ঢাকা, মঙ্গলবার, ৪ আষাঢ় ১৪২৬, ১৮ জুন ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

চাকরি প্রত্যাশী তরুণ-তরুণীর মিলনমেলা বিপিও সামিটে

মনিরুল হক ফিরোজ : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৪-২২ ৭:১১:২৪ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৪-২২ ৭:১১:২৪ পিএম
Walton AC 10% Discount

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি প্রতিবেদক : রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনাওগাঁও হোটেলের তিতাস রুমের সামনে লম্বা লাইন। সবার হাতেই সিভি। নাম নিবন্ধন করে এক এক করে তিতাস রুমে প্রবেশ করছে। এক চাকরিপ্রার্থীর সঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করতেই চমকে যেতে হয়। ৭টি টেবিলে চাকরি প্রত্যাশী তরুণদের ইন্টারভিউ নেওয়া হচ্ছে। প্রত্যেকটি টেবিলে তিনজন করে ইন্টারভিউ দিচ্ছে। তেমনি একজন খুলনা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে সদ্য পাশ করা শেখ মাসুদ রানা। এখন থাকছেন কলাবাগানে। একটি আইটি কোম্পানিতে চাকরি করে নিজের খরচ যোগাচ্ছে। চাকরির পাশাপাশি মাসুদ রানা নিজেকে তৈরি করছেন চাকরির বাজারের জন্য। নিজের তাগাদা থেকেই জেনেছেন বিপিও সম্মেলন সম্পর্কে। জেনেছেন দুইদিনের সম্মেলন থেকে অন্তত ৮০০ লোক নেবে এই খাতে। তাই ইন্টারভিউয়ের মাধ্যমে নিজেকে যাচাই করতে এসেছে। ‘আইসিটি পড়াশোনার কারণে প্রযুক্তি সেক্টরেই চাকরি করতে চাই। তাই বিপিও সামিটে প্রযুক্তি ক্ষেত্রে চাকরির বর্তমান বাজার সম্পর্কে ধারণা নিতে এসেছি। একই সঙ্গে ‘অন জব স্পট ইন্টারভিউ’ দিতে এসেছি।

রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে দুই দিনব্যাপী ‘বিপিও সামিট বাংলাদেশ ২০১৯’ এর আজ শেষ দিনে তিতাস রুমে আয়োজন করা হয় ‘অন জব স্পট ইন্টারভিউ’। এতে হাজারের বেশি চাকরি প্রত্যাশী তরুণ-তরুণী অংশগ্রহণ করে।

চাকরি প্রত্যাশী তরুণদের ইন্টারভিউ নিচ্ছিলেন এসএসএস সার্ভিস সলিউশন প্রা. লিমিটেডের সহকারী ব্যবস্থাপক (ট্রেনিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট) ফেরদৌস ইফতেখার। অভিনব এ আয়োজন নিয়ে তিনি বলেন, আমরা যোগ্য প্রার্থীদের খুঁজে বের করার অন জব স্পট ইন্টারভিউয়ের আয়োজন করেছি। তরুণরাও এখানে ইন্টারভিউ দিয়ে নিজেদের মধ্যে জড়তা ভেঙে দিতে পারছে। বেশ ভালো সাড়া পাচ্ছেন জানিয়ে ফেরদৌস ইফতেখার জানান, প্রযুক্তির এই সেক্টর নিয়ে তরুণ–তরুণীদের মধ্যে বেশ আগ্রহ রয়েছে।

কথা হয় ঢাকা কলেজের পড়ুয়া মুসা কবিরাজের সঙ্গে। তিনি বেশ কয়েক সেট সিভি প্রিন্ট করে এনেছেন বিপিও প্রতিষ্ঠানগুলোতে দেবার জন্য। মুসা বলেন, আমার এখন একটা চাকরি চাই। শুধু টিউশনি করে টিকে থাকা খুব কষ্টদায়ক। আশা করছি এবার আমি বিপিও খাতে চাকরি পাবো।

মার্স সলিউশন লিমিটেডর ট্রেইনার শম্পা রহমান জানান, আড়াই ঘণ্টায় প্রায় এক শ জনের মতো ইন্টারভিউ নিয়েছি। শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিপিও সেক্টরে কাজ করার ব্যাপক আগ্রহ রয়েছে। বিশেষ করে তরুণীদের সংখ্যা চোখে পড়ার মতো।

এছাড়া সামিটের দ্বিতীয় দিন ২২ এপ্রিল সোমবার সকাল ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত বলরুমে অনুষ্ঠিত হয় ‘ফ্রিলান্সার টু এন্টারপ্রেনার’ শিরোনামে দিনের প্রথম আয়োজন। একই সময় সুরমা হলে অনুষ্ঠিত হয় ‘ব্যাংকিং অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস বিপিও: ইমাজিং রিস্ক ম্যানেজম্যান্ট অ্যান্ড সিকিউরিটি ট্রেন্ডস’ শিরোনামে সেমিনার। বেলকনি হলে সকাল ১১টায় ‘হেলথ্ কেয়ার আউটসোর্সেং’ শিরোনামে সেমিনার। দুপুর ২টার সময় অনুষ্ঠিত হয় দ্বিতীয় দিনের দ্বিতীয় পর্বের আয়োজন। সুরমা হলে অনুষ্ঠিত ‘রুরাল বিপিও: দ্য নিউ হরাইজন অব এমপ্লয়মেন্ট ফর ইয়ং ভিলেজার্স অব বাংলাদেশ’ সেমিনারটি চলে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। একই সময়ে মেঘনা হলে অনুষ্ঠিত হয় ‘অপরচুনিটিজ অ্যান্ড চ্যালেঞ্জেস অব উইমেন ওয়ার্কিং ইন বিপিও’ শিরোনামের সেমিনার। চতুর্থ বিপিও সামিট ২০১৯ এর সর্বশেষ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয় বেলকনি হলে। দুপুর ২টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয় ‘আউটসোর্সিং টেলিকমিউনিকেশন সার্ভিসেস’ সেমিনার। এবং সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকে বলরুমে শুরু হয়েছে বিপিও সামিটের সমাপনী অনুষ্ঠান।  

সরকারের ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের আওতাধীন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তর এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কলসেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিং (বাক্য) এর আয়োজনে এই সামিট অনুষ্ঠিত হয়।
 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/২২ এপ্রিল ২০১৯/ফিরোজ

Walton AC
     
Walton AC
Marcel Fridge