ঢাকা, রবিবার, ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৩১ মে ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

করোনার প্রভাবে অর্থনৈতিক গতিশীলতা থেমে গেছে: প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৪-০৭ ১০:২৮:০৭ এএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৪-১০ ৯:২৩:৫১ এএম

বিশ্বের করোনাভাইরাস পরিস্থিতির ভয়াবহতার কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও এর প্রভাব পড়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক যে এই করোনাভাইরাসের কারণে সবকিছু স্থবির হয়ে আছে। যার প্রভাব বাংলাদেশে এসেও পড়েছে এবং পড়াটা স্বাভাবিক। 

মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) সকালে গণভবন থেকে দেশের করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে চট্টগ্রাম এবং সিলেট বিভাগের ১৫ জেলার প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সকালে সূচনা বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন।

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যের শুরুতে সংক্ষেপে বাংলাদেশের উন্নয়নের সার্বিক চিত্র তুলে ধরেন। তিনি বলেন, করোনাভাইরাস বিশ্বব্যাপী প্রলয় সৃষ্টি করেছে। এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক যে এই করোনা ভাইরাসের কারণে সবকিছু স্থবির হয়ে আছে। যার প্রভাব বাংলাদেশে এসেও পড়েছে এবং পড়াটা স্বাভাবিক।  যার প্রভাবে বিশ্বের ২০২টা দেশ ভুক্তভোগী। এটা প্রতিনয়ত বাড়ছে।  সেই অবস্থায় আমরা শুরু থেকে চেষ্টা করেছি, যেন এর প্রভাবে মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। তবে আমরা যদি সারা বিশ্বের অবস্থা দেখি এবং অন্যান্য দেশ থেকে অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করি, তাহলে আমাদের দেশেও এই এপ্রিল মাসে ধাক্কাটা আসার কথা। এরকমই একটা আলামত পাওয়া যাচ্ছে। এ ধরনের কিছু প্রতিবেদনও আমরা দেখতে পাচ্ছি। কাজেই সেই অবস্থায় আমাদের সচেতন থাকতে হবে, যাতে এর প্রভাবে আমাদের ক্ষতিটা কম হয়।

করোনার প্রভাবে অর্থনৈতিক স্থবিরতার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অর্থনৈতিক-সামাজিকভাবে সবক্ষেত্রে স্থবিরতা এসে গেছে। কাজেই অর্থনৈতিক যে গতিশীলতা আমরা সৃষ্টি করতে পেরেছিলাম সেটাও কিন্তু থেমে গেছে। এটা শুধু আমাদের দেশে না, সারা বিশ্বব্যাপী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর দুর্ভিক্ষ হয়েছিল, নানা রোগের প্রদুর্ভাব দেখা দিয়েছিল, ফলে কোটি কোটি লোক মারা যায়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরেও আমরা সেই একই অবস্থা দেখি। হিসাব করে দেখা যায় যে- ১৭২০, ১৮২০ আবার ২০২০ -প্রতিবারই এরকম একটা ধাক্কা আসে। এই অবস্থা আমাদের মোকাবিলা করতে, দেশের মানুষের জানমাল রক্ষা করে অর্থনৈতিক গতিশীলতা অব্যাহত রাখতে হবে। যেহেতু এখন বিশ্বব্যাপী এমন ঘটনা ঘটেছে, সেখানে উন্নত দেশগুলোও হিমশিম খাচ্ছে।

করোনায় দেশের বাইরে অনেক বাংলাদেশি মৃত্যুবরণ করেছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এটা অত্যন্ত দুখজনক আমাদের জন্য। যারা মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের আত্মার শান্তি ও মাগফেরাত কামনা করছি। 

** এপ্রিলে করোনার সংক্রমণ ব্যাপক হতে পারে : প্রধানমন্ত্রী

** ‘হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা না পাওয়া দুঃখজনক’


ঢাকা/এসএম