ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৪ শ্রাবণ ১৪২৫, ১৯ জুলাই ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

‘খালেদাকে রাজনীতি থেকে মাইনাস করতে চায় সরকার’

রেজা পারভেজ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৭-১০ ৬:২০:২৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৭-১০ ৯:০৫:০৬ পিএম

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে মাইনাস করতে তাকে চক্রান্তের মাধ্যমে কারাগারে নেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

মঙ্গলবার রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে বিএনপির মহাসচিব বিষয়টিকে ‘নীলনকশা’ অভিহিত করে বলেন, ‘২০০১ সালে চারদলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই এই চক্রান্ত শুরু হয়, তা আমরা নস্যাৎ করতে ব্যর্থ হয়েছি।’  

তিনি বলেন, ‘কী অপরাধ তার (খালেদা জিয়া)? অপরাধ হলো, তিনি বাংলাদেশের মানুষের কথা বলেন। একই সঙ্গে একটি স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ দেখতে চান। সেই অপরাধেই এই নীলনকশার মধ্য দিয়ে তার বিরুদ্ধে মামলাগুলো সাজানো হয়েছে। তাকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে কারাবন্দি করা হয়েছে।’

খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের মুক্তির দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবে এ সভার আয়োজন করে ‘৯০’র ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্য’।

খালেদা জিয়াকে মাইনাস করতে বিভিন্ন সময়ে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর বক্তব্যের প্রসঙ্গ তুলে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তথ্যমন্ত্রী একটি কথা সবসময় বলেন-রাজনীতিকে খালেদামুক্ত করতে হবে। তিনি শুধু এই একটা কথাই বহুদিন বহু জায়গায় বহুবার বলেছেন। এ থেকেই স্পষ্ট, বাংলাদেশের রাজনীতি থেকে খালেদা জিয়াকে দূরে সরানোর চেষ্টা চলছে।’

‘বারবার তারা (আওয়ামী লীগ) বলে যে, খালেদা জিয়াকে রাজনীতিতে থাকতে দেব না। তাকে বাংলাদেশের রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে দিতে হবে। বেগম জিয়াকে দূরে সরিয়ে দিতে নয়, তিনি যে রাজনীতি করেন সেই রাজনীতিকে দূরে সরিয়ে দিতে চায় এই সরকার’, বলেন মির্জা ফখরুল।

খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে যেসব মামলা হয়েছে সেগুলোকে সাজানো এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলেও দাবি করেন বিএনপির মহাসচিব।

তিনি বলেন, ‘এক এগারোর পরে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা ছিল চারটি এবং বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা ছিল ১৫টি। দুজনের বিরুদ্ধেই একই ধরনের মামলা ছিল। সবগুলো দুর্নীতির মামলা। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী তার সবগুলো মামলা তুলে নিলেন। আর দেশনেত্রীর (খালেদা জিয়া) বিরুদ্ধে মামলাগুলো থাকল। পরবর্তীতে আরো অনেকগুলো ক্রিমিনাল কেস যুক্ত হয়েছে। এগুলো করার একটাই উদ্দেশ্য- দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে রাজনীতিতে স্বস্তিতে থাকতে না দেওয়।’

খালেদা জিয়াকে মুক্ত না করে বিএনপি নির্বাচনে যাবে না, জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দেশনেত্রীকে মুক্ত না করে আমরা নির্বাচনে যাব না। আমরা অবশ্যই নির্বাচনে যাব, তবে তার আগে নির্বাচনী পরিবেশ তৈরি করতে হবে। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করতে হবে। পার্লামেন্ট ভেঙে দিতে হবে। নির্বাচনকালীন একটি নিরপেক্ষ সরকার দিতে হবে। নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে। তাহলে কেবল নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ তৈরি হবে।’

নেতাকর্মীদের হতাশ না হয়ে ফের আন্দোলনের মাধ্যমে গণঅভ্যুত্থান ঘটিয়ে সরকার পতনের আশা দেখান মির্জা ফখরুল।

‘আমাদের নেতাদের মধ্যে অনেকেরই হতাশা আছে। এখনো আন্দোলন হচ্ছে না। হবে না। ৯০ এর মতো গণঅভ্যুত্থান ঘটাতে হবে। অবশ্যই গণঅভ্যুত্থান ঘটিয়েই এই সরকারের পতন ঘটাতে হবে। কিন্তু কেন হচ্ছে না, সেটা নিজেকে জিজ্ঞেস করুন। তখনকার প্রেক্ষিত কী ছিল আর এখনকার প্রেক্ষিত কী।’

সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সহিংস ঘটনার প্রসঙ্গ তুলে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘আজকে পত্রিকা পড়ে মনে হচ্ছে, আমরা কি আইয়ুব খানের দিকে ফিরে গেলাম? আইয়ুব খানের আমলে একটি ছাত্রসংগঠন গঠিত হয়েছিল। তারাও আজকের এই ছাত্রলীগের মতো হকিস্টিক, লোহার রড গলায় জড়িয়ে সাধারণ ছাত্রদের ভয় দেখিয়ে বেড়াত। তখন অন্যান্য যে ছাত্র সংগঠনগুলো ছিলে ছাত্র ইউনিয়ন, ছাত্রলীগ ও অন্যান্য সংগঠনগুলো কোনো মিটিং করতে পারত না।’

‘আমার মনে হচ্ছে, আমরা সেই সময়ে চলে গেছি। এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শুধু বিদ্যাপীঠ নয়। এই বিশ্ববিদ্যালয় মুক্তচিন্তার পাদপীঠ। এই বিশ্ববিদ্যালয়ই প্রজন্মকে পথ দেখিয়েছে। আজ সেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মানুষকে বেড়ি পরিয়ে দিচ্ছে, কেউ যেন কথা বলতে না পারে। তাহলে বুঝতে হবে এটাও ওই মাইনাস ওয়ান চক্রান্তেরই অংশ’, বলেন তিনি।

কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের হয়রানি করা হচ্ছে, দাবি করে তিনি বলেন, ‘আজকে যারা কোটা সংস্কার নিয়ে আন্দোলন করেছে তারা প্রাণের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। একজনকে তো খুঁজেই পাওয়া যাচ্ছে না। আরেকজনকে ১০ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে। একজনের তো দুই পা ভেঙে দিয়েছে। কাজেই এই সরকার কী ধরনের সরকার, কাদের স্বার্থ হাসিলের জন্য তারা কাজ করছে, এটা উপলব্ধিতে যেন ভুল না হয়।’

নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এমন নির্বাচন কমিশন তৈরি করার চেয়ে না তৈরি করাই ভালো ছিল। এর চেয়ে সরকারি কর্মচারীদের দিয়ে নির্বাচন করানো ভালো ছিল। এই নির্বাচন কমিশনের না আছে ব্যক্তিত্ব, না আছে শক্তি, না আছে যোগ্যতা। একটা ভোট এখন পর্যন্ত সুষ্ঠু করতে পারেনি। একজন সচিবকে দিয়ে সরকার নির্বাচন কমিশন চালাচ্ছে।’

সমাবেশে ডাকসুর প্রাক্তন ভিপি ও বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সহ-জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, নির্বাহী কমিটির সদস্য নাজিম উদ্দিন আলম, জাগপার সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফুর রহমান ও যুগ্ম সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ প্রমুখ।




রাইজিংবিডি/ঢাকা/১০ জুলাই ২০১৮/রেজা/রফিক

Walton Laptop
 
     
Walton