ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৪ কার্তিক ১৪২৪, ১৯ অক্টোবর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

কথা বলবে উল্কি!

আহমেদ শরীফ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৫-২৬ ৫:২৩:৫০ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৫-২৭ ১২:০৩:৪৯ পিএম

আহমেদ শরীফ : শরীরে নানা ধরণের ট্যাটু বা উল্কি এঁকে নিজেকে আরো আকর্ষণীয় করার চেষ্টা করে যাচ্ছে পশ্চিমা বিশ্বের তরুণ-তরুণীরা। বিশ্বজুড়ে কমবেশি সব দেশেই এটি দেখা যায়। অনেক দেশে তো তরুণদের উল্কি আঁকাটা প্রায় হুজুগের মতো। সেই হুজুগে যুক্ত হয়েছে নতুন চমক! বলা হচ্ছে উল্কি এঁকে স্মার্টফোনের অ্যাপের মাধ্যমে আপনি সেই উল্কির ভাষাও শুনতে পারবেন! অর্থাৎ উল্কিতে আপনার কোনো পছন্দের গান, কোনো প্রেরণাদায়ক বাণী, পছন্দের মানুষের কণ্ঠস্বর- এসব শুনতে পারবেন।

সত্যি বলতে এ যেন উল্কি নয় ভেল্কি। যে কোনো জায়গায়, যে কোনো সময়, এই চমকে দেওয়া উল্কি উপভোগ করতে পারবেন আপনি। লস এঞ্জেলসভিত্তিক ট্যাটু আর্টিস্ট ন্যাট সিগার্ড তার এই অভিনব আইডিয়া নিয়ে এসেছেন। শরীরে আঁকা উল্কি থেকে কথা বা গান ভেসে আসছে, তা দেখতে ও শুনতে বেশ আনন্দদায়ক, বিষয়টি উপলব্ধি করে প্রথমে নিজের গার্লফ্রেন্ডের কণ্ঠস্বর ট্যাটুতে জুড়ে দেন সিগার্ড। এরপর ফেসবুকে সেই ভিডিও আপলোড করার পর ভাইরাল হয়ে যায়। সবাই তাকে অজস্র প্রশ্ন করা শুরু করেন। এমনকি নিজের ট্যাটু কীভাবে এমন প্রাণবন্ত করা যায়, তা জানতে একের পর এক অনুরোধ আসতে থাকে তার কাছে। আর এ কারণেই পরবর্তীতে ‘স্কিন মোশন’ নামের এক কোম্পানি গড়ে তোলেন তিনি। সেখান থেকেই করা হচ্ছে অভিনব এই আয়োজন।

এ উল্কিগুলো বিশেষ ধরণের, কালি ও প্রযুক্তির অদ্ভুত মিশেলে তৈরি করা হচ্ছে। মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে শরীরে আঁকা উল্কিতে এক মিনিট সময়ের যে কোনো ধরণের সাউন্ড জুড়ে দেওয়া হবে। কাজটি করার প্রক্রিয়া হলো- প্রথমে একটি প্যাটার্ন খদ্দেরের চামড়ায় এঁকে দেবেন একজন দক্ষ আর্টিস্ট। এর ২৪ ঘণ্টা পর কোম্পানির পক্ষ থেকে একটি প্রলেপ জুড়ে দেওয়া হবে। পরে ঐ খদ্দের তার স্মার্টফোনে বিশেষভাবে তৈরি অ্যাপের মাধ্যমে ঐ উল্কি যে কাউকে দেখাতে ও শোনাতে পারবেন। দেখানোর কাজটি না হয় করবে ভিডিও প্লেয়ার। কিন্তু শোনা? এখানে কাজ করবে অডিও ডিভাইস। সেখানে আগে থেকেই রেকর্ড করা থাকবে গ্রাহকের পছন্দ মতো উল্কির সাথে যায় এমন অডিও। স্কিন মোশন নিজেদের গুছিয়ে নিচ্ছে এই পরিকল্পনা অনুযায়ী। এবার দেখা যাক পরিকল্পনা কতটুকু সফল হয়।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৬ মে ২০১৭/তারা

Walton
 
   
Marcel