ঢাকা, শনিবার, ৬ কার্তিক ১৪২৪, ২১ অক্টোবর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

সুস্বাস্থ্যের বিজ্ঞানসম্মত ১০ উপায়

মোস্তাফিজুর রহমান রুবেল : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৮-১১ ২:৩৮:২১ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৮-১১ ২:৩৮:২১ পিএম
প্রতীকী ছবি

মোস্তাফিজুর রহমান রুবেল : আপনাকে সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হওয়ার জন্য অবশ্যই কিছু বিষয় সম্পর্কে সচেতন হতে হবে। এগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো- আপনি কি খাচ্ছেন, কিভাবে ব্যায়াম করছেন এবং কিভাবে আপনি অবসর সময় কাটাচ্ছেন তার ওপর। দীর্ঘজীবি হওয়ার বিজ্ঞানসম্মত ১০ উপায় নিয়ে এ প্রতিবেদন।

ধূমপান থেকে বিরত থাকুন : যতদ্রুত সম্ভব ধূমপান ছেড়ে দিন। নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অব মেডিসিনে ২০১৩ সালে প্রকাশিত একটি গবেষণার তথ্যমতে, ধূমপান আপনার জীবন থেকে কয়েক ডজন বছর কেড়ে নিতে পারে। তাই ধূমপান যদি আজ থেকেই ছেড়ে দেন তাহলে এর চেয়ে সুসংবাদ আপনার জন্য আর কি হতে পারে। হয়তো আপনি এই একটা বদভ্যাস ছেড়ে দেয়ার কারণে আপনার ৮০তম জন্মদিন ৮০টা মোমবাতি জ্বালিয়ে উদযাপন করতে পারবেন।

নিয়মিত মাছ ও মুরগির মাংস খান : বোস্টন মেডিক্যাল সেন্টারের মেডিসিন এবং জেরিয়াকট্রিস বিভাগের প্রফেসর টমাস পার্ল বলেন, যতটা সম্ভব গরুর মাংস এবং লাল মাংস পরিহার করুন। লাল মাংস শুধু ক্যানসারের ঝুঁকির সঙ্গে যুক্ত হয়, চর্বিযুক্ত লাল মাংস আপনার মস্তিষ্কেরও ক্ষতি করতে পারে। তিনি আমিষের চাহিদা মেটাতে মাছ এবং মুরগির মাংসের ওপর জোর দেয়ার পরামর্শ দেন। তবে কোনো অনুষ্ঠান উপলক্ষে অথবা সপ্তাহে দু একদিন লাল মাংস খাওয়া যেতে পারে।

ভারি কিছু উত্তোলন করার অভ্যাস করুন : নিয়মিত ভারি জিনিস উত্তোলন করে শরীরের শক্তি ব্যয় করার চেষ্টা করুন। নিয়মিত ডাম্বেল দিয়ে ব্যায়াম করার অভ্যাসের মাধ্যমে আপনি ১২ রকমের শারীরিক উপকার পেতে পারেন। এটি আপনার পেশী এবং হাড় মজবুত করতে সহায়তা করবে। আপনার মন প্রফুল্ল এবং সতেজ রাখার জন্যও এর ভূমিকা কম নয়। আর্কাইভ অব মেডিসিনে প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, যেসব নারীদের স্মৃতিশক্তির সমস্যা আছে তারা সপ্তাহে দুই অথবা তিনবার ভারি জিনিস উত্তোলনের এই ব্যায়াম করলে সমস্যা অনেকটাই কমে যায়।

বন্ধুদের সঙ্গে মাঝে মাঝেই আড্ডা দিন : নিয়মিত ব্যায়ামই আপনার জন্য যথেষ্ট নয়, মানসিকভাবে সক্রিয় থাকতে বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন নিয়মিত। তাদের সঙ্গে আড্ডা দিন, মাঝে মাঝে কোথাও ঘুরতে যান। পায়ের ব্যায়ামের সবচেয়ে উত্তম উপায় হলো, নিয়মিত বিকেলে বন্ধু কিংবা প্রতিবেশীর সঙ্গে হাঁটতে যাওয়া। এতে আপনার মন এবং শরীর দুটোই ভালো থাকবে। বন্ধুদের সঙ্গে গল্প করা, একে অপরকে সাহায্য করা আপনার মন এবং শরীর সতেজ রাখার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

দৈনন্দিন খাবার সম্পর্কে সচেতন হোন : আপনার দৈহিক ওজন কমানোর জন্য ইতোমধ্যে যারা ওজন কমানোয় সফল হয়েছেন তাদের পরামর্শ গ্রহণ করুন। ডা. পার্লস বলেন, ‘পেটের মেদবৃদ্ধি হার্ট অ্যাটাক, ক্যানসার, ডায়াবেটিস, হার্ট ব্লকের মতো জটিল রোগের কারণ হতে পারে।’

শখের কাজগুলোকে গুরুত্ব দিন : মানুষের মন সবসময় নতুন কিছু শিখতে চায়। আর এই চাওয়ার আগ্রহ আপনার মন এবং দেহকে সতেজ রাখার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এই আগ্রহ আপনাকে চঞ্চল রাখতে সহায়তা করবে। আপনার পেশীর মতোই আপনি আপনার ব্রেইনকে নতুন নতুন চ্যালেঞ্জ গ্রহণে ব্যবহার করুন। ২০১৩ সালের একটি গবেষণায় কিছু সুস্বাস্থ্যের অধিকারী বয়স্কদের তাদের শখ সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে তারা বলেন, সপ্তাহে প্রায় ১৬ ঘণ্টা সময় তারা ফটোগ্রাফির পিছনে ব্যয় করেন। আপনাকে যদি জিজ্ঞাস করা হয়, আপনি ভালো নেই কেনো? অবশ্যই আপনি আপনার পছন্দের কাজটি করতে না পারাকে কারণ হিসেব দেখাবেন। তাই সুস্থ থাকার জন্য আপনার পছন্দকে গুরুত্ব দিন।

প্রচুর পরিমাণে বেরি জাতীয় ফল খান : শরীর ও মন সতেজ রাখার জন্য ব্লুবেরি ও স্ট্রবেরির ভূমিকা অসামান্য। সাম্প্রতিক একটি গবেষণার তথ্যমতে, এ জাতীয় খাবার বৃদ্ধ বয়সেও স্মৃতিশক্তি ধরে রাখতে সহায়তা করে। অন্যান্য সাধারণ ফলের চেয়ে বেরি জাতীয় ফল মস্তিষের জন্য অনেক বেশি উপকারী।

চাপ মুক্ত থাকুন : আপনি যতই চিন্তা মুক্ত থাকতে চান না কেন, আপনি সম্পূর্ণ চিন্তা মুক্ত কখনই থাকতে পারবেন না। কারণ মানুষের স্বাভাবিক জীবন চিন্তার সঙ্গে জড়িত। কিন্তু সুস্থ থাকার জন্য আপনাকে অবশ্যই দুশ্চিন্তা থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করতে হবে। প্রখ্যাত স্নায়ু বিশেষজ্ঞ লিসা ফিল্ডম্যান ব্যারাট বলেন, ‘অতিরিক্ত মানসিক চাপ মস্তিষ্কে বিষক্রিয়া সৃষ্টি করে, যা পরবর্তীতে মস্তিষ্কের গুরুত্বপূর্ণ অংশ নষ্ট করে ফেলে।’ সব কিছু সম্পর্কে ইতিবাচক ধারণা পোষনের পরামর্শ দেন ব্যারাট।

মদ্যপান থেকে বিরত থাকুন : আপনি যদি মদ্যপায়ী হয়ে থাকেন, তাহলে মনস্থির করুন যে মদ্যপান ছেড়ে দিবেন। কারণ এটা আপনার শরীরের জন্য কখনই মঙ্গলকর নয়। এক গবেষণায় দেখা গেছে, ১৪ থেকে ২১ বছর বয়সে যারা মদ্যপান করে, তাদের স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এখন পর্যন্ত এমন কোনো সমীক্ষা দেখা যায়নি যা মদ্যপানের অনুমিত দেয়, সুতরাং মদ্যপান এড়িয়ে চলুন।

সঠিক সিদ্ধান্ত নিন : ডা. পার্ল বলেন, একটু একটু করে প্রতিদিনের সিদ্ধান্তগুলো মানুষের জীবনে অনেক বড় প্রভাব ফেলে। আপনার প্রতিদিনের সিদ্ধান্তগুলোর মধ্যে ভালো লাগাকে প্রাধান্য দিন। সঠিক সিদ্ধান্ত আপনার সামনের দিনগুলোকে সোনালি ও সুন্দর করতে পারে।

তথ্যসূত্র : রিডার্স ডাইজেস্ট



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১১ আগস্ট ২০১৭/ফিরোজ/তারা

Walton
 
   
Marcel