ঢাকা, শনিবার, ৯ চৈত্র ১৪২৫, ২৩ মার্চ ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

আখ চাষিদের পাওনা পরিশোধের দাবি

নাসির উদ্দিন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৯-০২-১৩ ৫:৪৫:৪১ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০২-১৩ ৫:৪৫:৪১ পিএম

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনের (বিএসএফআইসি) কাছে আখের মূল্য বাবদ ২৫০ কোটি টাকা বকেয়া পরিশোধের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ চিনিকল আখ চাষি ফেডারেশনের নেতারা।

বুধবার শিল্প মন্ত্রণালয়ে বাংলাদেশ চিনিকল আখ চাষি ফেডারেশনের নেতারা শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূনের সঙ্গে বৈঠককালে এ দাবি জানান।

তারা বলেন, লাখ লাখ আখ চাষি রাষ্ট্রায়ত্ত ১৫টি চিনিকলে তাদের উৎপাদিত আখ সরবরাহ করেও মূল্য পাচ্ছে না। এর ফলে আখ চাষে তারা উৎসাহ হারিয়ে ফেলছে। এটি অব্যাহত থাকলে আগামী মাড়াই মওসুমে চিনিকলগুলোতে আখ পাওয়া যাবে না।

বৈঠকে ফেডারেশনের সভাপতি মো. মজাহারুল হক প্রধান, জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি মো. ফরিদুল হক খান দুলাল, সাধারণ সম্পাদক মো. শাহজাহান আলী বাদশা, সহ-সভাপতি মো. মোসলেম উদ্দিন ও মো. জিন্নাত আলী প্রধান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান আতু, সহ-সাধারণ সম্পাদক মো. ওসমান গণি মোল্যা ও সিরাজুল ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ মো. ইয়াসিন আলী এবং শিল্প মন্ত্রণালয়ের রুটিন দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব বেগম পরাগ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে ফেডারেশনের নেতারা চিনি শিল্পের স্বার্থ রক্ষায় ‘র’ সুগার আমদানি শুল্ক বাড়ানোর দাবি জানিয়ে বলেন, ‘র’ সুগার আমদানির ক্ষেত্রে রিফাইনারি মালিকরা পরিশোধিত চিনির ৬০ শতাংশ রপ্তানির নির্দেশনা থাকলেও তা মানা হচ্ছে না। আমদানিকৃত কাঁচামাল থেকে পরিশোধিত চিনির শতভাগ দেশেই বাজারজাতের ফলে রাষ্ট্রায়ত্ত চিনিকলগুলো উৎপাদিত চিনির উপযুক্ত মূল্য পাচ্ছে না।

এ সময় তারা চিনি শিল্পের বর্তমান অবস্থার উন্নয়নে আমদানিকৃত চিনি ও কাঁচামালের শুল্ক যৌক্তিক করার তাগিদ দেওয়াসহ একই সাথে এ শিল্পের বিরাজমান সমস্যা চিহ্নিত করে এগুলোর কার্যকর সমাধানে ফেডারেশন, বিএসএফআইসি এবং শিল্প মন্ত্রণালয়ের যৌথ অংশগ্রহণে একটি সভা আয়োজনের পরামর্শ দেন।

বৈঠকে শিল্পমন্ত্রী বলেন, কৃষিভিত্তিক শিল্প হিসেবে বর্তমান সরকার চিনি শিল্পের স্বার্থ রক্ষায় প্রয়োজনীয় নীতি সহায়তা দেবে। এ শিল্প খাতে বিরাজমান প্রশাসনিক সমস্যাগুলো দ্রুত সমাধান করা হবে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের সাথে আলোচনা করে আখ চাষিদের বকেয়া পাওনা পরিশোধে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থার সাথে আলোচনা করে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে চিনির বাজারদর নিয়ন্ত্রণের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার বলেন, চিনি শিল্পের বিরাজমান সমস্যার সামাধানে সরকারের নীতিমালা কার্যকর করা হবে। প্রয়োজনে রাষ্ট্রায়ত্ত কারখানার অব্যবহৃত জমিতে আখ চাষ করা হবে। একই সাথে চিনিকলের সকল জমি আখ চাষের আওতায় নিয়ে আসা হবে। পাশাপাশি ট্রেড ইউনিয়ন নেতাদেরকেও কারখানায় কাজ করতে হবে। কাজ না করে বেতন নেওয়ার অপসংস্কৃতি মেনে নেওয়া হবে না।  



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯/নাসির/রফিক

Walton Laptop
 
     
Walton AC