ঢাকা, শনিবার, ৬ শ্রাবণ ১৪২৫, ২১ জুলাই ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

ব্যায়ামের আগে ও পরের সেরা খাবার

মনিরুল হক ফিরোজ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৭-০৫-০৮ ৫:৫৮:২৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৫-০৮ ৫:৫৮:২৯ পিএম
প্রতীকী ছবি

দেহঘড়ি ডেস্ক : ব্যায়ামের জন্য প্রস্তুত হওয়াটা প্রায়ই ব্যায়ামের কঠিন একটা অংশ। কেননা এর জন্য পরিকল্পনার প্রয়োজন পড়ে, ব্যায়াম করার জন্য জায়গা, সঠিক পোশাক নির্বাচন, ভালো জুতা এবং পর্যাপ্ত শক্তির প্রয়োজন পড়ে।

৭-মিনিটের ফিটনেস রুটিন তৈরির জন্য আলোচিত ব্যায়াম বিশেষজ্ঞ ক্রিস জর্ডানের পদ্ধতিটি জিমে স্বল্প সময়ে ফিটনেস তৈরিতে অনেকেই সাহায্য করেছে। তিনি বলেন, ব্যায়াম করা আগে শরীরকে যথাযথভাবে জ্বালানি সরবরাহ করাটা গুরুত্বপূর্ণ।

কয়েক মিনিটের মধ্যে যেহেতু শরীরের ক্যালোরি পোড়াতে হয় এবং পরবর্তীতে ক্লান্ত অনুভব হয়, তাই তিনি দুটি নির্দিষ্ট ধরনের খাবারের পরামর্শ দিয়েছেন।

প্রথমত, জিমে যাওয়ার এক থেকে দুই ঘণ্টা আগে খাবার খাওয়া উচিত এবং তা নিম্ন গ্লাইসেমিক সূচক স্কোরের খাবার, যা আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা খুব বেশি বাড়িয়ে বা কমিয়ে না দিয়ে স্থিতিশীল রেখে শক্তির মাত্রা অটল রাখতে সাহায্য করবে। এসব খাবার হতে পারে একটি আপেল, কিছু আখরোট বা কাজুবাদাম, কম চর্বিযুক্ত দই, হুমমুস (মধ্য প্রাচ্যের জনপ্রিয় একটি খাবার) এবং গাজর, গমের পাউরুটি অথবা সেদ্ধ ডিম।

কিছু গবেষণায় বলা হয়েছে, কম গ্লাইসেমিক খাবারের অন্যান্য উপকারিতাও থাকতে পারে যেমন আপনার শরীরের চর্বিকে আরো দক্ষতার সঙ্গে মিলিয়ে যেতে সাহায্য করা।

দ্বিতীয় খাবারটি যেকোনো সময়ই খাওয়া যাবে এবং কার্বোহাইড্রেট ও প্রোটিন থাকা উচিত। জিমের পর এক্ষেত্রে জর্ডানের প্রিয় খাবার হচ্ছে, কম চর্বিযুক্ত চকলেট দুধ। তিনি বলেন, চকলেট দুধ একটি আদর্শ খাবার, এটি কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, তরল এবং ইলেকট্রোলাইট সরবরাহ করে শরীরে।

জর্ডান বলেন, এসব খাবার সারাদিন আপনাকে আরো শক্তি যোগাতে সাহায্য করবে এবং শরীরের চর্বি হ্রাস করে পেশী গঠনে সহায়তা করবে।

তথ্যসূত্র : ইনসাইডার




রাইজিংবিডি/ঢাকা/৮ মে ২০১৭/ফিরোজ

Walton Laptop