Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ১৩ জুন ২০২১ ||  জ্যৈষ্ঠ ৩০ ১৪২৮ ||  ০১ জিলক্বদ ১৪৪২

ঝুঁকি নিয়ে মিনি ট্রাকে ঢাকা ছাড়ছেন নিম্নবিত্তরা

নিজস্ব প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৬:৪৬, ১৩ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ০৮:২০, ১৩ এপ্রিল ২০২১
ঝুঁকি নিয়ে মিনি ট্রাকে ঢাকা ছাড়ছেন নিম্নবিত্তরা

রাস্তা, ফুটপাত কিংবা বস্তিতে থাকা যায়। কিন্তু ক্ষুধার জ্বালা সহ্য করা যায় না। লকডাউনের মধ্যে খাবারের নিরাপত্তহীনতায় হাজার হাজার নিম্ন আয়ের মানুষ ছুটছে গ্রামের দিকে। ছুটছেন ক্ষণে ক্ষণে, বিড়ম্বনা, লাIঞ্ছনা আর হয়রানিকে সঙ্গী করে। জীবনের ঝুঁকি তো রয়েছেই।

এসব নিম্ন আয়ের মানুষের যাত্রার একমাত্র অবলম্বন মিনি ট্রাক। যে ট্রাকগুলো মহাসড়কে চলতে গিয়ে নিজেই অন্যের সমস্যার কারণ। সেই ছোট ছোট ট্রাকে ১৫/২০ জন গাদাগাদি করে যেতে হচ্ছে। তবে ভাড়া গুনতে হচ্ছে কয়েকগুন। বিশেষ করে এসব মিনি ট্রাক, নরসিংদী থেকে কলা, কুমিল্লা থেকে সবজি, মাছ নিয়ে রাজধানী ঢাকায় আসে। ফেরার পথে যাত্রী বোঝাই করে নিয়ে যাচ্ছে। এসব মিনি ট্রাকে ঢাকা থেকে কুমিল্লা জনপ্রতি ভাড়া নেয়া হচ্ছে ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা। মুন্সিগঞ্জ, নরসিংদীর ভাড়া হচ্ছে ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা।

সোমবার (১২ এপ্রিল) সন্ধ্যা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত দেখা যায়, রাজধানীর যাত্রাবাড়ি, কাজলা, শনির আখড়ার প্রতিটি মোড়ে অপেক্ষমান যাত্রীদের নিয়ে ছুটছে মিনি ট্রাকগুলো। দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে ক্লান্ত হয়ে যাত্রীরা উপায়ান্তর না পেয়ে এসব মিনি ট্রাকে উঠে পড়ছেন।

নরসিংদী থেকে ঢাকা শহরে এসে খন্ডকালিন রিক্সা চালান মনির হোসেন। টানা ১৫ দিন চালানোর পর আর পারেন না। মাঝে ১৫/২০ দিন বিশ্রাম নিতে হয়। টানা ১৫ দিনে ইনকামও হয়ে বেশ ভালো। প্রায় ১০ হাজার টাকা জমেছে। তাই নিয়ে মনির হোসেন বাড়ি যাচ্ছেন। আবার ১৫ দিন পর ঢাকা ফিরবেন। যে করেই হোক বাড়ি যেতে হবে। তাই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মিনি ট্রাকে করেই বাড়ি ফিরছেন।

কাজলায় ভ্যানগাড়িতে করে বেল বিক্রি করেন জাহাঙ্গীর আলম। একাই ঢাকা থাকেন তিনি। ব্যবসার অবস্থা ভালো না। তাই তো সর্বাত্মক লকডাউনের  আগেই গ্রামের বাড়ি কুমিল্লায় যাচ্ছেন তিনি। তিনি বলেন, ‘ব্যবসার অবস্থা ভালো না। দুই দিনে আড়াই হাজার টাকা লস হয়েছে। আর ব্যবসা করে পোষাচ্ছে না। তাই বাড়ি যাচ্ছি। যাবো যে ভাড়ার টাকাটাও নাই। অনেকে ট্রাকে করে ফিরছে। দেখি আমিও তাদের মতো চলে যাবো।’

একটি মিনি ট্রাকের হেলপার আল আমিন বলেন, ‘কুমিল্লা থেকে ট্রাক ভর্তি মাছ নিয়ে বিকেলে যাত্রাবাড়ি মাছের আড়তে এসেছিলাম। এখন ট্রাক খালিই যাচ্ছে। অনেকে ট্রাকে করেই যেতে চায়। একটু বাড়তি ইনকামের আশায় তাদের নিয়ে নিলাম।’

এদিকে ১৪ এপ্রিল থেকে দেশে সর্বাত্মক লকডাউন শুরু হচ্ছে। এর আগে অনেকে যে যেভাবে পারছেন রাজধানী ছাড়ছেন। কেউ যাচ্ছেন মাইক্রো, প্রাইভেটকারে আবার কেউ অ্যাম্বুলেন্সে করেও যাচ্ছেন।

এদিকে রাজধানীতে গণপরিবহন সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চলার নির্দেশনা থাকলেও এদিন দেখা যায়, রাতেও অনেক গণপরিবহন অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই করে চলছে।

মামুন/আমিনুল

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়