ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ ভাদ্র ১৪২৫, ২১ আগস্ট ২০১৮
Risingbd
শোকাবহ অগাস্ট
সর্বশেষ:

যে মিশনে সাংগঠনিক সফরে নামছে আ.লীগের ১৫ টিম

নৃপেন রায় : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০১-২৫ ৫:৩৮:৪৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০১-২৫ ৫:৩৮:৪৬ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক : টানা তৃতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের মিশন নিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে ২৬ জানুয়ারি থেকে আওয়ামী লীগের ১৫টি টিম মাঠে নামছে। মূল লক্ষ্য জাতীয় নির্বাচনের জন্য তৃণমূল পর্যায়ে নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করার বার্তা দেওয়ার পাশাপাশি কোন আসনে কে হতে পারেন যোগ্য প্রার্থী তার মূল্যায়ন প্রতিবেদন তুলে ধরা। তাই প্রতিটি আসনের সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশীদের খসড়া তালিকা সাংগঠনিক সফর দলের প্রধানদের কাছে ইতোমধ্যে সরবরাহ করা হয়েছে বলে বিশ্বস্ত সূত্র রাইজিংবিডিকে নিশ্চিত করেছে।

সূত্র জানায়, আগামী ডিসেম্বরে জাতীয় সংসদ নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে। বিভিন্ন সভা সেমিনারে আওয়ামী লীগ নেতারাও এমন আভাস দিয়েছেন। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের জন্য আগামী নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও হিসাব-নিকাশের নির্বাচন বলে মনে করছেন নেতারা। গত ২৩ জানুয়ারি রাজধানীর কাকরাইলে ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স মিলনায়তনে জাতীয় নেতা শহীদ এম মনসুর আলীর জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় এই আভাস দেন দুই সিনিয়র নেতা। তারা হলেন উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু এবং সভাপতিম-লীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম।

আমির হোসেন আমু বলেন, ‘জাতীয় স্বার্থে শেখ হাসিনাকে পুনরায় নির্বাচিত করতে হবে। আমরা চাই, একটা সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন হোক। আমরা প্রমাণ করতে চাই, সংবিধানের ভিত্তিতে যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে সেই নির্বাচনই হবে স্বচ্ছ। এতে কোন সন্দেহ নেই। আমরা প্রমাণ করার চেষ্টা করবো, নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে হবে, সত্যিকার অর্থেই ট্রান্সপারেন্ট হবে।’
মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘সামনের সময় আমাদের জন্য অগ্নিপরীক্ষার সময়। কোন অবস্থাতেই দ্বিধা দ্বন্দ্ব রাখা যাবে না। যারা দ্বিধা দ্বন্দ্ব রাখবেন তারা আওয়ামী লীগ করতে পারবেন না। আমাদের পথ একটাই, বিজয়ের পথ। অন্য কোন পথ সামনে নেই।’

বিগত সময়ে দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও বিভিন্ন সভায় আগামী নির্বাচনকে মহা হিসাব-নিকাশের নির্বাচন বলে ইঙ্গিত করেছেন।

আগামী নির্বাচন মহা হিসাব-নিকাশের নির্বাচন- এই বিষয়টি মাথায় নিয়ে তৃণমূলে সাংগঠনিক সফরে নামছে আওয়ামী লীগ। এতে তৃণমূলে জাতীয় নির্বাচনী উত্তাপ ছড়িয়ে পড়বে বলে মনে করছেন নেতারা। তারা আরো মনে করেন, আগামী নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ব্যাপারে বিএনপি ভেতরে ভেতরে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। বিএনপিই ভোটের ময়দানে আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিপক্ষ। তারা এবার দল বাঁচাতে নির্বাচনে অংশ নেবে। এদিকে টানা দুই মেয়াদে ক্ষমতায় থাকার ফলে আওয়ামী লীগের তৃণমূলের নেতাকর্মীদের বিভিন্ন কর্মকা-ে জনগণের মাঝে কিছুটা বিরুপ মনোভাব সৃষ্টি হয়েছে।

নেতারা বলেন, আমরা এসব বিষয়ে নজর দিয়ে সংকট কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করবো। আর আমাদের বেশীরভাগ আসনেই একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশী রয়েছেন। আমরা তাদেরকে নেত্রীর প্রয়োজনীয় বার্তা পৌঁছে দেওয়ার পাশাপাশি আগামী নির্বাচনে নেত্রী যাকে মনোনয়ন দেবেন তার পক্ষে কাজ করার জন্য প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানাবো। আসলে সবকিছু সামলিয়ে দলকে ঐক্যবদ্ধ করার লক্ষ্যেই আমরা একটু আগেভাগেই নির্বাচনী মাঠে নামছি।

ইতোমধ্যে ১৫টি সাংগঠনিক টিমের নির্বাচনী সফরের তালিকা প্রকাশ করেছে আওয়ামী লীগ। অন্যদিকে ৩০ জানুয়ারি সিলেট সফরে যাওয়ার মধ্য দিয়ে অনানুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করবেন দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা। এসব সফরে দলকে ঐক্যবদ্ধ করার পাশাপাশি সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকা-ের কথা জনগণের সামনে তুলে ধরতে তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের বিভিন্ন নির্দেশনা দেওয়া হবে। অপরদিকে বিএনপি-জামায়াত জোটের অতীতের অপশাসন, অগ্নিসন্ত্রাস-নাশকতাসহ নেতিবাচক দিকগুলো জনগণের সামনে তুলে ধরার পরামর্শ দেবে আওয়ামী লীগ। এছাড়াও নির্বাচনী প্রস্তুতির অংশ হিসেবে প্রায় ১২ লাখ পোলিং এজেন্টকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে বলে জানান দলের নীতি-নির্ধারকরা।

তারা বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচন দরজায় কড়া নাড়ছে। আর মাত্র নয় মাস বাকি। এলক্ষ্যে তৃণমূলকে ব্যক্তিস্বার্থ বা ভাই লীগ না করে দলীয় স্বার্থে আওয়ামী লীগ করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হবে। গত শনিবার সন্ধ্যায় নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সঙ্গে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এ কথা বলেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি নাটোর জেলা নেতাদের উদ্দেশে বলেন, ‘সামনে নির্বাচন, আমাদের হাতে খুব বেশী সময় নেই। আপনারা আওয়ামী লীগের স্বার্থে শেখ হাসিনার দিকে তাকিয়ে ওনার হাতকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে ঐক্যবদ্ধ হোন। বৈঠকে রাজশাহী বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক এবং সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

এ ব্যাপারে রাজশাহী বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘আগামীকাল শুক্রবার থেকে একযোগে আমাদের সাংগঠনিক সফর শুরু হচ্ছে। এই সফরের মধ্য দিয়ে আমরা নির্বাচনী প্রস্তুতি সেরে নেবো। আমাদের টিমে প্রবীণ রাজনীতিক তোফায়েল আহমেদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক ও অন্য নেতারা রয়েছেন।

সাংগঠনিক সফরে দলের সিনিয়র নেতাদের টিম প্রধান করে এবং বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকদের সমন্বয়ক করে ১৫টি টিম গঠন করা হয়েছে। চট্টগ্রাম বিভাগের টিম সফরের প্রথম দিনে ফেনীতে এবং পরের দিন বান্দরবান জেলায় বর্ধিত সভা করবে। ফেনীতে দলের সভাপতিম-লীর সদস্য আবদুল মতিন খসরু এবং বান্দরবানে সভাপতিম-লীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন নেতৃত্বে থাকবেন। পুরো কার্যক্রম সমন্বয় করবেন বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম। রাজশাহী বিভাগের টিম বগুড়া এবং শনিবার নাটোরে কর্মিসভা ও বর্ধিত সভায় অংশ নেবে। বরিশালে প্রধানমন্ত্রীর জনসভা সফল করা নিয়ে ইতোমধ্যে বরিশালে বর্ধিত সভা শেষ করা হয়েছে। ২৭ জানুয়ারি পটুয়াখালীতে বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হবে। ৮ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরিশাল সফর করবেন। ঢাকা বিভাগে মানিকগঞ্জ জেলা দিয়ে ওই টিমের সাংগঠনিক সফর শুরু হবে। এরপর ২৮ জানুয়ারি মুন্সীগঞ্জ এবং ১১ ফেব্রুয়ারি টাঙ্গাইলে যাবে।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২৫ জানুয়ারি ২০১৮/নৃপেন/শাহনেওয়াজ

Walton Laptop
 
     
Walton