যেই আমরা ৫ হাজার ৮৬ মিটার উচ্চতার লারকে বেসক্যাম্পে এসে পৌঁছলাম। আমরা আসার আগেই মাল্লা ও পোর্টাররা চলে এসেছে।

কির্সতঙ অ্যাডভেঞ্চার

সিয়াম সারোয়ার জামিল: বন্ধু সোহানের কাছে শুনেছিলাম, কির্সতঙের কথা। এটাই নাকি চিম্বুক রেঞ্জের সবচেয়ে উঁচু পাহাড়।

জনশূন্য নির্জন পাহাড়ে চায়ের দোকান

আজকেও হিটার ঘিরে বসে থাকা অন্যদের মতো আমি শরীর উষ্ণ করছি। অন্যান্য লজের ছেলেমেয়েরাও আছে।

অপরূপ জলধারায় আকাশ ঢেলেছে নীল

সকালে ঘুম থেকে উঠেই নামরুং-এর চারপাশ দেখে মুগ্ধ হলাম! যদিও দুর্গম অঞ্চল তারপরও একটি ব্যয়বহুল কটেজ চোখে পড়লো।

পাহাড়ে অসুস্থতার ঝুঁকি যেখান থেকে শুরু

চা বিরতির পর সির্দ্ধিবাস থেকে আবার হাঁটা শুরু হলো। উপর থেকে পাহাড়ের ঢাল বেয়ে নিচে নেমে এলাম একদম বুড়িগন্ধকীর পাড়ে।