ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৩ কার্তিক ১৪২৪, ১৯ অক্টোবর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

সংসদ বিলুপ্তি চাইবে বিএনপি

রেজা পারভেজ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-১০-১৩ ৪:২০:০১ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-১০-১৩ ৪:২৪:৩৩ পিএম

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিরপেক্ষ করতে বিএনপি নির্বাচন কমিশনকে ‘সামগ্রিক প্রস্তাবনা’ দেবে বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এতে সংসদ বিলুপ্তির দাবি থাকবে বলে জানান তিনি।

শুক্রবার শান্তিনগরে ‘ইস্টার্ন পয়েন্ট’ অ্যাপার্টমেন্টে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য অসুস্থ তরিকুল ইসলামের বাসায় তাকে দেখতে গিয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম এ কথা জানান।

বিএনপি মহাসচিব অসুস্থ নেতার স্বাস্থ্যের খোঁজ-খবর নেন। এ সময়ে তরিকুল ইসলামের স্ত্রী অধ্যাপিকা নার্গিস বেগম, ছেলে অনিন্দ্র ইসলাম অমিত উপস্থিত ছিলেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘আমরা বড় টিম নিয়ে নির্বাচন কমিশনের সংলাপে যাবো এবং সেখানে গিয়ে আমরা লিখিতভাবে আমাদের সমস্ত প্রস্তাব তাদের সামনে তুলবো। ইট উইল বি এ ভেরি কমপ্রিহেনসিভ। আমি মনে করি যে, এটা (প্রস্তাবনা) একটা মাইলফলক হয়ে থাকবে।’

‘আমরা সংসদ বিলুপ্তির কথা সুস্পষ্টভাবে বলব, সেনাবাহিনী নিয়োগের কথা আমরা সুস্পষ্টভাবে বলব, নির্বাচনকালীন সময়ে যখন তফসিল ঘোষণা হবে তখন প্রশাসনকে যে ব্যবস্থাগুলো নিতে হবে সে বিষয়েও বলব। আরপিও’র কোথায় সমস্যা আছে সেটা বলব এবং কি ভোট প্রদানের ক্ষেত্রে কী কী নিয়ম চালু করা উচিত, অবজারভারদের (পর্যবেক্ষক) ক্ষেত্রে কী কী নিয়ম থাকা উচিত-ডিটেলস আমাদের প্রস্তাবনায় থাকবে।’

ইসি নিরপেক্ষ ও স্বাধীনভাবে দায়িত্ব পালন করলে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘আমাদের যে পারসেপশনটা তৈরি হয়েছে এই যে নির্বাচন কমিশনারের কথায় বা এর গঠন প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যে, এই কমিশন কতটুকু সেটা পারবে বা তাদের যোগ্যতা আছে–সে ব্যাপারে আমাদের প্রশ্ন আছে, আমরা সেই প্রশ্ন রেখেছি।’

‘এই সরকার যদি ক্ষমতায় থাকে, তাহলে এই নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়ার সম্ভাবনা নেই। বিশেষ করে সরকার প্রধান ক্ষেত্রে আমরা আমাদের কথা বলেছি যে, এখান হবে। তারা যে সংবিধানের সংশোধনগুলো করেছে কতটুকু সুষ্ঠু হবে তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।’

সরকার যদি ক্ষমতাসীন দলই থাকে তাহলে নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু নির্বাচন করতে পারবে কি না প্রশ্ন করা হলে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা বরাবরই বলেছি যে, এই সরকার যদি ক্ষমতায় থাকে তাদের অধীনে যদি নির্বাচন হয়। তাহলে সেই নির্বাচন কখনই সুষ্ঠু হওয়ার সম্ভাবনা নেই।’

‘বিশেষ করে সরকার প্রধানের ক্ষেত্রে আমরা আমাদের কথা বলেছি, এটা এমন একটা অবস্থা তৈরি হয়েছে যে, এখানে একটা পরিবর্তন আসা দরকার। তারা (ক্ষমতাসীন দল) সংবিধানে যেসব সংশোধনী করেছে, সেই সংশোধনীর মধ্য দিয়ে এই নির্বাচন কতটুকু সুষ্ঠু হবে সেটাও কিন্তু প্রশ্ন থেকেছে সংশোধনীর মধ্যেই’, বলেন বিএনপির এই মুখপাত্র।

সহায়ক সরকারের রূপরেখার প্রস্তাবনা কী নির্বাচন কমিশন দেবেন কি না জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের কাছে আমরা সহায়ক সরকারের রূপরেখা দেবো না। আমরা তাদেরকে ধারণা দেবো। আমরা এটা বলব যে, এটা ছাড়া সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না। রূপরেখাটা আমরা পরে দেবো।’

তরিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘দেশের মানুষ একটা নিরপেক্ষ নির্বাচন দেখতে চায়। এখন আমরাসহ সমস্ত রাজনৈতিক দলই এটা দেখতে চাই। এমনকি গতকাল সিপিবি বলেছে, নির্বাচনের আগে সংসদ ভেঙে দিতে হবে, একই কথা অন্য দলও বলছে। এখন বিষয়টা নির্ভর করছে সরকার এটা কিভাবে নেবে তার ওপর।’

নির্বাচন কমিশনের সংলাপ চলাকালে বিরোধীদল বিশেষ করে বিএনপি ও জামায়াতের নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তারের সমালোচনা করেন তিনি।

সাংবাদিকদের সাথে কথা বলার সময়ে দলের যুগ্মমহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল ও চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান উপস্থিত ছিলেন।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৩ অক্টোবর ২০১৭/রেজা/সাইফ

Walton
 
   
Marcel