ঢাকা, রবিবার, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ১৯ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

১০৬৯ কোটি টাকার ৫টি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন

কেএমএ হাসনাত : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৯-১৩ ৮:০৩:২৪ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৯-১৬ ৮:১১:২৪ পিএম

বিশেষ প্রতিবেদক : সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি এক হাজার ৬৯ কোটি টাকার ৫টি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে। এর মধ্যে ২১১ কোটি ৩২ লাখ ৩৭ হাজার টাকা ব্যয়ে ৫০ হাজার টন চিনি আমদানির প্রস্তাব রয়েছে।

বুধবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সভাপতিত্ব করেন। বৈঠকে কমিটির সদস্য, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিনিয়র সচিবসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠক শেষে অনুমোদিত ক্রয় প্রস্তাবের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোস্তাফিজুর রহমান।

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ৫০ হাজার টন আমদানির জন্য শিল্প মন্ত্রণালয়ের একটি প্রস্তাব ক্রয় কমিটির বৈঠকে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। চিনি আমদানিতে প্রতি টনের দাম ৪৭০ ডলার হিসেবে মোট ব্যয় হবে ২১১ কোটি ৩২ লাখ ৩৭ হাজার টাকা। চিনি আসবে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে। লন্ডনভিত্তিক ইডি অ্যান্ড এফ এবং বাংলাদেশের রিয়া ইন্টারন্যাশনাল।

এর আগে বাজার দর নিয়ন্ত্রণ ও ঘাটতি পূরণের জন্য বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশনকে (বিএসএফআইসি) ১ লাখ টন চিনি আমদানির অনুমতি দেওয়া হয়।

ক্রয় কমিটির অনুমোদনের জন্য বিএসএফআইসি সার সংক্ষেপে  বলা হয়েছে, ৫০ হাজার টন চিনি আমদানির আন্তর্জাতিক দরপত্রে মোট চারটি প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়। প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে যৌথভাবে লন্ডনভিত্তিক ইডি অ্যান্ড এফ এবং রিয়া ইন্টারন্যাশনাল, ইউনাইটেড সুগার মিলস, সিটি সুগার ইন্ডাস্ট্রিজ এবং গ্লোবোপিউ ইমপোর্ট-এক্সপোর্ট লিমিটেড।

বিএসএফআইসির দরপত্র মূল্যায়ন কমিটির বিবেচনায় চার প্রতিষ্ঠানই যোগ্য বা রেসপনসিভ দরদাতা হয়। এর মধ্যে সর্বনিম্ন দরদাতা হয় লন্ডনভিত্তিক ইডি অ্যান্ড এফ এবং রিয়া ইন্টারন্যাশনাল। খরচ বাদে প্রতিষ্ঠানটি দর দিয়েছে প্রতি টন ৪৭০ মার্কিন ডলার। প্রতি ডলারের বিনিময় মূল্য ৮২ টাকা ধরে প্রতি টনের দাম দাঁড়ায় ৩৮ হাজার ৫৪০ টাকা। ৫০ হাজার টন চিনি আমদানিতে প্রতিষ্ঠানটি অন্য দরদাতাদের চেয়ে ২৭ কোটি টাকা কম দর প্রস্তাব জমা দিয়ে তারা সর্বনিম্ন দরদাতা হয়।

দরপত্রের চর্চা অনুযায়ী ৫০ হাজার টনের সঙ্গে ১০ শতাংশ কম-বেশি হতে পারে। যদি ১০ শতাংশ বেশি হয় তাহলে শেষ পর্যন্ত চিনি আমদানি হতে পারে ৫৫ হাজার টন।

শিল্প মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, গত সোমবার পর্যন্ত দেশে ৪২ হাজার টন চিনির মজুত রয়েছে বলে জানানো হয়। এই মজুতের মধ্যে সেনাবাহিনী, পুলিশ, বিজিবি এবং আনসারদের জন্য সংরক্ষিত থাকবে ২৩ হাজার ৫০০ টন। তখন প্রকৃত মজুত দাঁড়াবে ১৮ হাজার ৫০০ টন চিনি, যা বাজার নিয়ন্ত্রণসহ জরুরি প্রয়োজন মেটানোর জন্য যথেষ্ট নয়। বিধায় চিনি আমদানির সিদ্ধান্ত নেয় শিল্প মন্ত্রণালয়।

বৈঠকে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)-এর অর্থায়নে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন ‘ইরিগেশন ম্যানেজমেন্ট ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্ট (আইএমআইপি) ফর মুহুরি ইরিগেশন প্রজেক্ট (এমআইপি)’ শীর্ষক প্রকল্পের প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড ডিজাইন কনসালট্যান্ট (পিএমডিসি) শীর্ষক কাজের ভেরিয়েশন প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয় বলে জানান অতিরিক্ত সচিব। কাজের পরিধি বৃদ্ধি হওয়ায় অতিরিক্ত পাঁচ কোটি ৩৮ লাখ ৮৯ হাজার টাকা দিতে হবে।

তিনি বলেন, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অধীন কক্সবাজার বিমানবন্দর উন্নয়ন প্রকল্প (১ম পর্যায়)-এর আওতায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরকে ডিপোজিট ওয়ার্কস হিসাবে প্রদত্ত কক্সবাজার জেলার সদর উপজেলার বাঁকখালী নদীর ওপর কস্তুরি ঘাটে ৫৯৫ মিটার দীর্ঘ প্রিস্ট্রেড গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ  কাজের ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এমবিইএল নামের একটি প্রতিষ্ঠান প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে আর প্রকল্পে ব্যয় হবে ১৭২ কোটি ১১ লাখ টাকা।

অতিরিক্ত সচিব বলেন, খুলনা-মোংলা মহাসড়কের বাবুর বাড়ি সংযোগস্থল থেকে বাগেরহাট জেলার রামপালে নির্মাণাধীন মৈত্রী সুপার থার্মাল বিদ্যুৎকেন্দ্র পর্যন্ত ৬ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যেও ২ লেন বিশিষ্ট সংযোগ সড়ককে ৪ লেন বিশিষ্ট সড়কে উন্নীতকরণ  এবং উভয়পাশে ধীরগতির যানবাহন চলাচল উপযোগী সড়ক নির্মাণ কাজের ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে মেসার্স তমা কন্সট্রাকশন। আর ব্যয় হবে ১১৯ কোটি ৫ লাখ ৩৪ হাজার টাকা।

বৈঠকে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন ‘পূর্বাচল নতুন শহর’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় গাজীপুর অংশে  সেক্টর ১৫,১৬,২৪,২৫,২৬,২৭ ও ২৮) অভ্যন্তরীণ ব্রিজ নির্মাণ, অবশিষ্ট রাস্তা নির্মাণ এবং প্লট পিলার স্থাপন কাজ সম্পাদনের জন্য সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে সম্পাদন ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি নৌবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত নারায়ণগঞ্জ  ডকইয়ার্ড বাস্তবায়ন করবে, আর খরচ হবে ৫৬১ কোটি ২৬ লাখ ৭৪ হাজার টাকা।

এর আগে অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে স্থানীয় সরকার বিভাগের দুটি প্রস্তাবে নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়।

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭/হাসনাত/সাইফ

Walton