ঢাকা, বুধবার, ৩ আশ্বিন ১৪২৫, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

‘মাশরাফি ভাই যোগ দিয়ে দলের অভ্যন্তরীণ পরিবেশ পরিবর্তন করেছিলেন’

ইয়াসিন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০৮-১৬ ৪:২৮:২০ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০৮-২৩ ৭:২৫:৩০ পিএম

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ৪৩ রানে অলআউট হয়ে যে সফর শুরু হয়েছিল সেই সফর বাংলাদেশ শেষ করে মুখ ভরা হাসি দিয়ে। মাঝে ছিল পতনের দুঃস্মৃতি, উত্থানের দারুণ গল্প। সাদা পোশাকে ব্যর্থতায় আর রঙিন পোশাকে সাফল্যে বাংলাদেশ ইতি টেনেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের। টেস্টে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি সিরিজ- দুটোই জিতেছে বাংলাদেশ। দেশের বাইরে এত বড় সাফল্য খুব কমই আছে বাংলাদেশের। অরাধ্য অনেক সাফল্য এবার ধরা দিয়েছে। আবার হাত ফসকে বেরিয়ে গেছে নিশ্চিত অর্জন। দুইয়ে মিলিয়ে এবারের ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জ এবং আমেরিকা সফর অম্লমধুর।

যে সাফল্য বাংলাদেশ মাঠে পেয়েছে তার কৃতিত্ব ক্রিকেটারদের। কিন্তু মাঠের বাইরে একজন ছিলেন পুরো আলাদা। দলকে এক সুঁতোয় গেথে রাখার কাজটা করেছিলেন ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি। টেস্ট সিরিজে ভরাডুবির পর বাংলাদেশ দল ছিল ছন্নছড়া! সেই দলটাকে ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জে পা দিয়েই পাল্টে দেন মাশরাফি। পুরো দলকে চাঙ্গা করেন। তার আবির্ভাবে দলটা হয়ে উঠে অনন্য।

পুরো সফরে ব্যাট হাতে দ্যুতি ছড়িয়েছেন তামিম ইকবাল। দলের মতো সাদা পোশাকেও তামিম ছিলেন ব্যর্থ। তবে রঙিন পোশাকে নিজের জাত আরেকবার চিনিয়েছেন। টেস্ট সিরিজের পর সীমিত পরিসরে যেভাবে বাংলাদেশ দল ফিরে আসল তার পুরো কৃতিত্বটা মাশরাফিকে দিয়েছেন দেশসেরা ওপেনার।

 



আজ মিরপুরে তামিম গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে বলেন, ‘টেস্ট সিরিজের পর মানসিকভাবে আমরা ডাউন ছিলাম। আমাদের জন্য ওয়ানডে সিরিজটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল এবং আমরা জানতাম ওয়ানডে ফরম্যাটে আমরা সবচেয়ে বেশি স্বাচ্ছ্বন্দ্যবোধ করি। আমাদের ঘুরে দাঁড়ানোর পেছনে মাশরাফি ভাইয়ের বড় অবদান ছিল। দলে যোগ দেওয়ার পর সব পাল্টে গেল। তিনি হয়তো অন্যের হয়ে ব্যাটিং ও বোলিং করে দেননি। কিন্তু তিনি দলের অভ্যন্তরীণ পরিবেশ পরিবর্তন করতে অনেকে সাহায্য করেছেন। একটা বাজে টেস্ট সিরিজের পর খেলোয়াড়দের মধ্যে অনেক নেতিবাচক মনোভাব থাকে, পরিস্কার মনোভাব থাকে না। তিনি যেই ইতিবাচক মনোভাবটা নিয়ে এসেছেন, সেটা সবার মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। ওয়ানডেতে সাফল্যের জন্য এটা বড় একটা কারণ ছিল।’

মাশরাফির হাত ধরে প্রথম ওয়ানডেতেই জয় তুলে নেয় বাংলাদেশ। সফরের প্রথম জয় তুলে বাংলাদেশ হয়ে উঠে আত্মবিশ্বাসী। সেই আত্মবিশ্বাসে শেষ পর্যন্ত সিরিজ জিতলেও দ্বিতীয় ম্যাচে বাংলাদেশ হেরে যায় মাত্র ৩ রানে। শেষটাতে আবার জয় পায় টাইগাররা। এরপর টি-টোয়েন্টি সিরিজ পিছিয়ে পড়ে জিতে নেয় ২-১ ব্যবধানে। সব মিলিয়ে রঙিন পোশাকে রঙিন ছিল তামিম, সাকিবদের পারফরম্যান্স।

সীমিত পরিসরের পারফরম্যান্স নিয়ে উচ্ছ্বসিত তামিম বলেন, ‘যেভাবে ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচটা খেললাম, কঠিন উইকেটে আমরা হাল ছেড়ে দেইনি। কষ্ট করে উইকেটে ছিলাম। সেটার ফল পেয়েছি আমরা। এরপর স্বভাবতই দলের আত্মবিশ্বাস বেড়ে যায়। আমার কাছে মনে হয় এমন টেস্ট সিরিজের পর ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে ফিরে আসা বিশেষ পারফরম্যান্স ছিল।’

 



সীমিত পরিসরে নিজেদের পারফরম্যান্সে তামিম বেশ সন্তুষ্ট। ঠিক ততটুকুই অসন্তুষ্ট টেস্ট সিরিজের পারফরম্যান্স নিয়ে। ব্যর্থতার জন্য কোনো অজুহাত সামনে আনতে চাননি তামিম। তার মতে, খেলোয়াড়দের ব্যর্থতার কারণে সাদা পোশাকে এমন ফল। তবে দেশসেরা ওপেনারের বিশ্বাস, ওয়ানডের মতো টেস্টেও দ্রুত সাফল্য ধারায় চলে আসবে বাংলাদেশ।



রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৬ আগস্ট ২০১৮/ইয়াসিন/আমিনুল

Walton Laptop
 
     
Walton