ঢাকা, সোমবার, ৩ আষাঢ় ১৪২৬, ১৭ জুন ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

নার্স ভয়ঙ্কর

মনিরুল হক ফিরোজ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৪-০৯ ৭:৫০:৫২ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৪-১০ ৮:১১:৪৯ এএম
Walton AC 10% Discount

ডেস্ক রিপোর্ট : নার্সিং মহৎ পেশা। হাসপাতালে রোগীর সেবায় নিয়োজিত থাকেন নার্স। তারা রোগীকে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী সেবা দিয়ে সুস্থ করে তুলতে সাহায্য করেন। কিন্তু এমনও কেউ কেউ আছেন যারা পেশাগত জীবনে সৎ থাকেন না। আর তখনই এই মহৎ পেশার প্রতি মানুষের মনে ভুল ধারণার সৃষ্টি হয়। কিছু নার্সের ভয়ঙ্কর কর্মকাণ্ডের কথা শোনা যায়। তারা সংবাদের শিরোনামও হন। 

তেমনি একজন ভয়ঙ্কর নার্স এলিজাবেথ মুয়াওয়া। তিনি পেশাজীবন কাটিয়েছেন আফ্রিকার জাম্বিয়ার লুসাকায় ইউনিভার্সিটি টিচিং হসপিটালে। সেখানে ১২ বছরের কর্মজীবনে স্রেফ মজা করে প্রায় ৫ হাজার নবজাতককে তিনি অদল-বদল করেছেন। হাসপাতালের প্রসূতি ওয়ার্ডে জন্মের সঙ্গে সঙ্গেই শিশুদের বদলে দিতেন তিনি। ফলে নবজাতকেরা হারিয়েছে তাদের প্রকৃত বাবা-মাকে। তিনি এতদিন পর নিজেই জানিয়েছেন- নিছক মজা করার জন্যই তার এমন কাজ করা! 

জাম্বিয়ান অবজারভারের প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এলিজাবেথ এখন ক্যানসারের সঙ্গে লড়ছেন। তিনি এখন অতীতের এই গর্হিত কাজের জন্য ভীষণ অনুতপ্ত। হাসপাতালের বেডে শুয়ে তিনি তাই নিজের পাপের কথা স্বীকার করেছেন। সৃষ্টিকর্তার কাছে করছেন ক্ষমা প্রার্থনা। এলিজাবেথ বলেন, ‘১৯৮৩ সাল থেকে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত ইউটিএইচে জন্ম নেয়া কোনো শিশুই তাদের প্রকৃত বাবা-মায়ের কোলে যায়নি। মজা করতে গিয়ে নবজাতকদের বদলে দেয়া অভ্যাস হয়ে গিয়েছিল আমার। এত দিন এ ঘটনা আমি লুকিয়ে রেখেছিলাম।’

তিনি বলেন, ‘আমি এখন ক্যানসারে আক্রান্ত। শিগগিরই আমি মারা যাব। সৃষ্টিকর্তার কাছে ক্ষমা চেয়ে আমার এ পাপের কথা স্বীকার করলাম। আমি ক্ষমা চাচ্ছি সেই সব পরিবারের কাছে, যাদের প্রতি আমি এ অন্যায় করেছি।’



রাইজিংবিডি/ঢাকা/৯ এপ্রিল ২০১৯/ফিরোজ/তারা

Walton AC
     
Walton AC
Marcel Fridge