ঢাকা, রবিবার, ৯ বৈশাখ ১৪২৫, ২২ এপ্রিল ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:
শুভ নববর্ষ

মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা...

আলী নওশের : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৮-০৪-১৪ ১:০৫:১৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৪-১৫ ৮:১৬:৩৬ পিএম

বাংলা সনের প্রথম মাস বৈশাখ। আর প্রতিবছর পয়লা বৈশাখ থেকে সূচনা হয় নববর্ষের। বাঙালির নিজস্ব বর্ষপঞ্জিতে শুরু হয় নতুন বছরের পরিক্রমা। নতুন আলোর কিরণধারায় শুরু হয় সুন্দর আগামীর পথচলা। আজ ১৪২৫ বাংলা সনের প্রথম দিন। পূব আকাশে লাল টকটকে সূর্যের কিরণচ্ছটা ছড়িয়ে পড়ার আগেই নতুন স্বপ্নের উচ্ছ্বাস নিয়ে ঘুম ভেঙেছে প্রতিটি বাঙালির।  আনন্দঘন পরিবেশে নতুন বছরকে বরণ করে নিতে নানা আয়োজনে মেতে উঠেছে সবাই।

বাঙালির সবচেয়ে বড় অসম্প্রদায়িক ও  সার্বজনীন লোক উৎসব আজ। জরাজীর্ণ যা কিছু পুরান তাকে উড়িয়ে দিয়ে নববর্ষে নতুনের অভিষেক হয়। ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সর্বস্তরের মানুষ এক অভিন্ন হৃদয়াবেগে মিলিত হয় এ উপলক্ষে। অতীতের ভুল-ত্রুটি ও ব্যর্থতার গ্লানি ভুলে নতুন করে সুখ-শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনায় উদযাপিত হয় নববর্ষ। এই উৎসবের মধ্য দিয়ে বাঙালি তার আপন সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের আলোকে জাতিসত্তার পরিচয়কে নতুন তাৎপর্যে উপলব্ধি করে গৌরব বোধ করে। এই গৌরব ও চেতনাই বাঙালিকে প্রেরণা জুগিয়েছে আপন অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে।

দেশজুড়ে আজ সুরে সুরে ধ্বনিত হচ্ছে জাতির মঙ্গলবার্তা। মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা... অগ্নিস্নানে শূচি হোক ধরা...। আর এই মঙ্গলালোকে স্নাত হতে শহর-বন্দর, গ্রামে-গঞ্জে বাঁধভাঙা জোয়ারে আজ উচ্ছসিত মানুষ । নববর্ষের প্রথম দিনটি উপলক্ষে দেশজুড়ে চলছে নানা উৎসব। এসব উৎসবে বাঙালির ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে ঊর্ধ্বে তুলে ধরার প্রয়াস থাকবে। দোকানিরা সারা বছরের হিসাব মিলিয়ে খুলবেন হালখাতা। নববর্ষ উপলক্ষে যে বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হয় তা জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সব মানুষের মিলন মেলায় পরিণত হয়।

এক সময়ে বাংলা নববর্ষের সঙ্গে জড়িয়ে ছিল বাঙালির অর্থনীতি, রাজনীতি ও সংস্কৃতির অপত্য সম্পর্ক। বাঙালির কৃষি, সভ্যতা ও কৃষকের স্বপ্ন বুনন চলত বাংলা সন ঘিরেই। বর্তমানে ব্যবহারিক জীবনে বাংলা সনের গুরুত্ব কমে বেড়ে চলেছে আনুষ্ঠানিকতার মাত্রা। তবে বাংলা নববর্ষে বাঙালি তার আত্মপরিচয়কে নতুনভাবে খুঁজে পায়।  এবার বাঙ্গালির জন্য আনন্দের বিষয়, বাংলা বর্ষবরণের ‘মঙ্গল শোভাযাত্রা’কে মানবতার বিমূর্ত সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতিবিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কো।  মূলত এটি হাজার বছরের সমৃদ্ধ বাঙালি সংস্কৃতিরই স্বীকৃতি।

পুরাতন বছর শেষে যথা নিয়মে আসে নতুন বছর। বাঙালির জীবনে বছরে একবারই আসে এমন দিন, যা একান্তভাবে আমাদের জাতিসত্তার অংশ। সময়ের ধারাবাহিকতায় পুরাতন বছরের ভুল-ত্রুটি, ব্যর্থতা ও গ্লানি ভুলে সবাই নতুন বছরকে বরণ করে নেয় ভবিষ্যত সুখ-শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনায়। নতুন বছর দেশবাসীর জন্য শান্তি ও সমৃদ্ধির বার্তা বয়ে আনবে, এটিই প্রত্যাশা। নববর্ষ সবার জন্য হোক শান্তিময়। নববর্ষে  রাইজিংবিডির অগণিত পাঠক, বিজ্ঞাপনদাতা ও শুভানুধ্যায়ীদের জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা। শুভ নববর্ষ ১৪২৫।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৪ এপ্রিল ২০১৮/আলী নওশের

Walton Laptop
 
   
Walton AC