ঢাকা, সোমবার, ৬ কার্তিক ১৪২৫, ২২ অক্টোবর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

শহরের বাসিন্দা হতে অপারেশন

শাহিদুল ইসলাম : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৯-২১ ৮:১৫:৩০ এএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৯-২১ ১০:০৫:০৫ এএম

শাহিদুল ইসলাম : যে কোনো সমাজে বসবাস করতে গেলে সবাইকে কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম মানতে হয়। তবে চিলির ভিলা লাস এস্ট্রোস শহরের বাসিন্দা হতে গেলে যে নিয়ম মানতে হয় তা রীতিমতো বিস্ময়কর।

ছোট্ট এই শহরের বাসিন্দা হতে হলে প্রত্যেক নাগরিকের অ্যাপেন্ডিক্স অপারেশন বাধ্যতামূলক। কিন্তু কেন এই অদ্ভুত নিয়ম? এই প্রশ্নের উত্তর পেতে হলে আগে আপনাকে শহরটির ভৌগলিক বিবরণ জানতে হবে।

চিলির এন্টার্ক্টিকা মহাদেশ অংশে শহরটির অবস্থান। চিলির মূল ভূখণ্ড থেকে হাজার কিলোমিটার দূরের এই শহরের আবহাওয়া চরমভাবাপন্ন। বছরের অধিকাংশ সময় তাপমাত্রা থাকে শূন্য ডিগ্রির নিচে। কয়েকদিন পরপর মাত্র কয়েক মিনিটের জন্য এখানে সূর্যের আলো দেখা যায়। ফলে এই বিরূপ আবহাওয়ায় টিকে থাকার জন্য এর বাসিন্দাদের বিশেষ শারীরিক সক্ষমতার অধিকারী হতে হয়।



যেহেতু ঠান্ডায় মানুষ সবচেয়ে বেশি অ্যাপেন্ডিক্স জটিলতায় ভোগে এবং নিকটস্থ হাসপাতালের দূরত্ব প্রায় এক হাজার কিলোমিটার, সেহেতু এখানে বসবাস করার ইচ্ছা পোষণকারী যে কোনো ব্যক্তিকে অ্যাপেন্ডিক্স অপারেশন করিয়ে নিতে হয়। শিশুদের বেলায়ও এই নিয়ম প্রযোজ্য। সার্জিও কিউবিলাস শহরটির স্থায়ী বাসিন্দা। তিনি সংবাদমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘জরুরি অবস্থায়ও আমাদের নিকটবর্তী হাসপাতালে পৌঁছাতে দুই থেকে তিন দিন সময় লাগে। তাই আমরা প্রত্যেক বাসিন্দাকে এই অপারেশনের ব্যাপারে সতর্ক হতে বলি। এমনকি অপারেশন জটিলতার কারণে এই শহরে আমরা নারীদের গর্ভ ধারণেও নিরুৎসাহিত করি।’

চরমভাবাপন্ন আবহাওয়া এবং কঠিন শর্তের জন্য এই শহরের লোকসংখ্যা খুব বেশি নয়। সর্বসাকুল্যে আশি জনের মতো বাসিন্দা রয়েছে এই শহরে।




রাইজিংবিডি/ঢাকা/২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮/মারুফ

Walton Laptop
 
     
Walton