ঢাকা, বুধবার, ৩০ কার্তিক ১৪২৫, ১৪ নভেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

বিএনপি জোটে বড় ধাক্কা, বেরিয়ে যাচ্ছে ন্যাপ-এনডিপি

রেজা পারভেজ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-১০-১৬ ২:২৭:০৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-১০-১৬ ৪:১১:৪০ পিএম
ছবি : এস কে রেজা পারভেজ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মাধ্যমে নতুন জোটে সম্পৃক্ত হওয়ার পর তিন দিনের মধ্যে বড় ধরনের ধাক্কা খেতে যাচ্ছে বিএনপি।

দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত বন্ধু ও আন্দোলন সংগ্রামের মিত্র দল বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-ন্যাপ ও ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এনডিপি জোট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিচ্ছে।

রোববার বিকেল সাড়ে ৩টায় রাজধানীর গুলশানে ইমানুয়েল কনভেনশন সেন্টারে যুগপৎভাবে জোট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার এই ঘোষণা দিতে যাচ্ছে দল দুটি। বাংলাদেশ ন্যাপের নেতৃত্বে রয়েছেন জেবেল রহমান গানি ও এনডিপির নেতৃত্বে খন্দকার গোলাম মোর্তজা।

বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম গোলাম মোস্তফা ভুইয়া রাইজিংবিডিকে জানিয়েছেন, জোটের দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত বন্ধু হলেও মিত্রদের সঙ্গে বিএনপির অবহেলা রয়েছে। নতুন জোট গঠনের প্রক্রিয়া শুরুর পর এটি আরো বড় আকারে দেখা দিয়েছে।

‘আমরা মনে করছি, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যারা এসেছেন, তারা এক-এগারোর কুশীলব। বিএনপি যেহেতু তাদের সঙ্গে জোট বাধতে কার্পন্য করেনি। আমরা মনে করছি পুরোনো জোটের আর তাদের প্রয়োজন নেই। সেজন্য আমরা জোট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিতে যাচ্ছি। আমাদের সঙ্গে এনডিপিও থাকছে।’

তবে বিএনপি জোট থেকে বেরিয়ে গেলেও এখনই কোনো জোটে সম্পৃক্ত হওয়ার ইচ্ছে নেই বলে জানান গোলাম মোস্তফা।

রোববার জোট থেকে বেরিয়ে আসার আগের রাতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের বৈঠকেও উপস্থিত ছিল বাংলাদেশ ন্যাপ ও এনডিপির প্রতিনিধি। সেখানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে সমর্থন জানানোর সিদ্ধান্ত হয়েছিল জোটের বৈঠকে। 

১৯৯৯ সালের নির্বাচনের আগে বিএনপি চার দলীয় ঐক্যজোট  গঠন করে জামায়াতে ইসলামী, জাতীয় পার্টি (একাংশ) এবং ইসলামী ঐক্যজোটকে নিয়ে। ২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলনে থাকা চারদলীয় জোট কলেবরে বেড়ে ১৮ দলীয় জোট হয়।

বিএনপি ছাড়া সে সময় জোটের শরিকরা ছিল জামায়াতে ইসলামী, ইসলামী ঐক্যজোট, খেলাফত মজলিশ, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (বিজেপি), লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি), কল্যাণ পার্টি, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি (জাগপা), ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি), ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এনডিপি), লেবার পার্টি, ইসলামিক পার্টি, বাংলাদেশ ন্যাপ, ন্যাপ ভাসানী, মুসলিম লীগ, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম, পিপলস লীগ ও ডেমোক্রেটিক লীগ। পরে পর্যায়ক্রমে জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) ও সাম্যবাদী দলের একাংশ এই জোটে যোগ দিলে তা ২০ দলীয় জোটে পরিণত হয়।

২০ দলীয় জোট গঠনের দুই বছরের মাথায় প্রথম জোট ভাঙার আঘাত লাগে। ২০১৪ সালে তৎকালীন জোটের উল্লেখযোগ‌্য নেতা প্রয়াত শেখ শওকত হোসেন নিলুর নেতৃত্বধীন এনপিপি জোট ছেড়ে বেরিয়ে যায়। অভ‌্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে এ ঘটনা ঘটে। তবে এনপিপির তৎকালীন মহাসচিব ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ নিজেকে দলের চেয়ারম্যান ঘোষণা দিয়ে ২০ দলীয়  জোটের সঙ্গে থাকার ঘোষণা দেন। তার সঙ্গে দলটির বড় একটি অংশ রয়ে যায় বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোটে। ফলে সংখ‌্যার দিক দিয়ে অক্ষুন্ন থাকে ২০ দলীয় জোট।

এরপর এনডিপির সেক্রেটারি আলমগীর মজুমদারের নেতৃত্বাধীন একটি অংশ জোট থেকে বের হয়ে যায়। কিন্তু জোটে থেকে যায় এনডিপির চেয়ারম‌্যান গোলাম মুর্ত্তজার নেতৃত্বাধীন অংশ। জোটের আরেক শরিক ন্যাপ ভাসানীর চেয়ারম্যান শেখ আনোয়ারুল হকও একটি অংশ নিয়ে জোট থেকে বেরিয়ে যান। আর দলটির নেতা অ্যাডভোকেট আজহারুল ইসলামকে চেয়ারম্যান করে একটি অংশ থেকে যায় জোটের সঙ্গে।

তবে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট ভাঙার বড় ধাক্কাটি আসে গত বছরের ৭ জানুয়ারিতে, যখন ইসলামী ঐক‌্যজোটের চেয়ারম‌্যান আবদুল লতিফ নেজামী জোট ছেড়ে চলে যান। কিন্তু ইসলামী ঐক্যজোটের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টির সভাপতি অ্যাডভোকেট আবদুর রকিব নিজেকে ইসলামী ঐক্যজোটের নতুন চেয়ারম্যান ঘোষণা করে বলেন, ‘আমরা ২০ দলীয়  জোটের সঙ্গেই আছি। আবদুল লতিফ নেজামী ২০ দল ছেড়েছেন কিন্তু ইসলামী ঐক্যজোট ২০ দলীয় জোটের সঙ্গেই আছে।’

বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের দলগুলোর মধ্যে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে সম্প্রতি ভাগ হয়ে গেছে লেবার পার্টি। যদিও দুটি খণ্ডই ২০ দলীয় জোটের রয়েছে। সর্বশেষে বেরিয়ে যাচ্ছে জেবেল রহমান গানি নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ ন্যাপ ও খন্দকার গোলাম মোর্তজা নেতৃত্বাধীন  এনডিপি।




রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৬ অক্টোবর ২০১৮/রেজা/সাইফ

Walton Laptop
 
     
Marcel
Walton AC