ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩ আশ্বিন ১৪২৫, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

যে গ্রামের অধিকাংশ পরিবারই মার্সেল পণ্য ব্যবহার করে

মোহাম্মদ মাসুদ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৪-২৩ ৮:০০:১৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৬-০৪ ৮:৩৬:০৬ পিএম
মার্সেল ফ্রিজ কিনে ফ্রি পাওয়া ২০ ইঞ্চি এলইডি টিভি বুঝে নিচ্ছেন চাঁদ আলী

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলায় পাট্টা ইউনিয়নের একটি গ্রাম বয়রাট মাজাইল। এ গ্রামে বাস করে শ’ খানেক পরিবার। এদের মধ্যে অধিকাংশ পরিবারই ব্যবহার করেন দেশীয় ব্র্যান্ড মার্সেলের ফ্রিজ ও টেলিভিশনসহ অন্যান্য পণ্য। মূলত কম দাম, দেখতে সুন্দর ও টেকসই বলে গ্রামের প্রায় সব পরিবারই মার্সেলের ফ্রিজ ও টেলিভিশন কিনেছে।

উল্লিখিত কথা বলেন বয়রাট মাজাইল গ্রামেরই বাসিন্দা চাঁদ আলী। তিনি মার্সেল ব্র্যান্ডের একটি ফ্রিজ কিনে ২০ ইঞ্চি এলইডি টিভি উপহার পাওয়ার প্রতিক্রিয়া জানানোর সময় রাইজিংবিডির এই প্রতিবেদকের কাছে দেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় ইলেকট্রনিক্স ও ইলেকট্রিক্যাল পণ্য প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান মার্সেল সম্পর্কে এমন মন্তব্য করেন।

গত ১৬ এপ্রিল রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলায় মার্সেল পণ্যের পরিবেশক প্রতিষ্ঠান ‘কালেকশন এ টু জেড’থেকে ২৮ হাজার ৭৫০ টাকা দিয়ে মার্সেলের একটি সাড়ে ১৭ সিএফটির ফ্রিজ কেনেন। ফ্রিজটি কিনে তিনি তা দেশব্যাপী দ্বিতীয়বারের মতো চালু হওয়া মার্সেল ডিজিটাল ক্যাম্পেইনের আওতায় রেজিস্ট্রেশন করেন। এর পরপরই ক্যাম্পেইনে ঘোষিত শত শত ফ্রিজ, টিভি ও এসি ফ্রি অফারের আওতায় মার্সেল ব্র্যান্ডেরই ২০ ইঞ্চি একটি এলইডি টিভি সম্পূর্ণ ফ্রি পান তিনি।

এলইডি টিভি উপহার পাওয়ার প্রতিক্রিয়ায় চাঁদ আলী বলেন, জীবনে এই প্রথম কোনো পুরস্কার পেলাম। খুব ভালো লাগছে। পুরস্কারটি পাওয়ার পর গ্রামের প্রায় সবাই বলছে, আলী খুব ভাগ্যবান। সবার মুখে এমন মন্তব্য শুনে সত্যি খুব আনন্দ লাগছে। এজন্য মার্সেল কোম্পানির কাছে আমি কৃতজ্ঞ।

তিনি বলেন, এক ছেলে ও দুই মেয়ে, স্ত্রী ও মাকে নিয়েই আমার পরিবার। আমার ঘরে এতদিন কোনো ফ্রিজ ছিল না। এদিকে এ বছর গরম পড়ছে বেশি। কয়েক দিন আগে আমার বড় মেয়ে অনেক গরমের মধ্যে স্কুল থেকে বাসায় ফিরে বলছিল, বাবা ঘরে ফ্রিজ থাকলে এখন ঠান্ডা পানি খাওয়া যেত। মেয়ের এই কথা শোনার পরপরই কষ্ট করে হলেও ফ্রিজ কেনার সিদ্ধান্ত নেই।



মার্সেল ফ্রিজ কেনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের গ্রামের প্রায় সব পরিবারই মার্সেলের ফ্রিজ, টিভিসহ বিভিন্ন পণ্য ব্যবহার করে। বাজারে অন্যান্য কোম্পানির চেয়ে মার্সেলের ফ্রিজ, টিভির দামও অনেক। চলেও ভালো। তাই গ্রামের সবার মতো চলতি বছরের শুরুতে আমিও ঘরের জন্য মার্সেলের একটি এলইডি টিভি কিনেছি। টিভি ব্যবহার করতে গিয়ে নিজেই দেখলাম, ছবি যেমন ঝকঝকে, তেমনি শব্দও খুব ভালো। তাই এবার ফ্রিজও কিনলাম মার্সেলের। আসলে গ্রামের সবার মতো আমার মধ্যেও মার্সেল পণ্যের প্রতি আস্থা তৈরি হয়েছে। হয়ত সেজন্যই মার্সেলের ফ্রিজ কিনে ২০ ইঞ্চির এলইডি টিভি ফ্রি পেলাম।

উপহার পাওয়া টিভিটি কী করবেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বয়রাট বাজারেই আমার মুদি দোকান। দিনের বেশিরভাগ সময়ই দোকানে থাকি। সেখানে এতদিন কোনো টিভি না থাকায় বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠানসহ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ও ফুটবল খেলা দেখতে পারতাম না। মার্সেলের কাছ থেকে উপহার পাওয়া টিভিটি তাই দোকানেই লাগাব বলে ঠিক করেছি। দেখুন, আমার কী ভাগ্য! মাস খানেক পরেই শুরু হবে ফুটবল বিশ্বকাপ। এর মধ্যেই দোকানের জন্য পেয়ে গেলাম টিভি। এখন দোকানে বসেই ফুটবল বিশ্বকাপ দেখতে পারব।

মার্সেল সূত্র মতে, বিক্রয়োত্তর সেবা কার্যক্রম অনলাইনের আওতায় আনতে গত ১ এপ্রিল থেকে দেশব্যাপী আবারও ডিজিটাল ক্যাম্পেইন শুরু করেছে মার্সেল। ক্যাম্পেইনের আওতায় একজন ক্রেতা প্রতিবার মার্সেলের ফ্রিজ, টিভি কিংবা এসি কিনে তা রেজিস্ট্রেশন করলেই পেতে পারেন আমেরিকা, রাশিয়া ভ্রমণের সুযোগ কিংবা মার্সেলেরই ফ্রিজ, টিভি ও এসি সম্পূর্ণ ফ্রি। তবে এসব সুযোগ না পেলেও ক্রেতার জন্য রয়েছে সর্বোচ্চ ১ হাজার টাকা পর্যন্ত নিশ্চিত নগদ ছাড়।

ডিজিটাল ক্যাম্পেইনের আওতায় গ্রীষ্মকালের জন্য মার্সেল ফ্রিজ ও এসিতে এবং বিশ্বকাপ ফুটবল উপলক্ষে মার্সেল টিভিতে এসব সুবিধা পাওয়া যাবে আগামী ৩০ জুন, ২০১৮ পর্যন্ত।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৩ এপ্রিল ২০১৮/পলাশ/রফিক 

Walton Laptop
 
     
Walton