ঢাকা, বুধবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২২ মে ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

‘ক্যারিয়ারের স্বার্থে বাচ্চাকে ব্যবহার করো না’

রাহাত সাইফুল : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৮-০১-২৪ ৩:৩৪:৩০ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০১-২৫ ৮:০৯:৪০ এএম
Walton AC

রাহাত সাইফুল : জনপ্রিয় তারকা দম্পতি শাকিব খান-অপু বিশ্বাস। গত একবছর ধরে এই দম্পতিকে ঘিরে আলোচনা যেন থামছেই না। কখনো বিয়ের কথা ফাঁস করে দেয়া, আবার সন্তানকে রেখে কলকতা যাওয়া নিয়ে তাদের দ্বন্দ্ব তৈরি হয়। এসবের মধ্যেই অপুকে ডিভোর্স লেটার পাঠান শাকিব। এরপরও থামেনি তাদের দ্বন্দ্ব। তাদের কাদা ছোড়াছুড়ি চলছেই।

ডিভোর্স লেটার নিয়ে আলোচনার রেশ কাটতে না কাটতেই অপু বিশ্বাসের বিরুদ্ধে পুত্র আব্রাহাম খান জয়কে দেখতে না দেয়ার অভিযোগ তুলেছেন শাকিব। তবে এটি ডাহা মিথ্যা বলে উড়িয়ে দিয়েছেন অপু বিশ্বাস। এ বিষয় জানতে রাইজিংবিডির এই প্রতিবেদক কথা বলেন অপু বিশ্বাসের সঙ্গে। রাইজিংবিডির পাঠকদের জন্য কথোপকথনের চুম্বক অংশ তুলে ধরা হলো-

রাইজিংবিডি : শাকিব খান তার পুত্র আব্রাহাম খান জয়কে দেখতে চেয়েছেন। কিন্তু আপনি শাকিবের ফোন কল রিসিভ করেননি এবং জয়ের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ করে দেননি। একটি জাতীয় দৈনিকে এমনটাই দাবি করেছেন শাকিব খান। এ বিষয়ে আপনার বক্তব্য জানতে চাই।

অপু বিশ্বাস : দেখুন বার বার আমার পারিবারিক বিষয়গুলো সংবাদমাধ্যমে নিয়ে আসতে চাচ্ছি না। ওই নিউজের শিরোনাম ছিল ‘বাচ্চাটাকেও দেখতে দিল না অপু’। এমন শিরোনাম দেখে খুব কষ্ট লেগেছে। শাকিবের এ ধরনের মন্তব্যে আমি বিস্মিত। কারণ শাকিব নিজে ফোন করেনি, এমনকি কাউকে দিয়েও ফোন করায়নি। আদৌ শাকিব বাচ্চাকে দেখতে চেয়েছে কিনা তাও জানি না। আমি শাকিবের কাছে হাতজোড় করে অনুরোধ করছি- প্লিজ শাকিব তুমি অনেক ভালো কাজ করছ। জয় ও আমি তোমার জন্য অনেক দোয়া করি, আরো ভালো কাজ করো। কিন্তু জয় একটা অবুঝ শিশু, একটা মাসুম বাচ্চা, সে বলতে জানে না, সে বুঝতে শিখেনি আদৌ তুমি তার খোঁজ করেছ কি করোনি, সেটার প্রতিবাদও সে করতে জানে না। তাই একজন বাবাকে বলবো, প্লিজ মিথ্যাচার বন্ধ করো। তোমার ক্যারিয়ারের স্বার্থে বাচ্চাটাকে আর ব্যবহার করো না। শাকিব আমাকে ফোন করেনি, কাউকে দিয়ে ফোন করায়নি, আমাকে এসএমএসও করেনি। আর আমি কেন বাচ্চাকে দেখতে দিব না?

রাইজিংবিডি : আপনি নিশ্চিত ভাবেই বলছেন যে, তিনি আপনাকে ফোন করেননি?

অপু বিশ্বাস : আমি শতভাগ নিশ্চিত হয়েই বলছি, আমার ফোনে তার বা তাদের কারো ফোন কল বা এসএমএস আসেনি।

রাইজিংবিডি : এর আগে শাকিব খান তার বাচ্চাকে কীভাবে দেখতে আসতেন?

অপু বিশ্বাস : মনির নামে একজন শাকিবের সঙ্গে থাকে। তার মাধ্যমে বাচ্চাকে নিয়ে যেতেন। গত ডিসেম্বরের ৪ তারিখে শাকিব ডিভোর্সের চিঠি পাঠানোর পর থেকে মনির আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। এমনকি কেউই শাকিবের পক্ষ থেকে আর যোগাযোগ করেনি। এরপরে শাকিবের বন্ধু ইকবাল ভাইয়ের সঙ্গে আমার কথা হয়েছিল। তখন আমি তাকে  বলেছিলাম, মনির ভাইকে তো আমি ফোনে পাচ্ছি না। তখন তিনি বলেছেন, আমার কারণে নাকি নম্বরটা পরিবর্তন করে নতুন নম্বর নিয়েছেন। আমি আর একটা কথা বলতে চাচ্ছি, আমাদের ঝগড়ার মধ্যে বাচ্চাটাকে নিয়ে আসতে চাই না। আরো একটা কথা না বললেই নয় যে, বেশ কিছুদিন আগে ফেসবুকে শাকিব আর জয়ের দুটো ছবি ভাইরাল হয়েছে। তখন ক্যাপশনে লেখা হয়েছিল, ‘নোলক ছবির শুটিংয়ের মাঝে দুই-তিন দিনের জন্য শাকিব ঢাকায় এসেছিল। এসে জয়কে দেখে গেছেন।’ সত্যি কথা হচ্ছে, শাকিব কিন্তু তখন ঢাকায় আসেনি। আর যে ছবিটা আপনারা দেখেছেন, ওই ছবিটা কোরবানি ঈদের সময়কার। তখন আমার বাচ্চা ঠিক ভাবে বসতেও শেখেনি। এখন আমার বাচ্চা অনেকটাই বড় হয়েছে। বাচ্চার ঠান্ডা লেগেছে, অসুস্থ। কিন্তু একবারের জন্য তার দাদা-দাদি কেউ তার খবর নেয়নি।

আমি আবারো বলছি- প্লিজ শাকিব তোমার ক্যারিয়ারের স্বার্থে বাচ্চাকে আর ব্যবহার করো না। একজন বাবা হয়ে সন্তানের সঙ্গে দেখা করার জন্য একবারও তোমার মন কাঁদেনি। জয়ের খোঁজখবর রাখনি।

রাইজিংবিডি : শাকিব খান সর্বশেষ কবে জয়ের সঙ্গে দেখা করেছেন?

অপু বিশ্বাস : আমাকে ডিভোর্স লেটার পাঠানোর তিনদিন আগে। ওর বাসায় জয় তিনদিন ছিল। আমিই রেখেছিলাম। যাতে বাচ্চার প্রতি বাবার ভালোবাসা খুব বেশি হয়। আমি তিনদিনের জন্য গ্রামের বাড়ি গিয়েছিলাম। তখন শাকিবের কাছে রেখে গিয়েছিলাম।

একজন স্বামী হিসেবে আমাকে নিয়ে তার যা যা বলতে ইচ্ছে করবে, আমি কোথাও বাধা দিব না। প্রতিবাদও করব না। কিন্তু বাচ্চাকে জড়িয়ে যেন মিথ্যা না ছড়ায়। শাকিব বলেছে, বাচ্চার জন্য বিদেশ থেকে ড্রেস নিয়ে এসেছে। কিন্তু বাচ্চা খাবে কী, সেটা কিন্তু সে দেখছে না।

রাইজিংবিডি : আমরা শুনেছিলাম তিনি বাচ্চা ও আপনার জন্য টাকা পাঠান। সেটা কি এখন দিচ্ছেন না?

অপু বিশ্বাস : ডিসেম্বরে ডিভোর্স লেটার পাঠানোর আগ পর্যন্ত এক লাখ টাকা করে পাঠাত। কিন্তু এরপর থেকে তার কাছে হয়তো মনে হয়েছে, লেটার পাঠানোর পর আর দেয়া লাগবে না। তাই হয়তো দিচ্ছে না।

 

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৪ জানুয়ারি ২০১৮/রাহাত/ফিরোজ

Walton Laptop
     
Walton AC
Marcel Fridge