ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

সাফারি পার্কে বাচ্চা দিয়েছে ‘মুক্তিরানী’

হাসমত আলী : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৮-২৮ ১:২৪:১৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-১১-২৪ ৮:৪৬:০৫ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর : গাজীপুরস্থ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে শেল বাহাদুর-মুক্তিরানী হাতির ঘরে একটি বাচ্চার জন্ম হয়েছে।

রোববার রাতে হাতির শাবকটির জন্ম হয়। পার্ক কর্তৃপক্ষ বলছে, ক্যাভটিবে (আবদ্ধ পরিবেশে) হাতির বাচ্চা প্রসব এটাই বাংলাদেশে প্রথম। নতুন জন্ম নেওয়া শাবকটি নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে হাতির সংখ্যা এখন সাতটি।

সাফারি পার্কের ওয়াইল্ড লাইফ সুপারভাইজার মো. আনিসুর রহমান জানান, ২০১৩ সালে দেশের বিভিন্নস্থান থেকে ছয়টি বন্যহাতি সংগ্রহ করে এ সাফারি পার্কে আনা হয়। এর মধ্যে দুইটি পুরুষ ও চারটি মাদি। পুরুষ হাতি দুটির নাম হলো শেল বাহাদুর এবং আমির বাহাদুর আর মাদি হাতিদের নাম হলো মুক্তিরানী, পূজারানী, কুসুমমালা ও বেলকুড়ি।

পার্কে আনার প্রায় চার বছর পর মুক্তিরানী রোববার রাত ১০টা ৫০মিনিটের দিকে একটি বাচ্চার জন্ম দিয়েছে। মা হাতি ও শাবক উভয়ই সুস্থ আছে।
 


তিনি জানান, হাতি প্রাপ্ত বয়স্ক হয় ১৮ থেকে ২৫ বছর বয়সে। তাদের গর্ভকালীন সময় সাধারণত ১৮ থেকে ২২ মাস। প্রায় ২২ মাসে এসে মুক্তিরানী বাচ্চা প্রসব করেছে। তবে মুক্তিরানীর বয়স হবে ৪০ বছরের উপরে। জন্ম নেওয়ার সময় বচ্চার ওজন সাধারণত ৮০ থেকে ১০০ কেজির মতো হয়। জন্মের পর বাচ্চা নিয়ে মুক্তরানী পার্কের জঙ্গলে আলাদা স্থানে অবস্থান নিয়েছে। যার কারণে বাচ্চাটির ওজন এবং মাদি না পুরুষ তা নির্ধারণ করা সম্ভব হয়নি। প্রসবের দেড় ঘণ্টা পরই হাতির শাবকটি দাঁড়িয়েছে এবং মায়ের সঙ্গে অবস্থান করছে।

ধারণা করা হচ্ছে, এ বাচ্চার ওজনও ৮০ থেকে ১০০ কেজির মধ্যে হবে। এখন মা ও শাবকটিকে ক্লোজ অভজারভেশনে (নিবিড় পর্যবেক্ষণে) রাখা হয়েছে। খেতে দেওয়া হচ্ছে কলাগাছ, আখ, চাল এবং দুধ মিশ্রিত করে ঝাউ, কলা, ছোলা জাতীয়  খাবার।

তিনি আরো জানান, জন্মের পর শাবক সাড়ে তিন থেকে চার বছর মায়ের দুধ পান করে। বাচ্চা লালন পালনের জন্য মা হাতি প্রায় পাঁচ বছর গর্ভধারণ করে না। এ ছাড়া আবদ্ধ পরিবেশে হাতি সাধারণ বাঁচে ৮০ থেকে ১০০ বছর। আর ন্যাচারে বাঁচে ৬০ থেকে ৭০ বছর। অর্থাৎ আবদ্ধ পরিবেশে হাতি বেশিদিন বাঁচে।

 

 

রাইজিংবিডি/ গাজীপুর / ২৮ আগস্ট ২০১৭/ হাসমত আলী/রুহুল

Walton
 
   
Marcel