ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৮ কার্তিক ১৪২৬, ১৪ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে: প্রধানমন্ত্রী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১০-২০ ৮:১১:২৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১০-২১ ৮:১৪:০৮ এএম

সন্ত্রাস, দুর্নীতি, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, কোনো ধরনের অন্যায় বরদাশত করা হবে না।

যুবলীগের সপ্তম কংগ্রেস উপলক্ষে রোববার রাতে গণভবনে সংগঠনটির শীর্ষ নেতারা সাক্ষাৎ করতে গেলে বৈঠকের আগে প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতির বিরুদ্ধে এই অবস্থানের কথা জানান। 

শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর দেশ উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। দেশের মানুষ উন্নত জীবন পায় সেটি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল। আমরা সেই অনুযায়ী রাষ্ট্র পরিচালনা করছি। বাংলাদেশকে দারিদ্র্যমুক্ত করবো। যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে তাতে দেশ দ্রুত দারিদ্র্যমুক্ত হবে।’

‘আমরা সন্ত্রাস দুর্নীতি জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখব। অপরাধীর কোনো ক্ষমা নেই। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। কারণ আমরা যখন দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি, তখন স্বাভাবিকভাবে কিছু মানুষের ভেতরে লোভের সৃষ্টি হয়। এতে সমাজটাকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যায়। সেজন্য অন্যায় অবিচার কখনো বরদাশত করা হবে না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সবাই ভালো থাকুক, স্বাবলম্বী হোক- এটা আমরা চাই। কিন্তু অন্যায়ভাবে কেউ যদি কিছু করে তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া একান্ত বলে অপিরহার্য বলে মনে করি।

‘যখন একটি পরিবর্তন আসে কিছু মানুষ হঠাৎ করে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়ে যায়। আর কিছু মানুষ গরীব থেকে যায়। এই আয় বৈষম্য যাতে না থাকে সেদিকে দৃষ্টি রেখে এগোচ্ছে সরকার। গ্রামের তৃণমূলের একজন মানুষও যেন ভালো থাকে মানুষের সেই সার্বিক অর্থনৈতিক অগ্রগতিই আমাদের লক্ষ্য।’

দেশের বাজেটের আকার প্রায় সাতগুণ বৃদ্ধি হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘উন্নয়ন কাজগুলোর ৯০ শতাংশ আমাদের নিজস্ব অর্থ দিয়ে বাস্তবায়ন করছি। আমরা নিজেরাই এখন সব করতে পারি। কারো কাছে হাত পাততে হয় না। বাংলাদেশ এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। জনগণের পুষ্টির জন্য আমরা পদক্ষেপ নিয়েছি। শিক্ষা স্বাস্থ্য উন্নয়নে পদক্ষেপ নিয়েছি।’

এর আগে বিকেল ৫টার কিছু আগে যুবলীগের শীর্ষ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদল গণভবনে যান।

যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদের নেতৃত্বে প্রতিনিধিদলে আছেন প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ শামসুল আবেদীন, শহিদ সেরনিয়াবাত, মজিবুর রহমান চৌধুরী, মো. ফারুক হোসেন, মাহবুবুর রহমান হিরন, আবদুস সাত্তার মাসুদ, মো. আতাউর রহমান, অ্যাডভোকেট বেলাল হোসাইন, আলতাব হোসেন বাচ্চু, মো. সিরাজুল ইসলাম মোল্লা, আবুল বাশার, মোহাম্মদ আলী খোকন, অধ্যাপক এবিএম আমজাদ হোসেন, আনোয়ারুল ইসলাম, ইঞ্জিনিয়ার নিখিল গুহ, শাহজাহান ভুঁইয়া মাখন, অ্যাডভোকেট মোতাহার হোসেন সাজু, ডা. মোখলেছুজ্জামান হিরু, শেখ আতিয়ার রহমান দিপু, যুগ্ম সম্পাদক মহিউদ্দিন আহম্মেদ মহি, সুব্রত পাল, মনজুর আলম শাহীন, নাসরিন জাহান চৌধুরী শেফালী, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম জাহিদ, আমির হোসেন গাজী, মুহা. বদিউল আলম, ফজলুল হক আতিক, আবু আহম্মেদ নাসিম পাভেল, আসাদুল হক, এমরান হোসেন খান, আজহার উদ্দিন।

প্রতিনিধিদলে নেই সংগঠনটির চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী, প্রেসিডিয়াম সদস্য নুরন্নবী চৌধুরী শাওন, শেখ ফজলুর রহমান মারুফ এবং শেখ আতিয়ার রহমান দীপু।

দলীয় প্রধানের সঙ্গে সাক্ষাতে যুবলীগ নেতারা আগামী ২৩ নভেম্বরের কংগ্রেস উপলক্ষে নেত্রীর পরামর্শ নেবেন। যুবলীগের চেয়ারম্যান বিতর্কিত হয়ে পড়ায় কংগ্রেসে কে সভাপতিত্ব করবেন বা ভারপ্রাপ্ত কাউকে দায়িত্ব দেয়া হবে কি না-সেটি ঠিক হতে পারে বৈঠকে। এছাড়া যুবলীগের বয়সসীমা রাখা না রাখার বিষয়টিরও সুরাহা হতে পারে। যুবলীগের কংগ্রেসের স্থান, অতিথি আমন্ত্রণ, সম্মেলন উপলক্ষে কমিটির গঠনের জন্য অনুমতি চাইবেন যুবলীগ নেতারা। বৈঠকে সংগঠনের বর্তমান সাংগঠনিক পরিস্থিতিও তুলে ধরবেন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক।


ঢাকা/পারভেজ/সাইফ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন