ঢাকা, শনিবার, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১৭ নভেম্বর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

ফেবারিট বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠত্ব দেখানোর পালা

ইয়াসিন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-১০-২১ ৯:২০:০৬ এএম     ||     আপডেট: ২০১৮-১০-২১ ২:০৯:৫৩ পিএম

ইয়াসিন হাসান : একটা সময় ছিল যখন জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে জয় পাওয়া মানেই বড় কিছু। পত্রিকার প্রথম পাতায় লাল-সবুজের জয়গান। টিভির স্ক্রলে ব্রেকিং নিউজ কিংবা পুরো খবর জুড়ে টাইগার বন্দনা।

দিন পাল্টেছে। সুদিন চলছে বাংলাদেশ ক্রিকেটে। এখন জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে জয় পাওয়া ‘ডাল-ভাত’। তাইতো রোববার থেকে শুরু হতে যাওয়া সিরিজ নিয়ে আহামরি কোনো উত্তেজনা নেই ক্রিকেট পাড়ায়। ক্রিকেট পাড়ার উত্তেজনা টের পাওয়া যায় টিকিট বিক্রির খবর শুনলেই।



আজ থেকে শুরু হয়েছে টিকিট বিক্রি। কিন্তু টিকিটের প্রতি নূন্যতম আগ্রহ নেই কারো! আগে লাইন ধরে যেত টিকিট পাওয়ার জন্য। চলত লাঠিচার্জ। এখন মাইকে ডেকেও ক্রিকেটপ্রেমিদের আকৃষ্ট করতে পারছে না সংশ্লিষ্টরা।

এমন পরিস্থিতির জন্য তো ‘দায়ী’ বাংলাদেশের ক্রিকেট সাফল্য। ওয়ানডেতে শুধু ধারাবাহিক না শ্রেষ্ঠত্ব দেখাচ্ছে মাশরাফির দল। ২০১৫ বিশ্বকাপের পর থেকে টানা তিন বছর বাংলাদেশ ক্রিকেট এগিয়েছে দুর্দান্ত। এসময়ে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশের সাফল্য অভাবনীয়। শেষ ১০ ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে কোনো ম্যাচ হারেনি বাংলাদেশ। হারার মতো কোনো পরিস্থিতিও তৈরি হয়নি। মোদ্দাকথা, বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠত্বে স্রেফ উড়ে গেছে জিম্বাবুয়ে। ঘরের মাঠে প্রতিটি ওয়ানডে, প্রতিটি সিরিজ জিতেছে টাইগাররা। তাইতো আসন্ন সিরিজ নিয়ে আগ্রহ খুবই কম। বলার অপেক্ষা রাখে না, তিন ম্যাচ সিরিজে বাংলাদেশই ফেবারিট।



‘অনেক দিন পর ঘরের মাটিতে খেলতে নামছি। সবাই আত্মবিশ্বাসী। সবাই নিজের সেরা প্রস্তুতি নিয়েছে। সেরা পারফরম্যান্স দেওয়ার জন্য যা যা দরকার সেটাই করেছে। সবাই যেটা চাচ্ছে, সেটা যেন করতে পারে সেদিকেই সবার নজর। আশা করছি সেরা ক্রিকেট খেলেই ফল আমাদের পক্ষে নিয়ে আসতে পারব।’- বলেছেন মাশরাফি।

বাংলাদেশকে ফেবারাটি না ভাবার কোনো উপায়ও নেই। একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে জিম্বাবুয়ে হেরেছে বিশাল ব্যবধানে। সেটাও বিসিবি একাদশের বিপক্ষে। জাতীয় দলের তিন ক্রিকেটার খেলেছিলেন প্রস্তুতি ম্যাচ। কিন্তু তাদের কোনো ভূমিকাই ছিল না জয়ে। ইবাদতের পাঁচ উইকেট আর সৌম্যর সেঞ্চুরিতে হার দিয়ে বাংলাদেশ সফর শুরু করে জিম্বাবুয়ে। তাইতো মূল মঞ্চে বাংলাদেশকে ফেবারিট মানছেন সবাই। এছাড়া বাংলাদেশ সফরের আগে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরেও হোয়াইটওয়াশ হয়েছে তারা। তবুও বাংলাদেশের বিপক্ষে ভালো করতে মুখিয়ে জিম্বাবুয়ে।



‘জিম্বাবুয়ে এখানে বাংলাদেশের বিপক্ষে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলেছে। আমরা বাংলাদেশের খেলোয়াড় ও কন্ডিশন সম্পর্কে অন্য যেকোনো দেশের চেয়ে বেশি অবগত। সে কারণে দলগতভাবে ভালো করার সুযোগ আছে আমাদের সামনে। আশা করছি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ একটি সিরিজ হবে।’- বলেছেন হ্যামিল্টন মাসাকাদজা।

তবে আসন্ন সিরিজ আকর্ষণীয় হলে হতেও পারে। বাংলাদেশের সেরা দুই তারকা সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবাল নেই। তাদেরকে ছাড়া কিছুটা হলেও স্বস্তিতে প্রতিপক্ষ শিবির। তাদের না থাকার সুযোগটি যথাযোগ্য ভাবে কাজে লাগাতে পারলে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতেও পারে টেলর, রাজা, চিগাম্বুরাররা।



এ বছর ফেব্রুয়ারিতে দেশের মাটিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সর্বশেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছিল বাংলাদেশ। আটমাস পর এবার জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে আবার দেশের মাটিতে আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। শুরুটা ভালো করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ টাইগার অধিনায়ক।

‘চ্যালেঞ্জটা প্রতি ম্যাচে থাকে। ওদের হালকাভাবে নিচ্ছি না। অন্য দলের সাথে যেই চ্যালেঞ্জটা নিয়ে খেলেছি, গত এশিয়া কাপে যেভাবে খেলেছি, সেটাই থাকবে। ওদের প্রায় সব সিনিয়র খেলোয়াড়রা ফিরে এসেছে। বাংলাদেশে ওদের রেকর্ডও ভালো। তাই আমাদের ১০০ ভাগ দিয়েই খেলতে হবে।’- যোগ করেন মাশরাফি



রাইজিংবিডি/ঢাকা/২১ অক্টোবর ২০১৮/ইয়াসিন

Walton Laptop
 
     
Marcel
Walton AC