ঢাকা, শনিবার, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ১৮ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

স্বামী কারাগারে, তৃতীয় স্ত্রীর জবানবন্দি

মামুন খান : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-১১-১৪ ৫:৩৯:৪৫ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-১১-১৪ ৫:৪১:২০ পিএম
ফাইল ফটো

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীর কাকরাইলে মা ও ছেলেকে হত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় নিহতের স্বামী আব্দুল করিমকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। আর আব্দুল করিমের তৃতীয় স্ত্রী শারমীন আক্তার মুক্তা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

মঙ্গলবার রিমান্ড শেষে আসামিদের আদালতে হাজির করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রমনা থানার ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) আলী হোসেন। আসামি মুক্তা স্বেচ্ছায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে সম্মত হওয়ায় তা রেকর্ড করার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা। আর মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত আব্দুল করিমকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন তিনি।

আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মহানগর হাকিম মোহা. আহসান হাবীব মুক্তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন। এরপর তাকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। আরেক মহানগর হাকিম মাজহারুল হক আসামি আব্দুল করিমকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

গত ৩ নভেম্বর এদের ছয়দিন এবং ১০ নভেম্বর তিনদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

প্রসঙ্গত, গত ১ নভেম্বর কাকরাইলের পাইওনিয়র গলির ৭৯/১ নম্বর বাসার গৃহকর্তা আবদুল করিমের প্রথম স্ত্রী শামসুন্নাহার করিম (৪৬) ও তার ছেলে শাওনকে (১৯) হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

ঘটনার পরদিন রাতে নিহত শামসুন্নাহারের ভাই আশরাফ আলী বাদী হয়ে রমনা থানায় মামলা (নং-১) দায়ের করেন। মামলায় আব্দুল করিম, করিমের তৃতীয় স্ত্রী শারমিন মুক্তা, মুক্তার ভাই জনিসহ অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা শামসুন্নাহার করিমের স্বামী আবদুল করিম ও করিমের তৃতীয় স্ত্রী শারমিন মুক্তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। এরপর ৩ নভেম্বর দিবাগত রাত ৩টায় গোপালগঞ্জ থেকে মামলার মূল আসামি জনিকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-৩। ৫ নভেম্বর জনির ছয়দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। রিমান্ড চলাকালীন সময়ে ৮ নভেম্বর জনি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৪ নভেম্বর ২০১৭/মামুন খান/সাইফ

Walton
 
   
Marcel