ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ ভাদ্র ১৪২৫, ২১ আগস্ট ২০১৮
Risingbd
শোকাবহ অগাস্ট
সর্বশেষ:

‘আমি আকাশ ছুঁয়েছি’

ছাইফুল ইসলাম মাছুম : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০১-২০ ৭:৫৫:০৭ এএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০১-২০ ১১:৩৩:১৬ এএম
রাজিয়া আফরিন (সোনিয়া)

ছাইফুল ইসলাম মাছুম: ‘রাষ্ট্রপতি স্বর্ণপদক পাব- আমার স্বপ্ন ছিল। আমার দৃঢ় বিশ্বাস ছিল, এটা আমি অর্জন করতে পারব। আমার স্বপ্ন ছিল আকাশ ছোঁয়া। এখন মনে হচ্ছে, আমি সত্যি আকাশ ছুঁয়েছি।’- কথাগুলো বলছিলেন স্টামফোর্ড তৃতীয় সমাবর্তনে রাষ্ট্রপতি স্বর্ণপদক পাওয়া রাজিয়া আফরিন (সোনিয়া)।

রাজিয়া আফরিনের জন্ম বরগুনায় হলেও, বাবার চাকরির সুবাদে শৈশব থেকেই ঢাকায় বেড়ে ওঠা। বাবা আবদুল কুদ্দুস গাজি অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ অফিসার। মা খাদিজা আক্তার গৃহিণী। তিন ভাইবোনের মধ্যে রাজিয়া দ্বিতীয়। শুধু পড়াশোনায় নয়, খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক চর্চায় রয়েছে তার সমান দক্ষতা। স্কুলে দৌড় ও হাইজাম্প প্রতিযোগিতায় সে বরাবরই প্রথম হয়েছে। কুইজ ও রচনা প্রতিযোগিতায় মেধার স্বাক্ষর রেখেছে সব সময়। স্থানীয় মঞ্চ নাটকে অভিনয় করে পুরস্কৃত হয়েছেন। বিনোদনে আগ্রহ থাকলেও, পরিবার রক্ষণশীল হওয়ায় সেদিকে মনোযোগ দেননি।

রাজিয়ার শিক্ষাজীবন শুরু হয় রাজারবাগ পুলিশ লাইন স্কুল অ্যান্ড কলেজে। উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করেন মিরপুর গার্লস আইডিয়াল ল্যাবরেটরি ইনস্টিটিউট থেকে। ছোটবেলা থেকেই রাজিয়া পড়াশোনায় মনোযোগী। ক্লাসে সব সময় প্রথম হতেন। এসএসসি ও এইচএসসি দুটোতেই ফলাফল ভালো। প্রথম দিকে চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন দেখলেও, পরে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে ব্যাংকার হওয়ার স্বপ্ন দেখেন। যে কারণে বিবিএ নিয়ে পড়েন। এমবিএতে তার ফল সিজিপিএ-৪ এবং স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস ফ্যাকাল্টিতে তিনি সর্বোচ্চ নাম্বার পেয়ে উত্তীর্ণ হন। ভালো ফলের কারণে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ১৬ জানুয়ারি স্টামফোর্ড তৃতীয় সমাবর্তনে রাষ্ট্রপতি স্বর্ণপদক পেয়েছেন রাজিয়া আফরিন (সোনিয়া)। রাষ্ট্রপতির প্রতিনিধি হিসেবে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সোনার মেডেল পরিয়ে দেন রাজিয়ার গলায়।

রাজিয়া আফরিন বলেন, মানুষের ভালোবাসা ও প্রশংসা পেতে আমার খুব ভালো লাগে। ছোটবেলা থেকে ভালো রেজাল্টের কারণে আমাকে নিয়ে ক্যাম্পাসে আলোচনা হতো। সবাই আলাদা ভাবে চিনতো, প্রশংসা করতো। বাবা মা কখনো পড়ালেখার জন্য চাপ দেয়নি, বরং সব সময় অনুপ্রেরণা দিয়েছেন, উৎসাহ যুগিয়েছেন।

কর্মজীবনেও রাজিয়ার স্বপ্ন সত্যি হয়েছে। বর্তমানে তিনি একটি বেসরকারি ব্যাংকে কর্মরত। রাজিয়া বলেন, ‘দুর্নীতিমুক্ত থাকতে চাই। সব সময় নৈতিকতা ও মূল্যবোধ নিয়ে কাজ করতে চাই। দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়তে কাজ করতে চাই। সব সময় সততা নিয়ে বাঁচতে চাই।’



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২০ জানুয়ারি ২০১৮/ফিরোজ/তারা

Walton Laptop
 
     
Walton