ঢাকা, শনিবার, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ১৮ নভেম্বর ২০১৭
Risingbd
সর্বশেষ:

গ্যাংগলিয়ন সিস্ট সম্পর্কে ১০ তথ্য

এস এম গল্প ইকবাল : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৭-১১-১০ ৮:১৯:৩২ এএম     ||     আপডেট: ২০১৭-১১-১০ ১:১০:৪১ পিএম
প্রতীকী ছবি

এস এম গল্প ইকবাল : আপনার হাতের কবজিতে কোনো লাম্প বা পিণ্ড দেখা দিলে তা গ্যাংগলিয়ন সিস্ট হতে পারে। গ্যাংগলিয়ন সিস্ট সম্পর্কে রিডার্স ডাইজেস্টের জন্য একটি প্রতিবেদন তৈরি করেছেন লিসা লোম্বার্ডি। এ প্রতিবেদনটি রাইজিংবিডির পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

* গ্যাংগলিয়ন সিস্ট কি?
গত গ্রীষ্মের একদিন, আমি ঘুম থেকে জেগে ওঠে দেখলাম- আমার হাতের কবজিতে একটি লাম্প বা পিণ্ড। আমার কাছে এটি অদ্ভুত মনে হলো। আমি বেশ দুশ্চিন্তাগ্রস্ত ও আতঙ্কগ্রস্ত হলাম। এটি কি ক্যানসার হতে পারে?

এ লাম্প শুরু হয়েছিল মার্বেল আকারে, কিন্তু কিছুদিনের মধ্যে এটি সুপারবলের মতো বড় হয়ে যায়। আমি একজন অর্থোপেডিস্টের কাছে গেলাম। অর্থোপেডিস্ট লাম্পের ওপর চাপ দিলেন, আমার কবজি কয়েকবার বাঁকালেন এবং আমাকে বললেন যে এটি গ্যাংগলিয়ন সিস্ট- একটি বিনাইন বা অনপকারী তরলভর্তি লাম্প, যা জয়েন্ট বা টেন্ডনের ওপর হয়। আমি উদ্বেগমুক্ত হলাম এবং বিস্মিত হলাম যে, এসব অবিশ্বাস্য সাধারণ বৃদ্ধি বা লাম্প সম্পর্কে আমি খুব সামান্যই জানতাম।

আপনি কিভাবে নিশ্চিতভাবে গ্যাংগলিয়ন সিস্ট নির্ণয় ও চিকিৎসা করবেন তা জানতে আমরা এ সম্পর্কে মেডিক্যাল ডাক্তার ডেনিস কার্ডোনকে জিজ্ঞেস করেছিলাম। তিনি নিউ ইয়র্কের এনওয়াইইউ ল্যাঙ্গোন মেডিক্যাল সেন্টারের প্রাইমারি কেয়ার স্পোর্টস মেডিসিনের প্রধান।

* গ্যাংগলিয়ন সিস্ট শক্ত ও ছোট হতে পারে, আবার খুব একটা ছোট নাও হতে পারে
আপনি হয়তো মনে করতে পারেন যে, গ্যাংগলিয়ন সিস্ট নরম হতে পারে। এসব সিস্ট গেলাটিনাস ফ্লুইড বা সাইনোভিয়াল ফ্লুইডে (যা জয়েন্টকে পিচ্ছিল ও মসৃণ করে) পূর্ণ থাকলেও তারা প্রায়ক্ষেত্রে অপ্রত্যাশিতভাবে শক্ত থাকে। ডা. কার্ডোন বলেন, ‘গ্যাংগলিয়ন শক্ত অনুভূত হয়, আপনি যখন এতে চাপ দেবেন- তখন বুঝতে পারবেন যে এটিতে দৃঢ় তরল আছে। গ্যাংগলিয়ন সিস্টের অন্যান্য লক্ষণের মধ্যে আছে: প্রায়শ এটিতে পারফেক্ট গোলাকার প্রান্ত থাকবে এবং এটিকে চেপে বা ঠেলে সামান্য নড়ানো যাবে। এটি ছোট হতে পারে, আবার খুব একটা ছোট নাও হতে পারে।’

* গ্যাংগলিয়ন সিস্টের ওপর আলো উজ্জ্বল হয়
আপনার লাম্পের ওপর ফ্ল্যাশলাইটের আলো ফেলুন। যদি এটির ওপর আলো উজ্জ্বল হয় বা জ্বলজ্বল করে, তাহলে জানবেন যে এটি গ্যাংগলিয়ন সিস্ট (এ ব্যাপারে যথেষ্ট নিশ্চিত থাকতে পারেন, আমার প্রথম ডাক্তার আমার ওপর এ পরীক্ষাটি করেছিল)।

কেন এ পরীক্ষা করা হয়? কেন গ্যাংগলিয়ন সিস্টের ওপর আলো উজ্জ্বল হয়? এর কারণ সাধারণ: সলিড মাস বা কঠিন পুঞ্জের লাম্পের ওপর আলো উজ্জ্বল হয় না, কিন্তু তরলপূর্ণ লাম্পের ওপর আলো জ্বলজ্বল করে বা উজ্জ্বল হয়।

* গ্যাংগলিয়ন সিস্ট প্রায় যেকোনো জায়গায় হতে পারে
আমেরিকান অ্যাকাডেমি অব অর্থোপেডিক সার্জনসের মতে, ‘৬০ থেকে ৭০ শতাংশ গ্যাংগলিয়ন সিস্টের বিকাশ হয় কবজির সামনে বা পিছনে।’ অন্যান্য কমন জায়গাসমূহ হচ্ছে: চরণ, আঙুল এবং যেকোনো জয়েন্টের নিকট। ডা. কার্ডোন বলেন, আপনার জয়েন্ট বা টেন্ডনে যদি ইনজুরি হয়ে থাকে, তাহলে সেখানে গ্যাংগলিয়ন সিস্ট বিকশিত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

* গ্যাংগলিয়ন সিস্টের আকার পরিবর্তিত হতে পারে
গ্যাংগলিয়ন সিস্ট বড় হয়ে আবার ছোট হয়ে যেতে পারে, এর কারণ হচ্ছে- সিস্টের ভেতর তরলের মাত্রার পরিবর্তন হয়। এমনকি এসব সিস্ট নিজ থেকে চলে যেতেও পারে, আবার নাও যেতে পারে। ডা. কার্ডোন বলেন, ‘কখনো কখনো গ্যাংগলিয়ন সিস্ট এমনি এমনি লিক হতে পারে বা ফেটে যেতে পারে অথবা শরীর পুনরায় তরল শুষে নেবে এবং এটি চলে গিয়ে আবার তরলপূর্ণ হয়ে ফিরে আসতে পারে।’ এটিকে শরীরের স্বাতন্ত্র্যসূচক অদ্ভুত ঘটনাসমূহের একটি দৃষ্টান্ত হিসেবে বিবেচনা করতে পারেন।

 



* গ্যাংগলিয়ন সিস্ট বৃদ্ধ মহিলাদের লক্ষণ নয়

গ্যাংগলিয়ন সিস্ট এমন একটি সমস্যা যা বৃদ্ধ মহিলাদের লক্ষণ নয়। প্রকৃতপক্ষে এটি যুবতীদের বেশি হয়ে থাকে, বিশেষ করে যাদের বয়স ২০ থেকে ৪০ বছর। সুপার-ফিট লোক এবং ছেলেমেয়েদের মধ্যও এটি বিকশিত হতে পারে (ডা. কার্ডোন ১৮ বছর বয়স্ক এক বাস্কেটবল খেলোয়াড়ের চিকিৎসা করেছেন, যার একটি হাঁটুতে গ্যাংগলিয়ন সিস্ট হয়েছিল)। পুরুষদের গ্যাংগলিয়ন সিস্ট হওয়ার সম্ভাবনা কম।

* গ্যাংগলিয়ন সিস্ট ক্যানসারে রূপ নেয় না
গ্যাংগলিয়ন সিস্ট কি ক্যানসারে রূপ নিতে পারে? এ সম্পর্কে ডা. কার্ডোন বলেন, ‘সবচেয়ে বড় ভুল ধারণা হল- গ্যাংগলিয়ন সিস্ট ক্যানসার জাতীয় কোনো কিছুতে রূপ নিতে পারে। কিন্তু তারা সবসময় সম্পূর্ণরূপে বিনাইন বা অনপকারী।’ সচরাচর এটি ডায়াগনোসিসের জন্য ইমেজিং টেস্ট প্রয়োজন হয় না, তবে কখনো কখনো ডাক্তাররা জয়েন্ট সুস্থ আছে কিনা নিশ্চিত হতে এক্স-রে নিয়ে থাকে। এটি নির্ণয়ে কোনো সন্দেহ থাকলে এমআরআই বা আল্ট্রাসাউন্ড করতে পারেন। ডা. কার্ডোন বলেন, যখন লোকেরা ‘মাস’ (পিণ্ড) শব্দটি শুনে, তখন তারা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ে এবং ১০০% নিশ্চিত হতে চায়, তাই কোনো সন্দেহ থাকলে বা গভীর সিস্ট হলে আমরা এমআরআই বা আল্ট্রাসাউন্ড করে থাকি।

* গ্যাংগলিয়ন সিস্টকে বাইবেল সিস্ট বলা হতো
কয়েক প্রজন্ম আগে গ্যাংগলিয়ন সিস্টের চিকিৎসা করা হতো বাইবেল বা ডিকশনারি দিয়ে বাড়ি মেরে। এই পুরোনো চিকিৎসায় কি কোনো উপকার পাওয়া যায়? এ প্রসঙ্গে ডা. কার্ডোন বলেন, আপনি যদি গ্যাংগলিয়ন সিস্টকে আঘাত করেন, তাহলে এটি সাময়িকভাবে চলে যেতে পারে, কিন্তু আমি আপনাকে এটি না করতে পরামর্শ দেব- কারণ এতে জয়েন্টে আঘাত বা ক্ষতি হতে পারে।

* গ্যাংগলিয়ন সিস্টের চিকিৎসা বেছে নিতে পারেন
গ্যাংগলিয়ন সিস্ট আপনাকে ব্যথা না দিলে বা কোনো সমস্যা সৃষ্টি না করলে কোনো কিছু করবেন না। ডা. কার্ডোন বলেন, ‘যদি আপনার সিস্ট নার্ভের ওপর চাপ না দেয় এবং ব্যথা না দেয় বা মাসল ফাংশনকে বাধাগ্রস্ত না করে, তাহলে এটির চিকিৎসার জন্য কোনো মেডিক্যাল কারণ নেই।’ কিন্তু এটি আপনাকে ব্যথা দিলে অথবা আপনি যদি লাম্প পছন্দ না করেন, তাহলে সিস্টের তরল বের করে ফেলতে পারেন। এই চিকিৎসার ক্ষেত্রে, আপনার ডাক্তার সিস্টের ভেতর সুই বিদ্ধ করে তরল নিষ্কাশন করে ফেলবে। কিন্তু দুঃখের বিষয় হচ্ছে, সিস্ট আবারও তরলপূর্ণ হয়ে যায়। এর সমাধান হচ্ছে, আবারও তরল বের করে ফেলা। ডা. কার্ডোন বলেন, ‘কবজির গ্যাংগলিয়ন সিস্টের ক্ষেত্রে প্রমাণ আছে যে, দ্বিতীয় বা তৃতীয় বার তরল বের করার পর এটি পুনরায় তরলপূর্ণ হওয়ার সম্ভাবনা কম।’ আপনার লাম্প বারবার ফিরে আসলে, অথবা এটি বিশ্রী স্পটে পরিণত হলে সার্জারি করতে পারেন এবং সার্জারি হচ্ছে স্থায়ী সমাধান।

* গ্যাংগলিয়ন সিস্ট পুনরায় ফিরে আসতে পারে
সত্য হচ্ছে, আপনার একবার গ্যাংগলিয়ন সিস্ট হয়ে থাকলে, এটি আবারও ফিরে আসার প্রবণতা থাকবে। কিন্তু এটি নিয়ে ঘাবড়ানোর কিছু নেই। মনে রাখবেন, গ্যাংগলিয়ন সিস্ট বিনাইন বা অনপকারী এবং এটিতে রান্নার যন্ত্রপাতি দিয়ে বাড়ি মারবেন না।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১০ নভেম্বর ২০১৭/ফিরোজ

Walton
 
   
Marcel