ঢাকা, রবিবার, ৬ কার্তিক ১৪২৫, ২১ অক্টোবর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

বিএনপির র‌্যালিতে গণতন্ত্র ফেরানোর ডাক

রেজা পারভেজ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৭-১২-১৭ ৪:৫৪:৪০ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-১২-১৭ ৬:২৮:৫০ পিএম
ছবি : রেজা পারভেজ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে রাজধানীতে বিজয় র‌্যালি করে ‘গণতন্ত্র ফেরানোর’ ডাক দিয়েছে বিএনপি। গণতন্ত্র ফেরানোর দাবিতে নেতাকর্মীদের আরো বেশি সোচ্চার হওয়ার আহ্বানও জানানো হয়েছে।

র‌্যালিতে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের দেওয়া বক্তব্য, পোস্টার, ফেস্টুন থেকে শুরু করে নেতাকর্মীরা নিজেদের শরীরেও ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের’ শপথের কথা বলেছেন।

মহান বিজয় দিবসের একদিন পর রোববার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে বিজয় র‌্যালি শুরু হয়। বেলা সাড়ে ৩টার দিকে এই বিজয় র‌্যালি উদ্বোধন করেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সংক্ষিপ্ত সমাবেশের পর র‌্যালিটি ধীর গতিতে মালিবাগ মোড়ের দিকে যায়। সেখান থেকে ঘুরে আবারও কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়।



বিজয় র‌্যালি দুপুর ২টায় শুরু হওয়ার কথা থাকলেও নেতাকর্মীরা অনেক আগে থেকে কেন্দ্রীয় কার্যালয় ও এর আশপাশ এলাকায় ভিড় জমান। ছোট ছোট পিকআপ ভ্যানে বড় সাউন্ড সিস্টেমে ‘প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ, জীবন বাংলাদেশ আমার মরণ বাংলাদেশ’ গানের তালে তালে, বিজয়ের সাজে বিভিন্ন রূপ ধারণ করে নেতাকর্মীরা আসেন বিজয় র‌্যালিতে।

বিএনপি ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ শাখা, জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল, ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, কৃষক দল, মহিলা দলসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোও পৃথকভাবে মিছিল নিয়ে র‌্যালিতে যোগ দেয়।

কেউ বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা হাতে, কেউ কপালে বেঁধে, কেউবা গায়ে জড়িয়ে আসেন র‌্যালিতে। এছাড়াও দলীয় প্রতীক ধানের শীষ, পোস্টার-ব্যানারে ছেয়ে যায় পুরো নয়াপল্টন এলাকা। র‌্যালিতে বাড়তি সৌন্দর্য দেয় ঘোড়ার গাড়ি। পুরান ঢাকার বংশাল থানা বিএনপি নিয়ে আসে অনেকগুলো ঘোড়ার গাড়ি। এগুলো সুন্দর সাজে সাজানো হয়েছে।



র‌্যালির আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘সরকার গণতন্ত্র ও বাকস্বাধীনতাকে হত্যা করে আজীবন ক্ষমতায় থাকতে চায়। গুম-খুন, বিচারবহির্ভূতভাবে হত্যা করে জনগণের মধ্যে ভীতি সৃষ্টি করে ক্ষমতা দীর্ঘায়িত করতে চায়। এই অবস্থা থেকে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করতে হলে এই সরকারের পতন ঘটানো ছাড়া বিকল্প নেই। আজকে বিজয় দিবসে সেই শপথ নিতে হবে।’



মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তার বক্তব্যে জনগণের ভোটের রায়ের ভিত্তিতে সরকার প্রতিষ্ঠায় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে একটি অবাধ নির্বাচনের আয়োজন করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। একই সঙ্গে এই দাবিতে জনগণের মাঝে জাতীয় ঐক্য সৃষ্টিরও ডাক দেন তিনি।

র‌্যালিতে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিএনপি নেতা নাজিমউদ্দিন আলম, ছাত্রদল সভাপতি রাজীব আহসান, যুবদল সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, উত্তেরের সাধারণ সম্পাদক আহসানউল্লাহ আহসান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।




রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৭ ডিসেম্বর ২০১৭/রেজা/রফিক

Walton Laptop
 
     
Walton