ঢাকা, শুক্রবার, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২৪ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

টাকা লুটের জন্য দাদাকে হত্যা

ইয়াছিন মোহাম্মদ সিথুন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৯-১২ ১০:১৭:২০ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৯-১২ ১০:১৭:২০ পিএম

নীলফামারী প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডোমার উপজেলার বাগডোকরা মাস্টারপাড়া গ্রামের অতুল চন্দ্র রায়কে (৬৫) হত্যা করে টাকা লুটের মামলায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ নিহতের নাতিসহ তিন কিশোরকে গ্রেপ্তার করেছে।

মঙ্গলবার সকালে তাদের আটক করে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি রেকর্ডের জন্য আদালাতে পাঠানো হয়েছে।  

গ্রেপ্তার হওয়া তিন কিশোর হলো- নিহতের নাতি (মেয়ের ছেলে) একই গ্রামের প্রেমানন্দ রায়ের ছেলে সুমন চন্দ্র রায় (১৬), তার বন্ধু কাউয়াতলী গ্রামের সকাল চন্দ্র রায়ের ছেলে প্রকাশ চন্দ্র রায় (১৭) ও রফিকুল ইসলামের ছেলে মো. নিশান (১৭)। তারা তিনজনই ডোমার বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ শ্রেণীর ছাত্র।

গত বৃহস্পতিবার বিকেলে নিজ বাড়িতে হত্যার শিকার হন অতুল চন্দ্র রায়। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী দেবমায়া রাণী রায় (৫৫) বাদী হয়ে ডোমার থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ জানায়, অতুল চন্দ্র রায়ের কাছে টাকা ছিল সেটি জানত নাতি সুমন। এ টাকা নেওয়ার জন্য দুই বন্ধুর সঙ্গে পরামর্শ করে সুমন। গত ৭ সেপ্টেম্বর তিন বন্ধুর পরামর্শ অনুযায়ী অতুল চন্দ্রকে বাড়িতে একা পেয়ে দুই বন্ধুকে টাকা আনতে বাড়িতে ঢুকিয়ে দেয় সুমন। তারা ঘরে রাখা ৩২ হাজার টাকা নিয়ে আসার সময় অতুল চন্দ্র টের পেলে তাকে পিছন দিকে হাত বেঁধে নাকে-মুখে কসটেপ লাগিয়ে দেয়। এ অবস্থায় অতুল চন্দ্র শ্বাসরোধে মারা যান।

পুলিশ মঙ্গলবার ভোরে নিশানকে আটক করে তার কাছে থাকা আট হাজার টাকা উদ্ধার করে। পরে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী সুমন ও প্রকাশকে আটক করে। প্রকাশের কাছ থাকা ১৭ হাজার ৫০০ টাকা উদ্ধার করে।

ডোমার থানার উপপরিদর্শক আরমান আলী এর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তাদের কাছ থেকে লুট হওয়া ৩২ হাজার টাকার মধ্যে ২৫ হাজার ৫০০ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি রেকর্ডের জন্য তিনজনকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।



রাইজিংবিডি/নীলফামারী/১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭/ইয়াছিন মোহাম্মদ সিথুন/বকুল

Walton