ঢাকা     শুক্রবার   ৩১ মার্চ ২০২৩ ||  চৈত্র ১৭ ১৪২৯

ধামরাইয়ে আওয়ামী লীগ নেতাকে মারধরের অভিযোগ

সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৩৬, ২০ জানুয়ারি ২০২৩   আপডেট: ২০:০০, ২০ জানুয়ারি ২০২৩
ধামরাইয়ে আওয়ামী লীগ নেতাকে মারধরের অভিযোগ

আব্দুল মান্নান

ঢাকার ধামরাইয়ে একটি মাদ্রাসার ইট বিক্রি নিয়ে তর্কাতর্কির জেরে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতিকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে সাবেক ইউপি সদস্যসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে। তবে অভিযুক্তদের দাবি এমন কোনো ঘটনাই ঘটেনি।

শুক্রবার (২০ জানুয়ারি) বিকেলে এ ঘটনায় ধামরাই থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী ওই আওয়ামী লীগ নেতা। এর আগে, সকালে উপজেলার সানোড়া ইউনিয়নের শোলধন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী আব্দুল মান্নান ধামরাইয়ের সানোড়া ইউনিয়নের ছোট নারায়ণপুর এলাকার আব্দুল গফুরের ছেলে। তিনি উপজেলার সানোড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি।

অভিযুক্তরা হলেন- একই ইউনিয়নের শোলধন এলাকার মহিদুর রহমান সজল, রেজাউল করিম, আরফান ও টিক্কা। এর মধ্যে, মহিদুর রহমান সজল সানোড়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার।

ভুক্তভোগী ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, প্রায় দেড় বছর আগে সড়ক প্রশস্তকরণ কাজের সময় স্থানীয় একটি মাদ্রাসার সীমানা দেয়াল ভেঙে ফেলা হয়। এতদিন সেই ভেঙে ফেলা দেয়ালের ইট পার্শ্ববর্তী মাঠে পড়ে ছিল। সম্প্রতি ইটগুলো বিক্রির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ইট বিক্রির নিলামের মধ্যে দুই পক্ষের মারামারির ঘটনা ঘটে।

আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মান্নান বলেন, ‘নিলাম হওয়া ইটের দাম কবে দেওয়া হবে, এ নিয়ে তর্ক শুরু হয়। আমি বলি টাকা নগদ দিতে হবে। তর্কের মধ্যেই অভিযুক্তরা আমার ওপর হামলা চালায়। আমাকে উপর্যুপরি কিল-ঘুষি মারতে থাকে। এতে গুরুতর জখম হই। পরে ধামরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়ে চারজনের নামে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছি।’

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে মহিদুর রহমান সজল বলেন, ‘সে আমাদের মুরুব্বি। তাকে কোনো মারধর করা হয়নি। সে এমন কথা বলে থাকলে তা ভুয়া। অভিযোগ করে থাকলে পুলিশ তদন্ত করবে। আমরা তাকে মারধর করিনি।’

ধামরাই থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) তালুকদার সজীব হাসান বলেন, ‘ওই ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে। ঘটনাটি জেনে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

সাব্বির/কেআই

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়