ঢাকা, মঙ্গলবার, ২ কার্তিক ১৪২৪, ১৭ অক্টোবর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

সিস্টোলিক রক্তচাপ কমানোর সহজ পাঁচ উপায়

এস এম গল্প ইকবাল : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-০৯-২২ ১০:৫০:১২ এএম     ||     আপডেট: ২০১৭-০৯-২২ ২:১১:০৭ পিএম
প্রতীকী ছবি

দেহঘড়ি ডেস্ক : সাম্প্রতিক বছরগুলোতে চিকিৎসকরা সিস্টোলিক রক্তচাপ কমানোর জীবনরক্ষাকারী সুবিধাসমূহের ওপর বেশি করে নজর দিয়েছেন। তারা রক্তচাপের সর্ব্বোচ্চ সংখ্যা (সিস্টোলিক রক্তচাপ) এবং সর্বনিম্ন সংখ্যা (ডায়াস্টোলিক রক্তচাপ, যা ৫৫ বছরের পর স্বাভাবিকভাবে হ্রাস পায়) নিয়ে গবেষণা করেন।

২০১৫ সালে এক বিশেষ গবেষণায় দেখা যায়, স্বেচ্ছাকর্মীদের মধ্যে যারা সিস্টোলিক রক্তচাপ কমিয়ে ১২০ মিলিমিটার মার্কারিতে এনেছে তাদের, যাদের সিস্টোলিক রক্তচাপ ১৪০ মিলিমিটার মার্কারি ছিল তাদের তুলনায়, হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি ২৫ শতাংশ এবং কার্ডিওভাসকুলার কারণজনিত মৃত্যুর ঝুঁকি ৪৩ শতাংশ কম ছিল।

উল্লেখযোগ্যভাবে এবং দীর্ঘসময়ের জন্য সিস্টোলিক রক্তচাপ কমানোর সর্বোত্তম নন-মেডিসিনাল বা অওষুধীয় পন্থা হচ্ছে- ওজন কমানো, সোডিয়াম কম খাওয়া, বেশি করে ব্যায়াম করা এবং ধূমপান বর্জন করা। আপনার চিকিৎসক আপনাকে ওষুধ সেবনের পরামর্শও দিতে পারেন। কিন্তু আপনার লক্ষ্যে পৌঁছতে আপনার যদি অতিরিক্ত উপায় অবলম্বনের প্রয়োজন হয়, তাহলে নিচের পদ্ধতিগুলো অনুসরণ করতে পারেন। এসব পদ্ধতি ডাক্তারের অফিসে কিংবা বাইরে আপনার সিস্টোলিক রক্তচাপ কমাবে এবং কিছুক্ষেত্রে এসবের ফলাফল স্বল্পস্থায়ী হলেও অস্বাভাবিক উচ্চ রক্তচাপ দূর করবে।

১. সঠিকভাবে বসুন
আপনার রক্তচাপ মাপতে নার্স আপনাকে এক্সামিনেশন টেবিলে হাত রাখতে বলবেন। নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি ল্যাঙ্গোন মেডিক্যাল সেন্টারের জোয়ান এইচ টিশ সেন্টার ফর উইমেন’স হেলথের মেডিক্যাল পরিচালক এবং এমডি নিকা গোল্ডবার্গ বলেন, ‘আপনি যখন আপনার পা-কে ড্যাঙ্গলিং পজিশন বা দোলায়মান বা ঝুলন্ত অবস্থানে রেখে বসবেন, তখন আপনি বসা এবং দাঁড়ানো অবস্থায় থাকবেন। এটি রক্তচাপ রিডিংয়ে প্রভাব ফেলবে, কারণ দাঁড়ানো এবং সমতলে শায়িত অবস্থায় থাকলে রক্তচাপে তারতম্য হয়।’ এর পরিবর্তে, আপনি একটি চেয়ারে পিঠ সোজা করে বসুন এবং পা মেঝেতে সমতলে রাখুন।

২. বাহুকে অবলম্বন দিন
রক্তচাপ রিডিংয়ের সময় আপনার বাহু যদি খুব ওপরে বা নিচে থাকে, তাহলে রক্ত প্রবাহ বজায় রাখতে হার্টের পক্ষে পাম্প করা কঠিন হতে পারে এবং এ কারণে রক্তচাপ বেড়ে যেতে পারে। গোল্ডবার্গ বলেন, আপনার বাহুর অবস্থান হার্ট লেভেল বরাবর থাকা উচিত এবং বাহুকে টেবিলে কিংবা যিনি রক্তচাপ মাপছেন তার আশ্রয়ে সমতলে রাখা উচিত।

৩. ধীরে ধীরে শ্বাস নিন
জাপানে ২১,০০০ বয়স্ক মানুষের (কারো স্বাভাবিক রক্তচাপ এবং কারো উচ্চ রক্তচাপ ছিল) ওপর গবেষণা চালিয়ে দেখা যায়, যেসব রোগীরা ডাক্তারের অপেক্ষায় থাকার সময় ৩০ সেকেন্ডে ৬ বার দীর্ঘশ্বাস নিয়েছে তাদের, যারা ৩০ সেকেন্ডে দীর্ঘশ্বাস নেয়নি তাদের তুলনায়, সিস্টোলিক রক্তচাপ তিন পয়েন্টের বেশি কমে যায়। প্রতিদিন দীর্ঘশ্বাস সেশনে অভ্যস্ত হলে এ ফলাফল বৃদ্ধি পেতে পারে। অন্য এক গবেষণায় পাওয়া যায়, যেসব রোগীরা ধীরে ধীরে শ্বাস নিয়েছে (কেউ কেউ ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অনুমোদিত ডিভাইস রেসপারেট ব্যবহার করেছেন) তাদের আট বা নয় সপ্তাহ শেষে সংগতিপূর্ণ নিম্নতর রক্তচাপ ছিল।

৪. ডার্ক চকলেট খান
৮৫৬ জন সুস্থ অংশগ্রহণকারীদের ওপর চালানো গবেষণার আলোকে বলা যায়, ফ্ল্যাভ্যানল সমৃদ্ধ কোকো পণ্য হাইপারটেনশন বা উচ্চ রক্তচাপ থাকা লোকদের সিস্টোলিক রক্তচাপ চার পয়েন্ট কমিয়ে দিতে পারে। এ ফলাফল দেখতে আপনাকে প্রতিদিন ৩০ মিলিগ্রাম করে ফ্ল্যাভ্যানল অন্তত দুই সপ্তাহ খেতে হবে। দুঃখের বিষয় হচ্ছে, অধিকাংশ উৎপাদক তাদের পণ্যে ফ্ল্যাভ্যানল দেয় না, কিন্তু সাধারণত ডার্ক চকলেট এবং প্রাকৃতিক চিনিমুক্ত কোকো পাউডারে মিল্ক চকলেট ও ডাচ প্রসেসড কোকো পাউডারের তুলনায় বেশি পরিমাণে ফ্ল্যাভ্যানল থাকে।

৫. হ্যান্ড গ্রিপ ব্যায়াম করুন
২০১৪ সালে সম্পাদিত ছোট্ট একটি গবেষণায় দেখা যায়, যেসব সুস্থ বয়স্ক মানুষ এক সপ্তাহে তিনবার করে ১৫ মিনিটের সাধারণ হ্যান্ড গ্রিপ ব্যায়াম দশ সপ্তাহ পর্যন্ত করেন তাদের সিস্টোলিক রক্তচাপ প্রায় দশ পয়েন্ট কমে যায়। আপনি সুলভ হ্যান্ড গ্রিপার অনলাইনে বা স্থানীয় স্পোর্টিং গুডস স্টোরে পেতে পারেন।

তথ্যসূত্র : রিডার্স ডাইজেস্ট



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭/ফিরোজ

Walton
 
   
Marcel