ঢাকা, রবিবার, ৮ বৈশাখ ১৪২৬, ২১ এপ্রিল ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

মাইস্পেস থেকে ১২ বছরের তথ্য মুছে গেছে

মোখলেছুর রহমান : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৩-১৯ ১০:২৫:১৩ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৩-১৯ ১০:২৫:১৩ পিএম

মোখলেছুর রহমান : সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম মাইস্পেস-এর ২০১৬ সালের আগে আপলোড হওয়া সমস্ত তথ্য খোয়া গেছে। এক সময়ের শক্তিশালী এই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটি বর্তমানে নিজের অস্তিত্ব ধরে রাখতে হিমশিম খাচ্ছে। এর মধ্যেই ব্যবহারকারীদের তথ্য খোয়া যাওয়ার ঘটনাটি সামনে আসল। যার মধ্যে রয়েছে ব্যবহারকারীদের লাখ লাখ গান, ছবি এবং ভিডিও।

২০০৩ সালে যাত্রা শুরু করেছিল এই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটি। ২০০৩ থেকে ২০১৫ সাল- অর্থাৎ ১২ বছরের আপলোডকৃত তথ্য মুছে থেকে মাইস্পেস থেকে।

কোম্পানিটি এই তথ্য হারিয়ে যাওয়ার পিছনে ত্রুটিপূর্ণ সার্ভার মাইগ্রেশনকেই দোষারোপ করছে। আর এই ঘটনাটি তাদের নজরে আসে এক বছর আগে যখন একজন ব্যবহারকারী তার আপলোড করা পুরোনো ডাটাগুলো আর দেখতে পারছিল না। কোম্পানিটি স্বীকার করেছে যে, প্ল্যাটফর্মটি থেকে ২০১৬ সালের আগে আপলোড হওয়া সমস্ত গান স্থায়ীভাবে মুছে গেছে। ভবিষ্যতে ব্যবহারকারীদের আপলোডকৃত ফাইলগুলো স্থায়ীভাবে সুরক্ষিত রাখার জন্য ব্যাকআপ সেবা ব্যবহার করা হবে বলে জানিয়েছে কোম্পানিটি।

মাইস্পেস থেকে ৫০ মিলিয়নেরও বেশি মিউজিক ট্র্যাক হারিয়ে গেছে, যার মধ্যে রয়েছে এক সময়কার জনপ্রিয় সব গান।

যদিও ফেসবুকের মতো নতুন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো আসার পর অনেক ব্যবহারকারীই মাইস্পেস ছেড়ে চলে গেছেন। তবে এখনো এই সাইটটি একটি উল্লেখযোগ্য ব্যবহারকারী বেস বজায় রেখেছে যার বেশিরভাগই সংগীতশিল্পী। শুরু থেকেই বিশাল ফ্যান-ফলোয়ারস তৈরি হয়ে যাওয়ায় তারা আর এই প্ল্যাটফর্মটি ছেড়ে যায়নি।

যদিও প্রথম দিকে মাইস্পেস দাবি করেছিল যে, ব্যবহারকারীদের আপলোকৃত তথ্য মুছে যাওয়ার এই ঘটনাটি ক্ষণস্থায়ী, আবার সেগুলো ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে। তবে পরবর্তীতে তারা প্রকাশ্যে স্বীকার করে ব্যবহারকারীদের এই সমস্ত তথ্য চিরস্থায়ীভাবেই মুছে গেছে, এগুলো আর ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয়।

সাইটটির শীর্ষে এখন একটি ব্যানার রেখেছে মাইস্পেস যেখানে লেখা রয়েছে- সার্ভার মাইগ্রেশন প্রজেক্টের ফলস্বরূপ তিন বছরেরও বেশি আগে আপলোড হওয়া যেকোনো ছবি, ভিডিও এবং অডিও ফাইল আর খুঁজে নাও পাওয়া যেতে পারে। এই অসুবিধার জন্য মাইস্পেস ক্ষমাপ্রার্থী এবং এখন থেকে ব্যবহারকারীদের ব্যাকআপ কপি রাখার পরামর্শ দিচ্ছে তারা।

তথ্যসূত্র : দ্য গার্ডিয়ান



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৯ মার্চ ২০১৯/ফিরোজ

Walton Laptop
     
Walton AC
Marcel Fridge