ঢাকা, শনিবার, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

পেঁয়াজ চক্রান্তে কারা, খতিয়ে দেখতে নির্দেশ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১১-১৬ ২:০৩:৩২ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১১-১৭ ৩:৩৮:৩৩ পিএম

পেঁয়াজের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির নেপথ্যে কোন সিন্ডিকেট কাজ করছে, তা খতিয়ে দেখতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, পেঁয়াজ সংকট দুয়েকদিনের মধ্যেই কেটে যাবে। সোমবারের মধ্যে বিমানে করে পেঁয়াজ আনার পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার।

শনিবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বেচ্ছাসেবক লীগের তৃতীয় জাতীয় সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্য দিতে গিয়ে এ কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “সব দেশেই পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে এটা ঠিক। কিন্তু আমাদের দেশে অস্বাভাবিকভাবে কেন পেঁয়াজের দাম লাফিয়ে বাড়লো জানি না…এখন আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি বিমানে করে পেঁয়াজ আমদানি করে নিয়ে আসছি।’

‘আমরা দেখতে চাই, কারা এই ধরনের চক্রান্তের সঙ্গে জড়িত আছে। আবহাওয়ার কারণে অনেক সময় দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়ে, কমে। মানুষকে জিম্মি করে দুই পয়সা কামানো…এটাও আমরা দেখব। এর পেছনে কারা জড়িত তা দেখতে হবে। যখনই আমরা এগিয়ে যাই মানুষ ভালো থাকে একটা না একটা ইস্যু তৈরি করে মানুষকে বিভ্রান্ত করা হয়। সুতরাং এর পেছনে কার কি তা খুঁজে বের করুন।”

তিনি আরো বলেন, ‘আগামী পরশুর মধ্যে পেঁয়াজ দেশে পৌঁছাবে। সুতরাং চিন্তার কোনো কারণ নেই।’

দুর্নীতির বিরুদ্ধে যে অভিযান শুরু হয়েছে তা অব্যাহত রাখার কথা পুনর্ব্যক্ত করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড, চাঁদাবাজি, অসৎ উপায়ে টাকা কামিয়ে সেটা দিয়ে আবার বিলাসবহুল জীবনযাপন করে ফুটানি দেখানো, সেটা আমরা বরদাশত করব না। অবৈধ পথে টাকা কামিয়ে বিরিয়ানি খাওয়ার চেয়ে সৎ পথে নুনভাত খাওয়া অনেক বেশি গৌরবের।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি ক্ষমতায় এসে তাদের কামানো অবৈধ অর্থ দিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে অনেক তদন্ত শুরু করে। এরপর কেয়ারটেকার এসে শুরু করে কিন্তু কিছু পায়নি। আমেরিকায় আমাদের পরিবারের কার কী আছে সেটি দেখতে বিএনপি বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করে এফবিআইয়ের একজন সদস্যকে হায়ার করে। তদন্ত করতে গিয়ে বেরিয়ে আসলো খালেদা জিয়া ও তার দুই ছেলের দুর্নীতির চিত্র। আমার ও আমার পরিবারের বিরুদ্ধে দুর্নতির কোনো প্রমাণ তারা পায়নি।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে এবং তার তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক সজীব ওয়াজেদ জয়কে আমেরিকায় কিডন্যাপ করে তাকে মেরে ফেলতে বিএনপি ষড়যন্ত্র করেছিল বলেও জানান তিনি। প্রধানমন্ত্রী নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়ে বলেন, ‘পঁচাত্তর পরবর্তী ষড়যন্ত্র থেমে নেই। ষড়যন্ত্রের গভীরতা অনেক দূর পর্যন্ত।’

বিএনপি সরকারের শাসনামলের দেশে দুর্নীতি আর সন্ত্রাসের বিস্তার ঘটেছিল উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিএনপির সময়ে সন্ত্রাস, দুর্নীতি, জঙ্গবাদের উত্থান হয়েছে। পাঁচ বার বাংলাদেশ বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। এই দুর্নীতিবাজ বিএনপি যাতে কখনো ক্ষমতায় যেতে না পারে এজন্য বাংলাদেশের মানুষকে সতর্ক থাকতে হবে। এরা ক্ষমতায় থাকা মানেই দেশকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাওয়া। দুর্নীতি, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদের দিকে নিয়ে যাবে।’

এ সময় আওয়ামী লীগ সরকারের শাসনামলে বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড ও অর্থনৈতিক অগ্রগতির কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

এর আগে বেলা ১১টার দিকে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শান্তির প্রতীক সাদা পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে জাতীয় সঙ্গীতের সঙ্গে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় একযোগে স্বেচ্ছাসেবক লীগের ৭৯টি সাংগঠনিক জেলার দলীয় পতাকাও উত্তোলন করা হয়।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা মঞ্চে উঠলে স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা-কর্মীরা মুহুর্মুহু স্লোগান আর করতালিতে মুখরিত করে তোলে পুরো এলাকা। মঞ্চে উঠে শেখ হাসিনা নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে হাত নেড়ে অভিনন্দনের জবাব দেন।

প্রধানমন্ত্রীকে ফুল ও ক্রেস্ট দিয়ে বরণ নেন সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক নির্মল রঞ্জন গুহ ও সদস্য সচিব গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু।

বেলা ১১টা ৪৭ মিনিটে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াতের মাধ্যমে সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক কার্যত্রম শুরু হয়। এ সময় অন্যান্য ধর্মগ্রন্থ থেকেও পাঠ করা হয়। এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সম্মেলনের ব্যাজ পরিয়ে দেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলনের মহিলা বিষয়ক উপ-কমিটির আহ্ববায়ক শাহনাজ ইয়াসমিন। সংগঠনের থিম সং এবং 'জয় বাংলা' সঙ্গীতের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করা হয়। এরপর গান পরিবেশন করেন সাংসদ ও কণ্ঠশিল্পী মমতাজ বেগম।

দুপুরের বিরতির পর সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্ব অনুষ্ঠিত হবে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে। এখানেই ঘোষণা হবে স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির নতুন নেতৃত্ব সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী সংগঠনের উত্তর-দক্ষিণের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের নামও ঘোষণা করা হবে এদিন।

গত ১১ ও ১২ নভেম্বর পর্যায়ক্রমে স্বেচ্ছাসেবক লীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ও উত্তরের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হবে।

 

ঢাকা/পারভেজ/সনি

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন