ঢাকা, বুধবার, ৭ ভাদ্র ১৪২৫, ২২ আগস্ট ২০১৮
Risingbd
শোকাবহ অগাস্ট
সর্বশেষ:

অবক্ষয় ঠেকাতে মানবিকতার চর্চা অপরিহার্য

আলী নওশের : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৭-১১-০৪ ৩:১৫:৪৮ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০২-১৫ ১২:৫৭:০৯ পিএম

দিন দিন প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে উঠছে আমাদের সমাজ। সামাজিক অস্থিরতা ও মূল্যবোধের অবক্ষয়ে সংকট ক্রমশ বাড়ছে। বিশেষ করে পারিবারিক জীবনে এ অবক্ষয়ের পরিণতি হচ্ছে ভয়াবহ। সম্প্রতি পর পর দুটি জোড়া খুনের ঘটনা তার সাক্ষ্য বহন করে। রাজধানীর কাকরাইলে বুধবার সন্ধ্যায় নিজ বাসায় খুন হয় মা ও ছেলে। এ ঘটনার ১২ ঘণ্টার মধ্যে বাড্ডায় একটি বাড়িতে নিহত হয়েছে বাবা-মেয়ে। এর আগে নরসিংদীতে গত সপ্তাহে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে।

রাজধানীর দুটি হত্যাকাণ্ডের জন্য প্রাথমিকভাবে পারিবারিক কলহ-বিরোধ থাকার বিষয়ে সন্দেহ করা হচ্ছে। কাকরাইলে মা-ছেলে খুনের ঘটনায় পারিবারিক দ্বন্দ্বকে সন্দেহ করছে পুলিশ। বাড়ির মালিক আবদুল করিম তিনটি বিয়ে করেছেন। এর মধ্যে নিহত গৃহবধূ শামসুন্নাহার তার প্রথম স্ত্রী। আর দ্বিতীয় স্ত্রীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয়ে গেছে। হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তৃতীয় স্ত্রীকে আটক করা হয়েছে। আর বাড্ডায় বাবা-মেয়ে হত্যাকাণ্ডের পেছনে স্ত্রীর পরকীয়া জড়িত বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। আটক করা হয়েছে স্ত্রী আর্জিনাসহ তিনজনকে।

বস্তুতঃ আমাদের সমাজ জীবনে মানবিক বৈশিষ্ট্যগুলো যেন হারিয়ে যাচ্ছে। পারিবারিক বন্ধন ক্রমশঃ শিথিল হচ্ছে। মানবিকতার আবেদন হ্রাসের পাশাপাশি আমাদের পরস্পরের প্রতি মমত্ববোধ দুর্বল হয়ে পড়ছে। আত্মকেন্দ্রিক হয়ে উঠছি আমরা। পারিবারিক ও সামাজিক বন্ধন এবং পরস্পরের প্রতি নির্ভরশীলতার বিষয়টি ক্রমেই লোপ পাচ্ছে। বিত্তবান কিংবা ধনাঢ্য পরিবার থেকে শুরু করে মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবারেও এ অবক্ষয় লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তাই সামাজিক ও পারিবারিক জীবনে এই যে অবক্ষয়, তা ঠেকাতে মূল্যবোধের লালন ও মানবিকতার চর্চা অপরিহার্য।

আরকটি উদ্বেগের বিষয় হলো সমাজে সহিংসতার শিকার বেশি হচ্ছে শিশু-কিশোররা। তুচ্ছ ঘটনায় তাদেরকে নির্মম নির্যাতন করা হচ্ছে, এমনকি মেরে ফেলা হচ্ছে। সর্বশেষ ঘটনা ঘটেছে লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার বামনীতে। পত্রিকায় প্রকাশিত খবর থেকে জানা যায়, বামনীর ভুঁইয়ারহাট এলাকায় ল্যাপটপ থেকে একটি গেমস ফোল্ডার মুছে ফেলার সন্দেহে চার বছরের শিশুকে বস্তায় ভরে নির্মমভাবে নির্যাতন করে সুপারিবাগানে ফেলে রাখা হয়। সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়। এর আগে ঢাকার চকবাজারে এক কিশোরকে চাকু মেরে হত্যা করা হয় তুচ্ছ কারণে।

দেখা যাচ্ছে এসব বর্বর-নিষ্ঠুর নির্যাতন বা হত্যাকাণ্ড যারা ঘটাচ্ছে তাদের মধ্যে বিন্দুমাত্র মানবিকতা কাজ করছে না। সমাজ থেকে সব নৈতিকতাবোধ যেন উধাও হয়ে গেছে। যেভাবে আমাদের ছেলে-মেয়ে ও শিশুরা পারিবারিক, সামাজিক বিরোধের শিকারে পরিণত হচ্ছে তা খুবই উদ্বেগের। এ জাতীয় সব অপরাধের কঠোর শাস্তি হওয়া উচিত।  পাশাপাশি কেন এই অবক্ষয় দানা বেঁধে উঠছে, সে বিষয়েও গবেষণা করে কারণ উদ্ঘাটন প্রয়োজন।  

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/৪ নভেম্বর ২০১৭/আলী নওশের/শাহনেওয়াজ

Walton Laptop
 
     
Walton