ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ৯ ১৪২৭ ||  ০৬ সফর ১৪৪২

এফবিসিসিআই নির্বাচন

সম্মিলিত গণতান্ত্রিক পরিষদের নিরষ্কুশ জয়

নাসির উদ্দিন || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০২:৩৬, ১৫ মে ২০১৭   আপডেট: ০৫:২২, ৩১ আগস্ট ২০২০
সম্মিলিত গণতান্ত্রিক পরিষদের নিরষ্কুশ জয়

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক : ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) ২০১৭-১৯ মেয়াদের নির্বাচনে সম্মিলিত গণতান্ত্রিক পরিষদ নিরষ্কুশ জয় লাভ করেছে।

পরিচালকের ১৬ পদেই জয়ী হয়েছে সম্মিলিত গণতান্ত্রিক পরিষদ। এ ছাড়া ব্যবসায়ী ঐক্য ফোরাম থেকে দুইজন প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।

এর মধ্যে নির্বাচনে সর্বোচ্চ ১ হাজার ২০৬টি ভোট পেয়েছেন খন্দকার রুহুল আমিন। দ্বিতীয় স্থানে থাকা আবু মোতালেব পেয়েছেন ১ হাজার ১৯৫ ভোট। তৃতীয় স্থানে থাকা নাজিম উদ্দিন পেয়েছেন ১ হাজার ১৪৫ ভোট। ১ হাজার ১৪১ ভোট পেয়ে চতুর্থ স্থান অধিকার করেছেন শফিকুল ইসলাম ভরসা। পঞ্চম স্থানে থাকা মুনতাকিম আশরাফ পেয়েছেন ১ হাজার ১০৫ ভোট। আর ১ হাজার ৭৭ ভোট পেয়ে ষষ্ঠ হয়েছেন শমী কায়সার।

এ ছাড়া নির্বাচিতদের মধ্যে রাশেদুল হোসাইন চৌধুরী রনি ভোট পেয়েছেন ১ হাজার ৫২, হাবিবুল্লাহ ডন পেয়েছেন ১ হাজার ৩৪, সাফকাত হায়দার ১ হাজার ১৭ ভোট, ড. কাজী এরতেজা হাসান পেয়েছেন ১ হাজার ১ ভোট, হেলেনা জাহাঙ্গীর পেয়েছেন ৯৮৪ ভোট, আমজাদ হোসাইন পেয়েছেন ৯৭৭ ভোট, নিজামুদ্দিন রাজেশ পেয়েছেন ৯৭৬ ভোট, হাফেজ হারুন পেয়েছেন ৯৭৪ ভোট, এসএম জাহাঙ্গীর হোসাইন পেয়েছেন ৯৬৫ ভোট, আবুল আয়েছ খান পেয়েছেন ৯৬২ ভোট, আবু নাছের পেয়েছেন ৯২৮ ভোট এবং খন্দকার মঈনুর রহমান জুয়েল পেয়েছেন ৯২৩টি ভোট।

এদের মধ্যে ন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন অব স্মল অ্যান্ড কটেজ ইন্ডাস্ট্রিজ অব বাংলাদেশ (নাসিব) এর হেলেনা জাহাঙ্গীর ও ল্যান্ড ডেভেলপারস অ্যাসোসিয়েশনের ড. কাজী এরতেজা হাসান ব্যবসায়ী ঐক্য ফোরামের ব্যানারে নির্বাচন করে জয় লাভ করেছেন।

এর আগে রোববার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে চলে এফবিসিসিআই নির্বাচনের ভোট গ্রহণ।

ভোট গণনা শেষে রাতে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেন নির্বাচন বোর্ডের চেয়ারম্যান সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ মো. আলী আশরাফ।

এফবিসিসিআইয়ের ১ হাজার ৯০৫ জন ভোটারের মধ্যে নির্বাচনে ভোট দেওয়ার যোগ্য ছিলেন ১ হাজার ৮৯৮ জন। এর মধ্যে ১ হাজার ৬৬৯ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

নিয়মানুযায়ী, এবার এফবিসিসিআইয়ের ৬০ পরিচালক পদের মধ্যে চেম্বার ও অ্যাসোসিয়েশন গ্রুপ থেকে ১৮টি করে মোট ৩৬টি পরিচালক পদে সরাসরি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাকি ২৪টি পদে সরকার মনোনয়ন দেবে, যার ১২টি চেম্বার ও ১২টি অ্যাসোসিয়েশন থেকে।

তবে সমঝোতার মাধ্যমে চেম্বার গ্রুপ থেকে সরকার সমর্থক প্যানেলের ১৮ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ফলে নির্বাচনে ৬০ পরিচালক পদের মধ্যে ১৮টি পদে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আগামীকাল পরিচালকদের ভোটে এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি, প্রথম সহসভাপতি ও সহসভাপতি নির্বাচিত হবেন। ১৭ মে পরিচালক পদের বিপরীতে আপিল করা যাবে। আর ২০ মে ঘোষণা করা হবে চূড়ান্ত ফলাফল।




রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৫ মে ২০১৭/নাসির/উজ্জল

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়