ঢাকা, সোমবার, ৮ আশ্বিন ১৪২৫, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

ক্ষমতাশালী একটি মহল ষড়যন্ত্র করেছে : মিজানুর রহমান

এম এ রহমান : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৪-১৬ ৪:৫১:৪৫ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৪-১৬ ৪:৫৪:৪৬ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক : খুলনা-২ আসনের  সংসদ সদস্য মিজানুর রহমান বলেছেন, ‘একটি মহল, আমি জানি না তারা কারা, তবে তারা খুবই ক্ষমতাশালী। ষড়যন্ত্র করে তারা কাজটি করেছে। আমি কারো বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ করছি না।’

সোমবার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন।

অবৈধ সম্পদ অর্জনসহ বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বিকেল  সাড়ে ৩টা পর্যন্ত দুদক উপপরিচালক ও অনুসন্ধান কর্মকর্তা মঞ্জুর মোর্শেদ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

মিজানুর রহমান বলেন, ‘দুদক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকেছিল। যে বিষয়ে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, আমি সে বিষয়ে অবগত হলাম। আমি দুদককে বলেছি এ ধরনের বিষয়ের সঙ্গে আমার কোনো সংম্পৃক্ততা নেই। যাচাই-বাছাই করেন, অনুসন্ধান করেন। আমার বিশ্বাস কিছু মানুষ আমার জনপ্রিয়তায় ভিত হয়ে ষড়যন্ত্র করে এ ধরনের বানোয়াট মিথ্যা ও ভিত্তিহীন তথ্য দিয়ে আমাকে বিভ্রান্ত করে, আমার বিরুদ্ধে এ ধরনের ষড়যন্ত্র করেছে।’

তিনি বলেন, ‘আমি চাই যে দুদক যেন সঠিকভাবে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করুক। ডিজিটালের যুগে তথ্য গোপন করার সুযোগ নেই। সব তথ্য-উপাত্ত নিযে সঠিকভাবে তদন্ত করে দুর্নীতির বিরুদ্ধে আইনগতভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ করুক। আমি মনে করি এর প্রয়োজন আছে। ষড়যন্ত্র ও বিভ্রান্ত করে মানুষকে ভুল বুঝাচ্ছিল।’

মিজানুর রহমান বলেন, আমি জনগণের পাশে থাকার চেষ্টা করেছি। একটি বৈরি আসনকে আওয়ামী লীগের পক্ষে পজিটিভ করার জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করেছি। আজকে একটি পরিণতিতে পৌঁছেছি। সরকারের পক্ষে যে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড করেছি আমার আসনের মানুষ তা বুঝে।

নির্বাচনী বছরে এ ধরনের অভিযোগ মনোনয়নে কোনো বিরুপ পভাব পড়বে কি না-এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি অতিসত্তর সমস্ত ব্যবস্থার মাধ্যমে প্রমাণিত হবে যেকোনো দুর্নীতি বা অবৈধ সম্পদ অর্জন এ ধরনের কোনো বিষয়ের সাথে আমি কখনোই ছিলাম না এবং আগামীতে সম্পৃক্ত হবো না। আমার বিশ্বাস সঠিকভাবে তদন্ত করলে এটা বেরিয়ে আসবে। আগামী দিনের প্রজন্ম সেটাকে সুন্দরভাবে গ্রহণ করবে।

গত ৪ এপ্রিল তলব করে চিঠি পাঠানো হয়েছিল। সংসদ সদস্য মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার করে খুলনা সিটি করপোরেশন ও অন্য সরকারি অফিসের ঠিকাদারি নিজ পরিবারের সদস্যদের নামে কাজ মঞ্জুর করে নামমাত্র কাজ করে বাকি টাকা আত্মসাৎ ও মাদকের ব্যবসা করে শত কোটি টাকা মূল্যের অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ রয়েছে।

 

 

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৬ এপ্রিল ২০১৮/এম এ রহমান/সাইফ

Walton Laptop
 
     
Walton