ঢাকা, শুক্রবার, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১৬ নভেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

ম্যাচ যখন গতিময় আক্রমণের

শেখ আল মুমিন শুভ : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৭-১১ ৪:০১:০২ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৭-১১ ৬:০০:৪০ পিএম

শেখ আল মুমিন শুভ : ‘দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’ হিসেবে পরিচিত বিশ্বকাপ ফুটবলের এবারের আসরের পর্দা নামতে আর মাত্র তিন ম্যাচ বাকি। গতকালের প্রথম সেমিফাইনালে বেলজিয়ামকে হারিয়ে প্রথম দল হিসেবে ফাইনালে উঠে গেছে ১৯৯৮ বিশ্বকাপ জয়ী ফ্রান্স। যার ধারাবাহিকতায় আজ দ্বিতীয় সেমিফাইনালে ইউরোপিয়ান দুই পাওয়ার হাউস ইংল্যান্ড ও ক্রোয়েশিয়া মুখোমুখি হবে ১৫ তারিখের মস্কোতে ফ্রান্সের প্রতিপক্ষ হবার লড়াইয়ে। তারকা ভরপুর ও গতিময় আক্রমণে সজ্জিত হাইভোল্টেজ এই ম্যাচে পাদপ্রদীপের আলো থাকবে দুই দলের দুই অধিনায়ক এবং প্রানভোমরা লুকা মদ্রিচ ও হ্যারি কেন এর উপর। এই দুই জনের উপর অনেকখানি নির্ভর করছে যে মস্কোর ফাইনালে ফ্রান্সের প্রতিপক্ষ হিসেবে কারা খেলবে।

এবারের বিশ্বকাপ শিরোপা জয়ের লক্ষ নিয়ে ইংলিশরা যে স্বপ্ন দেখছে তার মূলে রয়েছেন দলের অধিনায়ক হ্যারি কেন। তাকে দলের প্রাণভোমরা বললে খুব একটা ভুল হবে না। বিশ্বকাপে একেবারে সামনে থেকে দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন টটেনহ্যাম হটস্পারের এই স্ট্রাইকার। দূর্দান্ত গতির সাথে বল কন্ট্রোলের আশ্চর্যময় ক্ষমতার মিশ্রনে কেইনকে করে তুলেছে এক পরিপূর্ন স্ট্রাইকার। সর্বশেষ ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩০ গোলের পাশাপাশি ২টি এসিস্ট এসেছে কেনের পা থেকে । কেন তার পারফরমেন্স বিশ্বকাপেও ধরে রেখেছে। ইংল্যান্ড দলের মোট এগারো গোলের মধ্যে ছয়টিই এসেছে কেনের পা থেকে। ছয় গোলের সুবাদে বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার ‘গোল্ডেন বুট’ যে হ্যারি কেনই পাচ্ছেন তা অনেকটা নিশ্চিত করেই বলা যায়। কেন তার বিশ্বকাপ মিশনে সাথে পাচ্ছেন দেলে আলি , স্টারলিং, রাশফোর্ড এর মতো একগাদা তরুণ নির্ভরশীল খেলোয়াড়। যারা যেকোন পরিস্থিতিতে খেলার মোড় পাল্টে দেয়ার ক্ষমতা রাখেন।



শরনার্থী শিশু থেকে ক্রোয়েশিয়া ফুটবল দলের অধিনায়ক হওয়া লুকা মদ্রিচের ফুটবলে উত্থান যে কোন সিনেমার কাহিনীকেও হার মানাবে। ফুটবল মাঠে আক্রমণ করা বা আক্রমণে বল যোগান দেয়া উভয় ক্ষেত্রেই ক্রোয়েশিয়ান অধিনায়ক মদ্রিচ খুব একটা পিছিয়ে নেই। রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে হ্যাটট্রিক চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা জিততে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল মদ্রিচের। ক্লাব ফুটবলের পারফরম্যান্স জাতীয় দলের হয়ে ধরে রেখেছেন মদ্রিচ। বিশ্বকাপে একেবারে সামনে থেকে দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন তিনি। মাঠে তার গতি, স্কিল, পাসিং একুরেসি সবকিছু খুবই প্রশংসনীয়। পেনাল্টি বা ফ্রি- কিকেও রয়েছে চোখ ধাঁধানো দক্ষতা। মদ্রিচের সাথে রাকিটিচ, মানজুকিচ নামগুলো যেকোন দলের বিপক্ষে ত্রাশ হয়ে প্রতিপক্ষের রক্ষণ ভাঙ্গার ক্ষমতা রাখে।

এখন পর্যন্ত আটবারের মুখোমুখি হয়েছে ইংল্যান্ড ও ক্রোয়েশিয়া। যার মধ্যে চারবার জিতেছে ইংল্যান্ড ও দুইবার ক্রোয়েশিয়া। বাকি দুই ম্যাচ ড্র হয়েছে। তবে বিশ্বকাপে এই প্রথমবার একে অপরের মুখোমুখি দল দুটি। নিজেদের প্রথম বিশ্বকাপ লড়াইয়ে শেষ হাসি কার মুখে থাকবে? কেন নাকি মদ্রিচের? উওর জানার জন্যে ফুটবলপ্রেমীদের অপেক্ষা করতে হবে গভীর রাত পর্যন্ত।




রাইজিংবিডি/সিলেট/১১ জুলাই ২০১৮/ শেখ আল মুমিন শুভ/আমিনুল

Walton Laptop
 
     
Marcel
Walton AC