ঢাকা, মঙ্গলবার, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২১ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধ রক্ষার চেষ্টায় বিএনপির নেতা-কর্মীরা

ইয়াছিন মোহাম্মদ সিথুন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৭-১৭ ৪:১২:২৭ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৭-১৭ ৪:২০:৫৩ পিএম

নীলফামারী প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডিমলা উপজেলা বিএনপির নেতা-কর্মীরা স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধ রক্ষায় কাজ করেছেন। সঙ্গে ছিলেন ছাত্রদল, যুবদল, কৃষকদল ও স্বেচ্ছাসেবকদলের নেতা-কর্মীরা।

রোববার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত ডিমলা উপজেলার টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের চরখড়িবাড়িতে স্বেচ্ছাশ্রমে ২০০০ মিটার বালুর বাঁধ রক্ষায় নানান কাজে অংশ নেন তারা।

দলীয় সূত্র জানান, সাড়ে আট হাজার প্লাস্টিকের বস্তা নিয়ে সেখানে পৌঁছান নেতা-কর্মীরা। কেউ বস্তায় বালু ভরেন, কেউ বাঁধের কিনারে বাঁশের পাইলিং করে স্তূপ তৈরি করে দেন, কেউ বালু উত্তোলন আর কেউ সুতলি দিয়ে বাঁধার কাজ করেন।

স্বেচ্ছাশ্রমের বাঁধ রক্ষার কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দেন ডিমলা উপজেলা বিএনপির সভাপতি অধ্যাপক রইসুল আলম চৌধুরী। কর্মসূচিতে অংশ নেন উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, ছাত্রদলের সভাপতি স্বপনুজ্জামান স্বপন, যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আতিকুর রহমান ও সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল হাকিম, কৃষকদলের সহ-সভাপতি মাসুদুজ্জামান মাসুদ প্রমুখ।

উপজেলা বিএনপির সভাপতি অধ্যাপক রইসুল আলম চৌধুরী জানান, টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের বালুর বাঁধটি রক্ষা করছে দুই গ্রামের ২০ হাজার মানুষকে। তিস্তা নদীর পানির প্রবাহে যাতে বাঁধটির ক্ষতি না হয়, সেজন্য স্থানীয়দের সঙ্গে তারাও দলগতভাবে বাঁধ রক্ষার কর্মসূচিতে যোগ দিয়েছেন। যাতে করে রক্ষা পায় এলাকার মানুষ। 

তিনি জানান, স্বেচ্ছাশ্রমের কর্মসূচিতে দলের শতাধিক নেতা-কর্মী অংশ নেন। তিন দফায় তিস্তা নদীর পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের চরখড়িবাড়ি ও পূর্বখড়িবাড়ি গ্রামের উপর দিয়ে নির্মিত বালুর বাঁধটি হুমকির মধ্যে পড়েছে।

বাঁধটি যাতে রক্ষা করা যায়, সেজন্য সংসদ সদস্য, জেলা পরিষদ, উপজেলা পরিষদ, ইউনিয়ন পরিষদ, আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগসহ অনেকে স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করে সেটি রক্ষার চেষ্টা করছেন।



রাইজিংবিডি/নীলফামারী/১৭ জুলাই ২০১৭/ইয়াছিন মোহাম্মদ সিথুন/বকুল

Walton
 
   
Marcel