RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ১৫ ১৪২৭ ||  ১২ সফর ১৪৪২

ক্রাইস্টচার্চের সেই হামলাকারীর দোষ স্বীকার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০২:১৯, ২৬ মার্চ ২০২০   আপডেট: ০৫:২২, ৩১ আগস্ট ২০২০
ক্রাইস্টচার্চের সেই হামলাকারীর দোষ স্বীকার

এক বছর আগে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের মসজিদে বন্দুকধারীর হামলায় ৫০ জন নিহত হওয়ার ঘটনায় সন্দেহভাজন হামলাকারী ব্রেন্টন টারান্ট (২৯) তার দোষ স্বীকার করেছেন।

এছাড়া তিনি আরও ৪০ জনের হত্যার চেষ্টা এবং একটি সন্ত্রাসবাদের অভিযোগও স্বীকার করেছেন।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ)  ক্রাইস্টচার্চ হাইকোর্টে সংক্ষিপ্ত শুনানিতে তিনি এ কথা স্বীকার করেছেন।

এর আগে গত বছর জুনের দিকে বিচার চলাকালীন আদালতে তিনি অভিযোগগুলো অস্বীকার করেন। 

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে নিউজিল্যান্ড লকডাউন অবস্থায় রয়েছে। তাই আদালত কর্তৃপক্ষ আদালত কার্যক্রম সীমিত করেছেন। অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথ ওয়েলস থেকে আসা কোনো জনসাধারণকে শুনানিতে উপস্থিত থাকতে দেননি।  টারান্টের আইনজীবীরা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

শুধু হামলা করা দুটি মসজিদের ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের একজন প্রতিনিধিকে শুনানিতে অংশ নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল।

বিচারপতি ক্যামেরন মান্ডার বলেন, ‘বর্তমানে করোনাভাইরাসের জন্য আদালত কর্তৃপক্ষ তাদের কার্যক্রম সীমিত করেছেন। তাই ক্ষতিগ্রস্তরা এবং তাদের পরিবার আদালতকক্ষে উপস্থিত হওয়ার অনুমতি পাননি।  এটা দুঃখজনক যে, যখন অপরাধী তার দোষ স্বীকার করল এবং আদালত দোষী সাব্যস্ত করল তখন ক্ষতিগ্রস্তরা এবং তাদের পরিবার তা দেখতে পেলেন না।’

বিচারপতি মান্ডার আরো বলেন, ‘আদালত তার স্বাভাবিক কাজকর্মে যখন ফিরে আসবে এবং ক্ষতিগ্রস্তরা এবং তাদের পরিবার আদালতে ব্যক্তিগতভাবে থাকতে পারবে তখন আসামিকে সাজা দেওয়ার বিষয়টি আসবে। ১ মে পর্যন্ত টারান্টকে কারাগারে থাকতে হবে।’

আল নূর মসজিদে হামলায় স্ত্রী হুসনাকে হারানো ফরিদ আহমেদ বলেন, ‘অপরাধী সঠিক শাস্তি পেলে যারা প্রিয়জন হারিয়েছেন তারা স্বস্তি পাবেন। আমি সব সময় চাইতাম অপরাধী শাস্তি পাক। তবে এখন আমি খুশি যে, অপরাধী তার দোষ স্বীকার করেছেন।’

২০১৯ সালের ১৫ই মার্চ শুক্রবার জুম্মার নামাজ চলাকালীন আল নূর মসজিদ এবং ক্রাইস্টচার্চে লিনউড ইসলামিক সেন্টারে সংগঠিত সন্ত্রাসী গণ গুলিবর্ষণের ঘটনা। এই গুলিবর্ষণ নিউজিল্যান্ডের ইতিহাসে সবচেয়ে মারাত্মক সন্ত্রাসবাদী হামলা। এতে প্রায় ৫০ জন নিহত হয় ও কমপক্ষে ৫০ জনের মত গুরুতরভাবে আহত হয়। অভিযুক্ত অপরাধী, অস্ট্রেলিয়ান ব্রেন্টন ট্যারেন্টকে গ্রেপ্তার করা হয় এবং হত্যার অভিযোগ আনা হয়। সন্দেহভাজন ওই ব্যক্তি সামাজিক যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম ফেসবুকে আক্রমণের দৃশ্য সরাসরি সম্প্রচার করেন।

সূত্র : বিবিসি

 

ঢাকা/জেনিস

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়