ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২৩ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:
তিব্বতের স্বাধীনতার দাবি ত্যাগ করলেন দালাই লামা        সর্বত্র বাংলা ভাষার প্রচলনে হচ্ছে ‘ভাষানীতি’        ‘রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন মানবতাবিরোধী অপরাধ’        কেরানীগঞ্জে ৩০০ মেগাওয়াটের বিদ্যুৎকেন্দ্র করবে যুক্তরাষ্ট্র        ‘গণতন্ত্র অব্যাহত রাখতে সেনাবাহিনী অবদান রাখবে’        মির্জা ফখরুলের দুই মামলা হাইকোর্টে স্থগিত        রোহিঙ্গা ফেরতে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর        ২ কোটি টাকার বেশি থাকলে দিতে হবে সারচার্জ        মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের        মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক চায় চীন       

‘ডাকাতিয়া নদী রক্ষায় দখলদার উচ্ছেদ করতে হবে’

জিএম শাহীন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৭-১৭ ৪:৫০:০৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৭-১৭ ৪:৫০:০৩ পিএম

চাঁদপুর প্রতিনিধি : ডাকাতিয়া নদী রক্ষায় বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহণ কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) দখলদারদের তালিকা তৈরি করে জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে উচ্ছেদের ব্যবস্থা করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান মো. আতাহারুল ইসলাম।

তিনি বলেছেন, চাঁদপুরের মেঘনা নদীর মোহনা থেকে শুরু হওয়া ডাকাতিয়া নদীর বিভিন্ন অংশ অবৈধ দখলে রয়েছে। নদীর দুই পাড় দখল এবং নাব্যতা কমে যাওয়ার কারণে নৌযান চলাচল করতে পারে না। গত এক মাস থেকে ইচলী লঞ্চঘাটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ রয়েছে।

সোমবার দুপুর ১২টার দিকে চাঁদপুর জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে চাঁদপুর জেলা নদী রক্ষা কমিটির সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মো. আতাহারুল ইসলাম বলেন, ১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ডাকাতিয়া নদী খনন কাজ শুরু হয়েছিল। কী কারণে বন্ধ হয়েছে, তা জেনে বিষয়টি নৌ-মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ করবেন। মেঘনা নদী, ডাকাতিয়া নদীতে চাঁদপুর পৌরসভার কী পরিমাণ বর্জ্য অপসারণ হয়, তা নির্ধারণ করে জানানোর জন্য জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরকে নির্দেশ দেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘ইলিশের বাড়ী চাঁদপুর’ ব্র্যান্ডিং হয়েছে, সেহেতু এ জেলার নদী রক্ষা করতে হবে। কোনোভাবেই নদী ধ্বংস করা যাবে না। আগ থেকেই পরিকল্পিত ব্যবস্থা নিতে হবে। কারণ নদী ক্ষতির সম্মুখীন হলে পুনরায় তা রক্ষা করা কষ্টকর হয়ে পড়ে।

জেলা প্রশাসক মো. আব্দুস সবুর মণ্ডলের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের সার্বক্ষণিক সদস্য মো. আলাউদ্দিন। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. মাসুদ হোসেনের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন পরিবেশবাদী সংগঠন বাপার কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক মো. শরীফ জামিল।

চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনা, ডাকাতিয়া, ধনাগোদা নদীর অবস্থা তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মঞ্জুর আলম, মতলব দক্ষিণ উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক সিরাজুল মোস্তাফা তালুকদার, মতলব দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শহীদুল ইসলাম ও চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি জি এম শাহীন।



রাইজিংবিডি/চাঁদপুর/১৭ জুলাই ২০১৭/জিএম শাহীন/বকুল

Walton
 
   
Marcel