ঢাকা, শুক্রবার, ৬ আশ্বিন ১৪২৫, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

সাইফ-মিরাজ-সানজামুলে আবাহনীর তিনে তিন

আমিনুল ইসলাম : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০২-১৩ ৪:৪০:২৪ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০২-১৩ ৭:৩২:০৩ পিএম
সাইফ হাসানের হাতে ম্যাচসেরার পুরস্কার তুলে দিচ্ছেন ওয়ালটন গ্রুপের সিনিয়র অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর মিলটন আহমেদ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : সাইফ হাসান, মেহেদী হাসান মিরাজ ও সানজামুল ইসলামের ব্যাটিং ও বোলিং নৈপুণ্যে তিনে তিন করে ফেলল ঢাকা আবাহনী লিমিটেড। ওয়ালটন ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের তৃতীয় রাউন্ডে তারা ব্রাদার্স ইউনিয়নকে হারিয়েছে ১৩৬ রানের বড় ব্যবধানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :
আবাহনী : ২৬৬/১০ (৫০ ওভারে)
ব্রাদার্স : ১৩০/১০ (৩৫.৪ ওভারে)
ফল : আবাহনী ১৩৬ রানে জয়ী
ম্যাচসেরা : সাইফ হাসান।


আজ মঙ্গলবার ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আবাহনী প্রথমে ব্যাট করতে নেমে সাইফ হাসানের ১০৮, এনামুল হকের ৪১, নাজমুল হোসেন শান্তর ৩৮ ও নাসির হোসেনের ৩১ রানে ভর করে ৫০ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৬৬ রান সংগ্রহ করে। এরপর মেহেদী হাসান মিরাজ, সানজামুল ইসলাম ও সাকলাইন সজীবের বোলিং তোপে ৩৫.৪ ওভারে ১৩০ রানেই অলআউট হয়ে যায় ব্রাদার্স ইউনিয়ন। মিরাজ ও সানজামুল ৩টি করে উইকেট নিয়েছেন। ২টি উইকেট নিয়েছেন সাকলাইন সজীব।

২৬৭ রানের জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে ৫০ রান তুলে ব্রাদার্সকে ভালো সূচনা এনে দেন মিজানুর রহমান ও জুনায়েদ সিদ্দিকী। এরপর ব্যক্তিগত ২৪ রানে জুনায়েদ সানজামুলের বলে বোল্ড হয়ে যান। ৫৯ রানের মাথায় মিজানুর রহমানকে (২৪) এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে উদ্বোধনী জুটিকে সাজঘরে ফেরান সানজামুল। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে আবাহনী। আসা যাওয়ার মিছিলে ব্যতিক্রম হয়ে দাঁড়ান ইয়াসির আলী। ৪২ বল মোকাবেলা করে ১ চার ও ১ ছক্কায় অপরাজিত ৩৫ রান করেন তিনি। ১৫টি রান করেন ওয়াহিদুল আলম। তাতে ৩৫.৪ ওভারে ১৩০ রানেই গুটিয়ে যায় ব্রাদার্সের ইনিংস।

 



সানজামুল ১০ ওভার বল করে ১ মেডেনসহ ২৮ রান দিয়ে ৩টি উইকেট নেন। ৬ ওভার বল করে ২৪ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ৪.৪ ওভার বল করে ২ মেডেনসহ মাত্র ৮ রান দিয়ে ২ উইকেট নেন সাকলাইন সজীব। ১টি উইকেট নেন অধিনায়ক নাসির হোসেন।

তার আগে আবাহনীর টপ অর্ডারের চার ব্যাটসম্যান রানের দেখা পান। সাইফ ১৩২ বলে ৬ চার ও ৫ ছক্কায় ১০৮, এনামুল ৪৮ বলে ৩ চার ও ২ ছক্কায় ৪১, শান্ত ৪৩ বলে ৩৮ ও নাসির ২৬ বলে ৩১ রানের ইনিংস খেলেন। তাদের পর মাশরাফি ১৬ ও সানজামুল ১২ রান করতে পারেন। বাকিরা কেউ দুই অঙ্কের কোটা ছুঁতে পারেনি। টপ অর্ডারের ব্যাটসম্যানরা আউট হওয়ার পর বালুর বাঁধের মতো ভেঙে যায় আবাহনীর ব্যাটিং অর্ডার। মূলত রান-আউট বেশ ভূগিয়েছে আবাহনীকে। চার-চারজন ব্যাটসম্যান রান-আউটের শিকার হয়েছেন। বল হাতে ব্রাদার্সের বোলাররা ৬টি উইকেট নিতে পেরেছেন। তার মধ্যে খালেদ আহমেদ ২টি ও রনি হোসেন ২টি উইকেট নেন। ১টি করে উইকেট নেন সোহরাওয়ার্দী শুভ ও অলক কাপালি।

সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে ম্যাচসেরা নির্বাচিত হন আবাহনীর সাইফ হাসান।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮/আমিনুল

Walton Laptop
 
     
Walton