ঢাকা, বুধবার, ২ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৭ জুলাই ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

আস্থা ভোটে টিকে গেলেন থেরেসা মে

এনএ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৮-১২-১৩ ১১:৪৯:১৫ এএম     ||     আপডেট: ২০১৮-১২-১৩ ৮:৪৩:২১ পিএম
আস্থা ভোটে টিকে গেলেন থেরেসা মে
Voice Control HD Smart LED

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির নেতৃত্বের প্রশ্নে আস্থা ভোটে টিকে গেছেন ব্রিটেনে প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে।

ব্রিটেনের পার্লামেন্টে বুধবার রাতে ভোটাভুটিতে ৬৩ শতাংশ কনজারভেটিভ এমপির সমর্থন পেয়েছেন মে। তার বিপক্ষে ভোট পড়েছে ৩৭ শতাংশ।

বিবিসি এ খবর দিয়ে জানিয়েছে, এর ফলে আরো এক বছর কনজারভেটিভ দলের নেতৃত্বে থেরেসা মে-ই থাকছেন। প্রধানমন্ত্রী পদেও বহাল থাকছেন তিনি।

ভোটাভুটিতে কনজারভেটিভ দলের ২০০ এমপি মে’র পক্ষে ভোট দেন। আর বিপক্ষে ভোট পড়ে ১১৭। এই আস্থা ভোটে হেরে গেলে কনজারভেটিভ পার্টির নেতৃত্ব থেকে সরে যেতে হত থেরেসা মে-কে। সে সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর পদও হারাতে হত তাকে।

প্রসঙ্গত, ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে যুক্তরাজ্যের বেরিয়ে যাওয়ার বিষয়ে গণভোটের পর ২০১৬ সালে কনজারভেটিভ দলের প্রধান হয়ে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পান মে।

ভোটে টিকে যাওয়ার পর মে বলেন, ‘এটি খুব দীর্ঘ এবং উত্তেজনাপূর্ণ দিন ছিল। তবে আমি আমার সহকর্মীদের ধন্যবাদ দেবো ব্যালটের মাধ্যমে আমাকে সমর্থন জানানোর জন্যে। আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।’

নিজ দলের এই সমর্থন তাকে ব্রেক্সিট নীতি বাস্তবায়নে সহায়তা করবে বলেও জানান মে। তবে সহকর্মীদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ তার বিরুদ্ধে যে ভোট দিয়েছে সে প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘তারা যা বলেছেন, তা আমি শুনেছি।’

ব্রিটেনের মানুষ যে ব্রেক্সিটের পক্ষে রায় দিয়েছে, তার বাস্তবায়ন এবং জাতিকে আবারও ঐক্যবদ্ধ করতে নতুন উদ্যমে কাজ শুরু করার অঙ্গীকারের কথাও বলেন তিনি।

অনাস্থা ভোটের আগে এক বক্তব্যে থেরেসা মে ইইউ থেকে বেরিয়ে আসার জন্যে তার ব্রেক্সিট চুক্তির জন্যে লড়াই চালিয়ে যাওয়ার কথা বলেন। তবে সে সময় তার বক্তব্যের শেষ দিকে বলেন যে, ২০২২ সালে পরবর্তী সাধারণ নির্বাচনে দলের হয়ে আর লড়বেন না তিনি।

তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, এই আস্থা ভোট অর্থহীন। মে’র জন্য আসল বিপদ অপেক্ষা করছে সামনে। কেননা সম্পাদিত ব্রেক্সিট চুক্তি সংসদে পাশ করানোই এখন তার জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।




রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৩ ডিসেম্বর ২০১৮/এনএ

Walton AC
ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন
       

Walton AC
Marcel Fridge