ঢাকা, শুক্রবার, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

কামরান শিবিরে উচ্ছ্বাস, কেন্দ্রের দিকে তাকিয়ে আরিফ

নোমান : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৬-২৬ ৬:০৩:৩৭ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৬-২৬ ৬:৫৮:৪২ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট : সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন সংগঠনের মহানগর সভাপতি ও সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। গত শুক্রবার দলের নির্বাচন পরিচালনা কমিটি থেকে তার নাম ঘোষণা করা হলে দলের নেতাকর্মীদের মাঝে উচ্ছ্বাস ছড়িয়ে পড়ে।

মেয়র পদে মনোনয়ের জন্য আওয়ামী লীগের আরো চার নেতা কেন্দ্রে সাক্ষাৎকার দিয়েছিলেন। তবে কামরানের নাম ঘোষণার পর তারা ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার ঘোষণা দেন। এরপর রোববার সিলেটে শাহজালাল (রহ.) মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে নির্বাচনী প্রস্তুতি শুরু করেছেন কামরান।

প্রতীক বরাদ্দের আগে নির্বাচন কমিশনের আচরণ বিধির কারণে সরাসরি গণসংযোগে না নামলেও নেতাকর্মীদের নিয়ে মতবিনিময়, ঘরোয়া বৈঠকে যোগ দিচ্ছেন তিনি। সবমিলিয়ে নির্বাচনের আগে ফুরফুরে মেজাজে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন কামরান ও তার অনুসারীরা।

রোববার কামরানের পক্ষে আওয়ামী লীগ নেতা জমসেদ সিরাজ আঞ্চলিক নির্বাচন কার্যালয় থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। আগামী বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিকভাবে মনোনয়নপত্র দাখিল করবেন তিনি।

এদিকে, কেন্দ্রের দিকে থাকিয়ে রয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য বর্তমান মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। তিনি ছাড়াও সিলেট সিটি নির্বাচনে বিএনপির আরো ৫ নেতা দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যদের কাছে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন।

সাক্ষাৎকারে মেয়র আরিফুল হক ছাড়া বাকি ৫ প্রার্থীই কেন্দ্রীয় হাইকমান্ডের কাছে আরিফুলের ব্যাপারে নালিশ করেছেন। আরিফুলের বিরুদ্ধে তারা দলের নেতা-কর্মী এবং ২০ দলীয় জোটের সাথে দূরত্ব সৃষ্টি করা এবং দলীয় কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ না করার অভিযোগ আনেন।

গত রোববার বরিশাল ও রাজশাহীর মেয়র প্রার্থী মনোনীত করলেও সিলেটের প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেনি দলের স্থায়ী কমিটি। এ কারণে অপেক্ষায় রয়েছেন আরিফ। তিনি ছাড়াও বিএনপির মহানগর শাখার সভাপতি নাসিম হোসাইন, সেক্রেটারি বদরুজ্জামান সেলিম ও মহানগর সহ-সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকি মনোনয়ন লাভের চেষ্টা চালাচ্ছেন।

এরই মধ্যে আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকি এবং  বদরুজ্জামান সেলিম মনোনয়নপত্রও সংগ্রহ করেছেন। এছাড়া নির্বাচন কার্যালয় থেকে আরিফের পক্ষে এসিড নির্মূল কমিটি (এসনিক) সেক্রেটারি জুরেজ আব্দুল্লাহ গুলজার মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

মেয়র পদে বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী রেজাউল হাসান লোদী কয়েস লোদী জানান, আমরা হাইকমান্ডের কাছে আরিফুলের বিএনপির সাথে সৃষ্ট দূরত্ব এবং সরকারি দলের সাথে যোগসাজশের বিষয়টি তুলে ধরেছি। এখন এ বিষয়ে হাইকমান্ডই সিদ্ধান্ত দেবে।

মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম দলীয় মনোনয়ের ব্যাপারে আশাবাদী এমনটি জানিয়ে বলেন, ‘তৃণমূলের নেতাকর্মীদের নিয়ে মাঠে আছেন তিনি। দল তাকেই মনোনয়ন দেবে।’

তবে আরিফুল হকের সমর্থকদের দাবি, নির্বাচনে তিনিই বিএনপির মনোনয়ন পাবেন। দলের পক্ষ থেকে তাকে এ ব্যাপারে কিছুটা সবুজ সংকেতও দেওয়া হয়েছে। ওই সমর্থকের দাবি, দায়িত্ব পালনকালে আরিফ নগরীর ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। রাস্তা-ঘাট সম্প্রসারণ এবং ছড়া ও নালা উদ্ধারে জোরালো ভূমিকা রেখেছেন। নগরীর অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে আরিফুলের বিকল্প নেই বলে দাবি এ সমর্থকের।

সিসিকের বর্তমান মেয়র আরিফ বলেন, ‘সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় দলের মনোনয়ন আমি পাব বলে আশাবাদী।’

মেয়র পদে আরিফুল হক দলের সমর্থন পেলেও তার জন্য চ্যালেঞ্জ হচ্ছে ২০ দলীয় জোটের শরিক দুটি দল। এরই মধ্যে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন জামায়াতে ইসলামীর মহানগর আমীর এহসানুল মাহবুব জুবায়ের এবং খেলাফত মজলিসের মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক কে এম আব্দুল্লাহ আল মামুন। তারা মাঠে প্রচারণাও শুরু করে দিয়েছেন।

এছাড়া ইসলামী আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সদস্য ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন, সিপিবি-বাসদ বামজোটের আবু জাফর, স্বতন্ত্র প্রার্থী এহসানুল হক তাহের ও মুক্তাদির হোসেন তাপাদার মেয়র পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে নির্বাচনী মতবিনিময় শুরু করেছেন।

নির্বাচন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী আগামী ২৮ জুন পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমা দিতে পারবেন। ১ ও ২ জুলাই মনোনয়নপত্র বাছাই। ৯ জুলাই প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন। ৩০ জুলাই  অনুষ্ঠিত হবে ভোটগ্রহণ।



রাইজিংবিডি/সিলেট/২৬ জুন ২০১৮/নোমান/মুশফিক

Walton Laptop
 
     
Marcel
Walton AC