ঢাকা, শনিবার, ২ পৌষ ১৪২৪, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

অসময়ে তরমুজের ভালো ফলন

মুহাম্মদ নূরুজ্জামান : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৯-২৮ ৫:২০:২৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৯-২৮ ৫:২৩:০১ পিএম

মুহাম্মদ নূরুজ্জামান, খুলনা : খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলায় অসময়ে (মৌসুম ছাড়া) তরমুজ চাষে সফলতা পাওয়া গেছে।

মাছের ঘেরের বাঁধে নতুন পদ্ধতির চাষাবাদে এ সফলতা আসে। তরমুজে ছেয়ে গেছে মৎস্য ঘেরের দুই পাড়। উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শুভংকর মন্ডল শখের বসে করেছেন এর চাষ। এখন তিনি মোটা অংকের টাকা লাভের আশা করছেন শখের এ ক্ষেত থেকে।

উপজেলার শোভনা ইউনিয়নের কদমতলা গ্রামের বাসিন্দা শুভংকর মন্ডল। পেশায় তিনি সরকারি চাকুরে। বর্তমানে নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলায় সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত। তার গ্রামের বাড়িতে রয়েছে ১০ বিঘা জমির ওপর মৎস্য ঘের। সেখানে তিনি মাছ চাষের পাশাপাশি ঘেরের চারপাশ জুড়ে করেছেন সবজি চাষ। বরবটি, ঝিঙ্গা, বেগুন, শশা, লাউ ও ঢেড়শসহ বিভিন্ন ফসল রয়েছে সেখানে। এরমধ্যে ব্যতিক্রমী হলো তরমুজের চাষ। অসময়ে হলেও ঘেরের বাঁধের বেশ খানিকটা জায়গাজুড়ে তিনি এ ফসলের চাষ করেছেন। তরমুজের ভালো ফলন হয়েছে। ঘেরের মধ্যে পানির ওপর মাচায় ঝুলছে তরমুজ। যেটি দেখতে অনেকটা লাউয়ের মতো।

শিক্ষা কর্মকর্তা শুভংকর মন্ডলের ভাই দীপংকর মন্ডল এবং ঘেরের কেয়ারটেকার ঠাকুরদাস সরদার বলেন, ‘গেল বছর শখ করে আমরা বাঁধের  ওপর চারটি তরমুজের বীজ রোপণ করেছিলাম। পরে দেখি ওই চার গাছে  ৮/১০টি তরমুজ হয়েছে। পাকার পর কেটে দেখি ভেতরে লাল আর খেতেও মিষ্টি। ওই সময়ই আমরা ঠিক করেছিলাম পরের বছরে বেশি করে তরমুজ লাগাব। তাই এ বছরে প্রায় ২০০ গাছ লাগিয়েছি, ফলনও ভালো হয়েছে।’

তারা জানান, ইতোমধ্যে ব্যাপারিরা মণ প্রতি ২২০০ টাকা করে দাম বলেছেন। চাষাবাদে বেশ ব্যয় হলেও ভালো লাভ হবে বলে আশা করছেন তারা।

এ প্রসঙ্গে মূল উদ্যোক্তা শুভংকর মন্ডল বলেন, ‘বছরে প্রায় এক লাখ টাকা চুক্তিতে ১০ বিঘা জমি নিয়ে সেখানে মাছ ও সবজি চাষ শুরু করি। তরমুজের চাষ শখের বশে করেছিলাম। বাঁশ, নেট, সুতা-তার কিনতে অনেক টাকা ব্যয় হয়েছে। তারপরও তরমুজের ফলন ভালো হওয়ায় আমি খুব খুশি।’

ডুমুরিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম বলেন, তরমুজ হলো কুমড়া জাতীয় ফসল। বার মাসেই এর চাষ করা সম্ভব। কিন্তু এ অঞ্চলে রবি মৌসুমে তরমুজের চাষ হয়ে থাকে। তরমুজ পুষ্টিকর খাবার। বৃষ্টি মৌসুমে তরমুজ উৎপাদন হওয়ায় এটি মডেল হতে পারে।

আগামীতে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করে ডুমুরিয়া উপজেলায় আরও বেশি এ ফসল চাষের উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

 

 

রাইজিংবিডি/খুলনা/২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭/মুহাম্মদ নূরুজ্জামান/বকুল

Walton
 
   
Marcel